kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

শেষ মুহূর্তে স্বপ্নভঙ্গ

১৭ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শেষ মুহূর্তে স্বপ্নভঙ্গ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফাইনালের দুয়ার থেকেই ছিটকে পড়ল বাংলাদেশ। ৯০তম মিনিটে গোল হজম করে শ্রীলঙ্কায় চার জাতি টুর্নামেন্টে স্বাগতিকদের কাছে ২-১ গোলে হেরে গেছেন জামাল ভূইয়ারা। নাটকীয়তায় ভরা এক ম্যাচই ছিল এটা।

বাংলাদেশের জন্য সমীকরণটা সহজ ছিল, ড্র হলেই পেত ফাইনালের মঞ্চ।

বিজ্ঞাপন

আর লঙ্কানদের জিততেই হবে। সে ম্যাচে শুরুতে পিছিয়ে পড়ল বাংলাদেশই। ২৫ মিনিটে ওয়াসিম রাজিক গোল করে ফাইনালের স্বপ্ন উজ্জ্বল করেন স্বাগতিকদের। এরপর ৩২তম মিনিটেই সেই গোল ফিরিয়ে দেওয়ার দারুণ সুযোগ পেয়ে যায় বাংলাদেশ। গোললাইন থেকে ডাকসন পুসলাস হাত দিয়ে বল ফেরালে পেনাল্টি পায় মারিও লেমোসের দল। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে যে তপু বর্মণ পেনাল্টি থেকেই গোল করে এই লঙ্কানদের বিপক্ষেই জিতিয়েছিলেন বাংলাদেশকে, একইভাবে জিতিয়েছেন এ আসরে মালদ্বীপের বিপক্ষে ম্যাচটায়ও, সেই তপুও কি না এদিন স্পট কিক থেকে বল উড়িয়ে দিলেন ক্রসবারের ওপর দিয়ে। ডাকসনের লাল কার্ডে লঙ্কানরা তাই ১০ জন হয়ে পড়ে ঠিক, কিন্তু স্কোরলাইনে লিডটা তারা ধরে রাখে। সেই লিডটা ছিল ৭০ মিনিট পর্যন্ত। দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে বক্সের ভেতর এবং আশপাশে সব খেলোয়াড়কে জড়ো করে ফেলে তারা। বাংলাদেশের সমতায় ফেরা গোল পাওয়াটা তাই ভীষণ কঠিন হয়ে যায়। বদলি নেমে জুয়েল রানা সেই গোলটা এনে দেন বাংলাদেশকে। লেফট উইং থেকে আরেক বদলি খেলোয়াড় ইয়াসিন আরাফাতের ক্রসে লঙ্কান গোলরক্ষক সুজন পেরেরার পায়ের ফাঁক দিয়ে বল জালে জড়ান জুয়েল। ১-১ সমতায় ফাইনালটা তাই আবার বাংলাদেশের দিকেই হেলে পড়ে। সেভাবেই অপেক্ষা ছিল শেষ বাঁশির।

কিন্তু এদিন দিনটাই ছিল না যেন বাংলাদেশের। তাই ৯০তম মিনিটে বক্সের ভেতর একটা নিরীহ বল সাদ উদ্দিনের হাতে লেগে গেলে রেফারি বাজান পেনাল্টির বাঁশি। তপু যা করেছিলেন, ওয়াসিম রাজিক তা করেননি মোটেও। আনিসুর রহমানকে বিভ্রান্ত করে ঠিক বল জালে জড়িয়ে দিয়েছেন। শ্রীলঙ্কাকেও তুলে নিয়েছেন ফাইনালে। বাংলাদেশকে তাই ফিরতে হয়েছে শিরোপার সেই মঞ্চের দুয়ার থেকেই। ফাইনালে শ্রীলঙ্কার প্রতিপক্ষ সেলেশলস। যারা আগের ম্যাচেই মালদ্বীপকে গোলশূন্য রুখে দিয়ে উঠে গেছে সেই মঞ্চে।



সাতদিনের সেরা