kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ২৬ মে ২০২২ । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৪ শাওয়াল ১৪৪

‘প্রযুক্তিহীন’ বিপিএলের বাড়তি চ্যালেঞ্জ

১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘প্রযুক্তিহীন’ বিপিএলের বাড়তি চ্যালেঞ্জ

ছবি : কালের কণ্ঠ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : প্রসঙ্গ যখন প্রযুক্তির সুবিধা-অসুবিধা, তখন উদাহরণ হিসেবে দু-দুটি বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলা পল রাইফেল এসেই যান। খেলা ছাড়ার পর পুরোদস্তুর আম্পায়ার বনে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই পেসার সদ্যঃসমাপ্ত অ্যাশেজ সিরিজেও ছিলেন তুমুল আলোচিত। ক্যামেরন গ্রিনের বলে বেন স্টোকসকে এলবিডাব্লিউ দেওয়ার পর প্রযুক্তির ব্যবহারে বেরিয়ে আসে যে বল আসলে আঘাত হেনেছিল অফস্টাম্পে, কিন্তু বেল না পড়ায় বেঁচে যান ইংলিশ অলরাউন্ডার। সেই শব্দকেই প্যাডে আঘাত হানার শব্দ ভেবে ভুলের ফাঁদে পা দেন রাইফেল।

বিজ্ঞাপন

যদিও প্রযুক্তির সুবিধাহীন সিরিজে তিনি কখনোই এমন ভুল করতেন না বলেই বিশ্বাস বাংলাদেশের আম্পায়ার শরফুদ্দৌলা ইবনে শহীদের, ‘প্রসঙ্গটি এ জন্যই টানলাম যে প্রযুক্তির ব্যবহারে আম্পায়াররা অনেকটা নির্ভার থেকে সিদ্ধান্ত দিতে পারেন। বেন স্টোকসের বেলায়ও রাইফেল খুব নিশ্চিত ছিলেন না হয়তো। তবে প্রযুক্তির মাধ্যমে ভুল সংশোধনের সুযোগ না থাকলে তিনি ওরকম সিদ্ধান্ত দিতেন বলে মনে হয় না। ’

শহীদের এভাবে অ্যাশেজ ঘুরে আসার কারণ শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) থেকে শুরু হতে যাওয়া বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) ডিআরএস না থাকা। যেটি একই সময়ে বিশ্বের নানা প্রান্তের টুর্নামেন্টে ঠিকই আছে। আছে এমনকি শ্রীলঙ্কায় স্বাগতিকদের সঙ্গে জিম্বাবুয়ের ‘লো প্রফাইল’ সিরিজেও। ২৭ জানুয়ারি থেকে শুরু হতে যাওয়া পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) তো বটেই, ডিআরএস সুবিধা থাকছে মেয়েদের অ্যাশেজেও। সবখানে থাকলেও নেই শুধু বিপিএলেই। তা নিয়ে আগাম চ্যালেঞ্জই অনুভব করতে শুরু করে দিয়েছেন শহীদ, ‘সব ব্যাটার যেমন প্রতিদিন রান করে না, তেমনি সব আম্পায়ারও সব সময় সঠিক সিদ্ধান্ত দেন না। মানবীয় কিছু ভুল হয়েই যায়। তা এড়ানোর জন্য এবার ডিআরএসও নেই। অবশ্যই খুব চ্যালেঞ্জিং হবে এবার। ’

একই মত শহীদের মতোই দেশের আরেক অন্যতম সেরা আম্পায়ার মাসুদুর রহমানেরও। ডিআরএস না থাকাটা আম্পায়ারদের মনঃকষ্টের কারণ হবে বলেও মনে করছেন তিনি, ‘অনেক সময় আম্পায়ারদের মানবীয় ভুলের ভুক্তভোগী হতে হয় কোনো কোনো দলকে। ডিআরএসের মাধ্যমে সেসব ভুল সংশোধিত হলে আমাদের ভালোও লাগে। এবার এই সুবিধা না থাকায় আমি নিশ্চিত পরে নিজেদের ভুলের জন্য অনুশোচনাই হবে, কষ্ট পাব। ’ ওদিকে শহীদ চিন্তিত আম্পায়ারদের ভুল নিয়ে বাংলাদেশে প্রচলিত মনোভাব নিয়ে, ‘আমাদের দেশে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত না মানার একটি প্রবণতা আছে। আমি নিশ্চিত যে বিসিবি এ বিষয়েও উদ্যোগী হবে। তবু ডিআরএস থাকলে এ কথাই আমি তুলতাম না। ’ মাসুদুর তুললেন আরেকটি সমস্যার কথাও, ‘ডিআরএসের সঙ্গে যখন এর টেকনিশিয়ানও থাকেন, তখন ওভারস্টেপিংয়ের জন্য নো বল হলে তিনি তৃতীয় আম্পায়ারকে জানান। সে ক্ষেত্রে মাঠের আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে বাড়তি মনোযোগ দিতে পারেন। এবারের বিপিএলে এখন বোলারদের পায়ের দিকেও নজর দিতে হবে আমাদের। ’



সাতদিনের সেরা