kalerkantho

শনিবার ।  ২১ মে ২০২২ । ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩  

টেস্ট নেতৃত্বও ছাড়লেন কোহলি

১৬ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



টেস্ট নেতৃত্বও ছাড়লেন কোহলি

বিশ্বকাপের সময়ই সরে দাঁড়ান টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব থেকে। এরপর বিরাট কোহলি হারান ওয়ানডের নেতৃত্ব। এ নিয়ে ভারতীয় বোর্ড প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলি ও নির্বাচকদের নিয়ে কানাঘুষা থামেনি এখনো। এর মধ্যেই গতকাল টেস্টের নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন কোহলি।

বিজ্ঞাপন

টেস্টে ভারতের সবচেয়ে সফল এই অধিনায়ক টুইটারে দেওয়া এক বিবৃতিতে লিখেছেন, ‘সাত বছর ধরে প্রতিদিন কঠোর পরিশ্রম, একটানা ধৈর্য দেখিয়ে দলকে একটা সঠিক দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। সম্পূর্ণ সততার সঙ্গে কাজটা করেছি, কোনো কিছু বাদ রাখিনি। কোনো একটা পর্যায়ে এসে সব কিছু একসময় থেমে যায়। টেস্ট দলের অধিনায়ক হিসেবে আমার কাছে এটাই থেমে যাওয়ার সময়। এই যাত্রাপথে অনেক উত্থান ও পতন হয়েছে। তবে কখনো চেষ্টা বা বিশ্বাসের কমতি রাখিনি। সব সময় নিজের ১২০ শতাংশ দেওয়ার চেষ্টা করেছি। যদি সেটা না পারি, তাহলে আমি জানি এটা সঠিক কাজ নয়। দলের প্রতি অসত্ হতে পারব না। ’

২০১৪ সালে মহেন্দ্র সিং ধোনি অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট থেকে অবসর নিলে নেতৃত্ব পান কোহলি। তাঁর নেতৃত্বে ৬৮ টেস্টে ভারত জিতেছে ৪০টি। সাফল্যের হার ৫৮.৮২ শতাংশ। ভারতীয় অধিনায়কদের মধ্যে সাফল্যের হারে সবচেয়ে এগিয়ে কোহলি। টেস্ট ইতিহাসেই তাঁর চেয়ে এগিয়ে শুধু স্টিভ ওয়াহ, ডন ব্র্যাডম্যান ও রিকি পন্টিং। এ জন্য সাবেক কোচ রবি শাস্ত্রী ও অধিনায়ক ধোনির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন কোহলি, ‘রবি শাস্ত্রী ও অন্য সাপোর্ট স্টাফদের প্রশংসা প্রাপ্য। ভারতীয় দল যেভাবে একটা গাড়ির মতো ধারাবাহিকভাবে ওপরে উঠে এসেছে, সেই গাড়ির ইঞ্জিন ছিলেন তাঁরা। আমাকে অধিনায়ক হিসেবে যোগ্য মনে করার জন্য ধোনির প্রতি কৃতজ্ঞতা। ’ অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি ২০টি টেস্ট সেঞ্চুরির রেকর্ড কোহলিরই। তবে ২০১৯ সালের পর সেঞ্চুরি পাননি আর। সেই সঙ্গে ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ হারের হতাশা। শেষ টেস্টে হারের পরই সতীর্থদের জানিয়ে দেন নেতৃত্ব ছাড়ার কথা, যা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছেন কাল। সর্বশেষ সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে ২-১ ব্যবধানে হেরেছে কোহলির ভারত। শেষ টেস্টে ডিআরএস বিতর্কে স্টাম্প মাইকে ক্ষোভ উগরে দেওয়ায় সমালোচনা হচ্ছিল কোহলির। খোঁচা দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ডিন এলগারও, ‘ওরা আবেগে চলছিল আর খেলার বাইরে চলে গিয়েছিল। পুরো ম্যাচের ছবি বদলে দেয় ব্যাপারটা। ’ পিটিআই



সাতদিনের সেরা