kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ইতালির ভাগ্য প্লে-অফে

১৭ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইতালির ভাগ্য প্লে-অফে

এই দলটিই তো কিছুদিন আগে ওয়েম্বলিতে উৎসব করেছে। তখনো বিশ্বাস হতে চায়নি অনেকের, বিশ্বকাপে সুযোগই না পাওয়া ইতালি কিনা ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেল! পরশু রাতে বেলফাস্টের ইতালিকে দেখেও বিশ্বাস করাটা কঠিন ছিল তারাই কিছুদিন আগে ইউরো মাতিয়েছে। এদিন নর্দান আয়ারল্যান্ডকে হারাতে না পেরে আবারও যে বিশ্বকাপ ভাগ্য ঝুলে গেছে আজ্জুরিদের। আবার সেই প্লে অফে গিয়ে পড়েছে তারা।

বিজ্ঞাপন

ইতালির গোলশূন্য ড্রয়ের দিন সুইজারল্যান্ড ৪-০ গোলে বুলগেরিয়াকে হারিয়ে এই গ্রুপ থেকে কেটেছে সরাসরি বিশ্বকাপের টিকিট। সুইজারল্যান্ডের খেলা ছিল লুজার্নে। প্রথমার্ধ শেষে দুই মাঠেই স্কোরলাইন ০-০। এই ফলটা টিকে গেলে ইতালিই নিশ্চিত করে ফেলত বিশ্বকাপ। কারণ গ্রুপে ইতালি-সুইজারল্যান্ড দুই দলেরই পয়েন্ট সমান হলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে ছিল আজ্জুরিরা। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধ শুরু হতেই লুজার্নে থেকে আসে সুইসদের এগিয়ে যাওয়ার খবর। তখন ইতালিরও জেতা ছাড়া আর কোনো পথ থাকে না। কিন্তু ঘরের মাঠে আইরিশরা সেই সুযোগ দিলে তো। প্রথাগত নাম্বার নাইন ছাড়াই এদিন দল সাজিয়েছিলেন রবার্তো মানচিনি। লরেঞ্জো ইনসিনিয়েকে খেলাচ্ছিলেন ফলস নাইন হিসেবে। কিন্তু ইনসিনিয়ে জ্বলে উঠতে পারেননি এদিন। প্রথমার্ধে তাই তেমন কোনো সুযোগই তৈরি করতে পারেনি তারা। দ্বিতীয়ার্ধে বরং স্বাগতিকরাই গোলের গন্ধ শুঁকে এগিয়ে আসে। ৫৭ মিনিটে রুবেন ভার্গাস লুজার্নে ২-০ করে ফেললে গোল ব্যবধানও সমান হয়ে যায় দুই দলের। তখনো ইতালিকে জিতলেই চলত। কিন্তু বিশ্বকাপের সৌরভ পেয়ে সুইসরাও তখন ছুটছে তুমুল। ৭২ মিনিটে তৃতীয় গোলটাও পেয়ে যায় তারা। এদিকে তখনো ০-০। এরপর আর ইতালিকে জিতলেও চলে না, জিততে হতো দুই গোলের ব্যবধানে। শেষ দিকে বরং গোললাইন থেকে বল ফিরিয়ে হার বাঁচিয়েছেন লিওনার্দো বোনুচ্চি। এর আগে জিয়ানলুইজি দুনারুম্মাও দারুণ এক সেভে পোস্ট অক্ষত রাখেন। আর এভাবেই ম্যাচ শেষ হলে সরাসরি বিশ্বকাপে যাওয়ার আশাটাও শেষ হয়ে যায় আজ্জুরিদের। ওদিকে সুইজারল্যান্ড আরো এক গোল যোগ করে উৎসব করেছে কাতারের টিকিট পাওয়ার। ইংল্যান্ডও এদিন কাতারের টিকিট নিশ্চিত করেছে সান ম্যারিনোকে গোলবন্যায় ভাসিয়ে। হ্যারি কেইনের চার গোলে ১০-০তে জিতেছে তারা। এএফপি



সাতদিনের সেরা