kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

‘আমাদের দ্বারা হচ্ছেই না’

বারবারই নাসুমের কথার ট্যাগলাইন ‘হচ্ছে না...’। পথে ফিরতে চাওয়া দল কেন পথ খুঁজে পাচ্ছে না এবং তা নিয়ে নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা হয় কিনা, এমন প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে যেমন বলেছেন, ‘এটি নিয়ে আমাদের মধ্যে কথা হয়। অবশ্যই আমরা কথা বলি। যেহেতু হচ্ছে না...। প্রথম ৬ ওভারে রান তুলতে পারছি না। এজন্যই আমরা একটু ব্যাকফুটে চলে যাচ্ছি। রানও তুলতে পারছি না, উইকেটও চলে যাচ্ছে।’

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



‘আমাদের দ্বারা হচ্ছেই না’

সব দলেরই যা আছে, বাংলাদেশের তা নেই। বিশ্বকাপ অভিযানে দেশ ছেড়ে আসার সময় অবশ্য একজনকে নিয়ে আসা হয়েছিল। দলের বাড়তি সদস্য হিসেবে আনা আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে আবার ওমানে বাছাই পর্ব শুরুর আগেই দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এই লেগস্পিনার যখন নেই, তখন কাউকে না কাউকে তো তাঁর শূন্যতা ভরাটের দায়িত্ব নিতেই হয়। সেটিই নিয়েছিলেন অফস্পিনার মেহেদী হাসান।

ম্যাচে নয়, ইংল্যান্ড ম্যাচের আগের দিন। এই ম্যাচ সামনে রেখে ইংলিশ লেগস্পিনার আদিল রশিদকে সামলানোর প্রস্তুতি দরকার ছিল। সে জন্য দুবাইয়ের আইসিসি ক্রিকেট একাডেমি মাঠের অনুশীলনে বাইরের কোনো লেগস্পিনারও নিয়ে আসার উপায় ছিল না। যেহেতু এই বিশ্বকাপের প্রতিটি দলকেই রাখা হয়েছে বায়ো বাবল বা জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যেই। অগত্যা নেটে ব্যাটিং করতে যাওয়া মুশফিকুর রহিম লেগস্পিন করতে বলেন মেহেদীকে। এই অফস্পিনারও কবজির মোচড়ে চেষ্টা করেন দলের সিনিয়র ব্যাটারের চাহিদা মেটানোর।

পরদিন আবুধাবির শেখ জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রশিদ বাংলাদেশের ব্যাটারদের বিপক্ষে তেমন সুবিধাও করে উঠতে পারেননি। ৪ ওভারে ৩৫ রান খরচায় পাননি কোনো উইকেট। তবে তিনি না পান, দুই ইংলিশ অফস্পিনার মঈন আলী ও লিয়াম লিভিংস্টোন ঠিকই পেয়েছেন। মঈন জোড়া আঘাতে শুরুতে বাংলাদেশকে বড় ধাক্কা দেওয়ার পর লিয়ামেও হোঁচট খান মাহমুদ উল্লাহরা। তবে এর মধ্যেও ব্যাট হাতে নজর কাড়েন বোলার নাসুম আহমেদ। বিশেষ করে রশিদের গুগলিকে যেভাবে স্লগ সুইপে ডিপ ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ার লেগ দিয়ে ছক্কায় উড়িয়েছেন, তা ছিল দলের ব্যাটিং ব্যর্থতার মধ্যেও কয়েক ফোঁটা সাফল্যের উজ্জ্বলতম ছবি।

পরে বল হাতেও জেসন রয়ের সঙ্গে জস বাটলারের উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন এই বাঁহাতি স্পিনার। হারের হতাশার দিনে ব্যাটে-বলে নিজের উপস্থিতি জানান দেওয়া নাসুমকেই কাল পাঠিয়ে দেওয়া হলো ম্যাচ-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে। বাছাই পর্বে পাপুয়া নিউ গিনিকে হারানোর পর সেই যে এসেছিলেন বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ, এরপর আর তাঁর কোনো দেখা নেই। সুপার টুয়েলভ পর্বে শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হওয়ার আগের দিন সশরীরে সংবাদ সম্মেলন করে গিয়েছিলেন হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। ইংল্যান্ড ম্যাচের আগের দিন তা-ও করেননি কেউ। সেদিন ভার্চুয়ালি সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে এসেছিলেন ফাস্ট বোলিং কোচ ওটিস গিবসন।

ইংল্যান্ডের কাছে হারার পর এলেন স্বল্পবাক নাসুম। যাঁর কণ্ঠে সংবাদ সম্মেলনের প্রায় পুরোটা জুড়ে অসহায়ত্বই ফুটে উঠল বেশি। যদিও দাবি করলেন যে মাত্র ১২৪ রান নিয়েও লড়াই জমিয়ে তোলার চেষ্টায় কোনো কমতি ছিল না তাঁদের, ‘(আবুধাবির) উইকেট ওরকম (বাংলাদেশের মতো) নয়। স্পিনাররা টার্ন পাচ্ছিল না একদমই। আমরা তবু চেষ্টা করেছি ভালো করার। আমরা ওই চেষ্টায়ই ছিলাম যেন এই রান নিয়েও লড়াই করতে পারি এবং ডিফেন্ড করতে পারি। কিন্তু হয়নি।’ 

না হওয়ার ব্যাখ্যায় বারবারই নাসুমের কথার ট্যাগলাইন ‘হচ্ছে না...’। পথে ফিরতে চাওয়া দল কেন পথ খুঁজে পাচ্ছে না এবং তা নিয়ে নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা হয় কি না, এমন প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে যেমন বলেছেন, ‘এটি নিয়ে আমাদের মধ্যে কথা হয়। অবশ্যই আমরা কথা বলি। যেহেতু হচ্ছে না...। প্রথম ৬ ওভারে রান তুলতে পারছি না। এ জন্যই আমরা একটু ব্যাকফুটে চলে যাচ্ছি। রানও তুলতে পারছি না, উইকেটও চলে যাচ্ছে। আমাদের সবার মধ্যেই ভালো কিছু করার চেষ্টা আছে। কিন্তু হচ্ছে না আসলে...।’

না হওয়ার মধ্যেও ঘুরে দাঁড়ানোর ইচ্ছা মরে যায়নি বলেও জানালেন। ২৯ অক্টোবর শারজায় দুই ম্যাচ হারা বাংলাদেশ মুখোমুখি হচ্ছে সমানসংখ্যক ম্যাচে হারা ওয়েস্ট ইন্ডিজের। সেই ম্যাচ জিতে আত্মবিশ্বাস পুনরুদ্ধারের লক্ষ্য জানাতে গিয়েও নাসুমের কথায় সেই না হওয়ার দুঃখই বাজল, ‘প্রত্যেক ম্যাচেই আমাদের চেষ্টা থাকে একটি জয় যেন পেতে পারি। একজন ব্যাটার বা বোলার পারফরম করলেই জেতার সুযোগ থাকে। একটি কথাই আমি বারবার বলছি, আমরা চেষ্টা করছি কিন্তু আমাদের দ্বারা হচ্ছে না।’

হচ্ছে না, নাকি তাঁরা নিজেরাই পারছেন না? নাসুমের জবাব শুনুন, ‘পারছি না, বিষয়টি এ রকম না। আমাদের দ্বারা হচ্ছেই না।’



সাতদিনের সেরা