kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

বাংলাদেশের আস্তিনে নির্দিষ্ট কিছু ডেলিভারি

গিবসন জানাচ্ছিলেন সেটিই, ‘আগের রাতের মিটিংয়ে যেগুলো নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি, সেগুলো আজ অনুশীলনেও ঝালিয়ে নেওয়ার সুযোগ আছে আমাদের। আমরা কিছু ডেলিভারি নিয়ে কথা বলেছি। অনুশীলনেও আমাদের বোলাররা সেগুলো চেষ্টা করে দেখবে।’

২৭ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাংলাদেশের আস্তিনে নির্দিষ্ট কিছু ডেলিভারি

লেন্ডল সিমন্সের ব্যাটিং ততক্ষণে চরম বিরক্তির কারণ হয়ে উঠেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এই ক্যারিবীয় ওপেনারের ৩৫ বলে ১৬ রানের ইনিংস শেষ হতেই হাঁপ ছেড়ে বাঁচা ত্রিনিদাদের সাংবাদিক বিনোদ মামচানের রসিকতা, ‘সিমন্স মনে হয় ম্যাচটি ড্র করার জন্যই খেলছিল!’

টি-টোয়েন্টির বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা এবার শুরু থেকেই এমন গোলমেলে যে টানা দুই হারে দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া অবস্থা তাদেরও। এর মধ্যে ইংল্যান্ডের সামনে ৫৫ রানে লুটিয়ে পড়ার লজ্জাও লেখা হয়েছে দলটির ভাগ্যে। দুই দিনের মধ্যেই তাদের বিপক্ষেও লড়াইয়ে নামতে হবে বাংলাদেশকে। তবে তাদের ত্রুটি-বিচ্যুতি নিয়ে ছক কাটতে বসার আগেই আজ ইংল্যান্ড পরীক্ষা বাংলাদেশের। আপাতত তাই ক্যারিবীয়রা নয়, মাহমুদ উল্লাহর দলের ভাবনার পুরোটা জুড়ে ইংলিশরাই।

এই ইংল্যান্ড আবার সেই ইংল্যান্ডও নয় যে তাদের হারানোর সম্ভাবনায় আগাম উত্তেজনা অনুভব করা যায়। ওয়ানডের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা কুড়ি-বিশের ক্রিকেটেও যে কতটা দুর্বার, সেটি তো জানান দেয় আইসিসির টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংই। যেখানে তারা ১ নম্বর। তাদের মুখোমুখি হওয়ার আগে বাংলাদেশ শিবিরেও দুটি ক্যাচ ফেলার ভুলে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে জয় হাতছাড়া করার হতাশা ছিল। সেই হতাশা আর নিজেদের ভুলগুলো ভুলে তারা ইংল্যান্ডের ভুল-ত্রুটি কাজে লাগানোর পথও খুঁজেছে।

পথ খুঁজে নিতে তারা নির্দিষ্ট অনুশীলনও করেছে। কাল দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে লেন্ডল সিমন্স যখন ধীরগতির বিরক্তিকর ব্যাটিং করছিলেন, তখন অদূরের আইসিসি ক্রিকেট একাডেমিতেই চলছিল পরিকল্পনা অনুযায়ী নিজেদের তৈরি করে নেওয়ার চেষ্টা। যদিও আবুধাবির ম্যাচ সামনে রেখে গতকাল সেখানকার শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামেই অনুশীলন করার কথা ছিল বাংলাদেশ দলের। তবে ইংল্যান্ড ম্যাচের আগের দিন যাওয়া-আসার ধকল কমাতে টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকে আইসিসিকে অনুরোধ করা হয়েছিল যেন দুবাইতেই অনুশীলনের সুযোগ দেওয়া হয়।

সেই অনুশীলন শুরুর ঘণ্টা দেড়েক আগে ভার্চুয়ালি সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বাংলাদেশের ফাস্ট বোলিং কোচ ওটিস গিবসন জানালেন ইংল্যান্ডকে নিয়ে তাঁদের বিশেষ ভাবনার কথা। ইংলিশদের সঙ্গে টক্কর দেওয়ার সব থেকে জরুরি শর্তও শোনা গেল তাঁর মুখে, ‘আমরা জানি ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন আপ কতটা শক্তিশালী। কাজেই ওদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে জিততে হলে নিজেদের সেরা খেলাটিই খেলতে হবে আমাদের। সেটি কিভাবে করা যায়, তা নিয়ে গত রাতেও (সোমবার) আমরা টিম মিটিংয়ে আলোচনা করেছি।’

যা নিয়ে আলোচনা করেছেন, তা মাঠে প্রয়োগের অনুশীলনও হয়েছে দুবাইতে। গিবসন জানাচ্ছিলেন সেটিই, ‘আগের রাতের মিটিংয়ে যেগুলো নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি, সেগুলো আজ অনুশীলনেও ঝালিয়ে নেওয়ার সুযোগ আছে আমাদের। আমরা কিছু ডেলিভারি নিয়ে কথা বলেছি। অনুশীলনেও আমাদের বোলাররা সেগুলো চেষ্টা করে দেখবে।’ ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং দেখে সেসব ডেলিভারি খুব কাজের হবে বলেও মনে হয়েছে টিম ম্যানেজমেন্টের, ‘বোলিংয়ে নিখুঁত হতে হবে আমাদের। আমরা জানি যে ওরা চড়াও হতে চাইবে। কিন্তু ওরা আপনাকে সুযোগও দেবে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে উড়িয়ে দেওয়ার পথেও ইংলিশদের সুযোগ দিতে দেখা নজর এড়ায়নি বাংলাদেশের। আজকের আবুধাবিতে এর পুনরাবৃত্তির আশায় থাকবে বাংলাদেশ। ইংলিশরা সুযোগ দেবে আর মাহমুদ উল্লাহরা তা দুই হাত ভরে নেবেন, বাস্তবের এই ছবিটাও দেখার আশা আছে গিবসনের, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাত্র ৫৫ রান তাড়া করতে গিয়েও ওরা ৪ উইকেট হারিয়েছে। এই বিষয়টি আমরা ইতিবাচকভাবেই কাজে লাগাতে পারি। তবে সে জন্য আমাদের নিজেদের খেলার তুঙ্গে অবশ্যই থাকতে হবে। কারণ আমরা জানি যে ওরা আমাদের উইকেট তুলে নেওয়ার সুযোগ দেবেই দেবে।’  

সুযোগ নেওয়ার আগে সুযোগ তৈরি করতে হবে। সে জন্যই নির্দিষ্ট কিছু ডেলিভারির অনুশীলনে ব্যস্ত ছিলেন বোলাররাও।

 



সাতদিনের সেরা