kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ২৬ মে ২০২২ । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৪ শাওয়াল ১৪৪

নৌবাহিনীর খাতায় আরিফ পলাতক

১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির বৃত্তি নিয়ে ফ্রান্সে তিন বছর প্রশিক্ষণে ছিলেন। অংশ নিয়েছেন গত টোকিও অলিম্পিকেও। সেই সাঁতারু আরিফুল ইসলাম বৃত্তি শেষে আবার ফ্রান্সে চলে গিয়েছেন। যাওয়ার সময় ফেডারেশনকে কিছু জানাননি।

বিজ্ঞাপন

অনুমতি নেননি তাঁর দল বাংলাদেশ নৌবাহিনীরও।

গতকাল যোগাযোগ করা হলে আরিফ জানিয়েছেন, ‘দেশে থেকে তো কোনো ভবিষ্যৎ নেই। ফ্রান্সে আমি সাঁতারেই ক্যারিয়ার গড়তে পারব। এখানকার একটা ক্লাবে চার হাজার ইউরো দিয়ে এক বছরের জন্য ভর্তি হয়েছি। ট্রেনিংয়ের পাশাপাশি সপ্তাহে এক দিন সাঁতার শেখাচ্ছিও। কোচিংয়ে ঢুকে যাওয়ার পরিকল্পনা আমার। ’

অলিম্পিক শেষে গত ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত ভিসার মেয়াদ ছিল তাঁর। তার আগেই তিনি ফ্রান্সে চলে যান। অথচ নৌবাহিনী তাঁকে ছাড়পত্র দেয়নি। গতকাল নৌবাহিনীর লে. কমান্ডার হাসান মাহামুদ বলেছেন, ‘তাকে ছাড়পত্র দেওয়ার প্রশ্নই আসে না। ওর প্রশিক্ষণের পেছনে আমাদের অনেক বিনিয়োগ আছে। ’ আরিফ চলে যাওয়ার পর বাহিনীর পক্ষ থেকে তাঁর বাড়িতে চিঠিও পাঠানো হয়েছে তাঁকে পলাতক উল্লেখ করে। সেই চিঠির প্রতিলিপি দেওয়া হয়েছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ, বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন ও সাঁতার ফেডারেশনকে।

ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এম বি সাইফ বলেছেন, ‘ও আমাদের কিছুই বলে যায়নি। অলিম্পিকের জন্যই ওর স্কলারশিপটা ছিল। সেই অলিম্পিক করে ও দেশেও আসে। এরপর যাওয়ার আগে আমাদের আর কিছু বলেনি। ’ আরিফ অবশ্য বলেছেন, ‘ফেডারেশন ২০২৪ পর্যন্ত ফ্রান্সেই আমার অনুশীলনের ব্যপারে ইতিবাচক ছিল। সেজন্য এখানে আমার ক্লাবকে চিঠিও পাঠানো হয়েছিল। সেটা অবশ্য অলিম্পিকের আগেই। ’ আর বাহিনীর অনুমতি না নেওয়া নিয়ে তাঁর বক্তব্য, ‘আমি অনেক দিন আগে থেকেই বাহিনীকে এটা বলে আসছিলাম। অবশ্য মৌখিকভাবেই শুধু জানিয়েছি। কিন্তু তাঁরা সাড়া দেননি এতে। পরে ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে দেখেই আমাকে চলে আসতে হলো। ’

২০১৩ সালে জুনিয়র সাঁতারে ১৩ সোনা জিতে আরিফ প্রথম আলোচনায় আসেন। ২০১৬ সালে শ্রীলঙ্কায় অনূর্ধ্ব-১৮ দক্ষিণ এশীয় সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে জিতেছিলেন সোনা। তাঁকে ঘিরে এসএ গেমসেও সোনার প্রত্যাশা ছিল। ফ্রান্সে প্রশিক্ষণের মধ্যে থেকেই ২০১৯ এসএ গেমসে অংশ নিয়েছিলেন। সেখানে জেতেন রুপা। এম বি সাইফ বলছিলেন, ‘পারফরম্যান্স নিয়ে আরেকটু মনোযোগী হলে ও আমাদের সোনা জেতাতে পারত। ’ ওদিকে ফ্রান্সে নিজ খরচে প্রশিক্ষণে থেকে আগামী এসএ গেমসেও অংশ নিতে চান আরিফ। সেখান থেকে এ ইচ্ছার কথা জানিয়ে চিঠিও দিয়েছেন ফেডারেশনে। তবে যেভাবে তিনি গেছেন, সেটিই প্রশ্ন তুলে দিয়েছে তাঁর ক্যারিয়ার নিয়ে।



সাতদিনের সেরা