kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ২৬ মে ২০২২ । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৪ শাওয়াল ১৪৪

জেমি মাঠে নামছেন ১ ফেব্রুয়ারি

২৩ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জেমি মাঠে নামছেন ১ ফেব্রুয়ারি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যুগে নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল ডালভাত ব্যাপার। জেমি সিডন্সেরও আছে। গতকাল নিজের সেই চ্যানেলে বাংলাদেশে ফেরা নিয়ে কথা বলেছেন জাতীয় দলের সাবেক এই কোচ। ভিসা হয়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

১ ফেব্রুয়ারি থেকে বাংলাদেশে কাজও শুরু করবেন। তবে বিমান টিকিট এখনো নিশ্চিত হয়নি বলে জানাতে পারেননি ঠিক কবে বাংলাদেশে পা রাখবেন এই অস্ট্রেলিয়ান।

আরো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ও অজানা জেমি সিডন্সের। জাতীয় দল, ‘এ’ দল, হাই পারফরম্যান্স কিংবা অতি সম্প্রতি ঘোষিত বাংলা টাইগার্স—কোন দল কিংবা কর্মসূচির সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হবে জেমিকে, এ ব্যাপারে সরকারি কোনো ঘোষণা আসেনি। তিনি নিজেও জানেন না ঠিক কোনটি হবে তাঁর কর্মক্ষেত্র, ‘আমি পরিষ্কার করে জানি না ঠিক কোথায় আমি বেশির ভাগ সময় কাজ করব। সম্ভবত কিছু প্রতিভাবান ক্রিকেটারের খেলায় উন্নতি করার কাজ করব। এক সপ্তাহের মধ্যেই ওখানে (বাংলাদেশ) পৌঁছব। সবার শুভ কামনা চাচ্ছি। ’ সঙ্গে কৌতুক জুড়ে দিয়েছেন, ‘আশা করছি, আমার গলফ স্কিলে যথেষ্ট উন্নতি ঘটাতে পারব। ’

সুনির্দিষ্ট করে না জানলেও বাংলাদেশে নিজের করণীয় সম্পর্কে কিছু বার্তা তো পেয়েছেনই জেমি সিডন্স। সেই বার্তায় তাঁর কর্মক্ষেত্রের বিস্তৃতি তরুণ প্রতিভা থেকে জাতীয় দলের প্র্যাকটিস সেশনও অনুমান করা যায়। সে কারণেই সম্ভবত ভিডিওর শুরুতে নিজের ফিটনেস নিয়ে কথা বলেছেন জেমি, ‘হাই গাইজ, আমি আরেকটু ফিট হওয়ার চেষ্টা করছি। ’ এরপর সুখবর শুনিয়েছেন, ‘বাংলাদেশের ভিসা পেয়ে গেছি। কোচ হিসেবে আমার পরবর্তী গন্তব্য বাংলাদেশ। আশা করছি, দুই বছর কাজ করব। অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দলের সঙ্গে থাকার কথা রয়েছে। আশা করছি, টুর্নামেন্টটি যথাসময়ে হবে। ’

জাতীয় দলের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন জেমি সিডন্স, ‘বাংলাদেশে প্রথম দফায় থাকার সময়টা দারুণ উপভোগ করেছি। আশা করছি, এবারও উপভোগ করব। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কাজ শুরু করব। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি এবং টেস্ট ম্যাচে দারুণ জয় পেয়েছে। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট জয় সেদিনের ঘটনা। ওই ম্যাচে দারুণ ব্যাটিং-বোলিং করার পরও কেন দ্বিতীয় টেস্টে ওভাবে হারল, জানি না। ধারাবাহিকতার এই ঘাটতি কাটিয়ে ওঠায় সাহায্য করার ইচ্ছা আছে। ’



সাতদিনের সেরা