kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

প্রিভিউ

ক্রিকেটই হাসি ফেরাবে আফগানিস্তানে

২৫ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রিকেটই হাসি ফেরাবে আফগানিস্তানে

সুপার টুয়েলভের তৃতীয় দিনে একটাই ম্যাচ। আফগানিস্তান-স্কটল্যান্ডের সেই লড়াই ‘ব্লকবাস্টার’ না হলেও একটা চোখ থাকবে সবার। আর তালেবানের ক্ষমতা দখল, দলে দলে আফগানদের দেশছাড়া—রাজনৈতিক এই প্রেক্ষাপট সামনে আনলে অবশ্য খেলার মাঠে আফগানরা আজ কেমন করে, সেটা নিয়ে একটা কৌতূহল থাকছেই।

আফগান অধিনায়ক মোহাম্মদ নবীও পেছনের এই অরাজকতা ভুলতে ক্রিকেটকেই হাতিয়ার বানিয়েছেন, ‘সবাই জানে আমাদের এখানে কী হয়েছে, কী হচ্ছে। তবে শুধু ক্রিকেটের কথা যদি বলি, খেলাটা আফনাদের অনাবিল আনন্দের উৎস। আমরা যদি জিতি, সবার মুখে হাসি ফুটবে; আর এটাই আমরা চাই।’

ক্রিকেটে তরতরিয়ে ওপরে উঠতে থাকা আফগানরা এর মধ্যে যে কয়বারই স্কটিশদের মুখোমুখি হয়েছে টি-টোয়েন্টিতে, জিতেছে প্রতিবারই। ২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত সংখ্যাটা ছয়বার। সর্বশেষ এ বিশ্বকাপেই ২০১৬ সালে, ১৪ রানে জিতেছিল আফগানরা। সেটি অবশ্য ছিল প্রথম রাউন্ড, এবার যা কোয়ালিফায়ার। আফগানরা এবার সেরা আট দলের একটি হিসেবে মূল পর্বে খেলছে সরাসরিই। আর স্কটিশরা আবার কোয়ালিফায়ারে টানা তিন ম্যাচ জিতেই এবার মূল পর্বে। বাংলাদেশকেও হারিয়েছে তারা। রশিদ-নবীদের বিপক্ষে কোয়ের্টজার-বেরিংটনরা তাই চোখে চোখ রেখেই খেলবেন, সন্দেহ নেই। আফগানরাও চাইবে ছন্দটা ধরে রাখতে। ওয়ার্ম আপেই তো তারা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বধ করেছে। শারজায় স্পিন জাদু দেখাতে রশিদ-নবীদেরও নিশ্চয়ই তর সইছে না।

আফগানদের বোলিং আক্রমণে নেতৃত্ব দেবেন রশিদ খান। শেষ ১০ ম্যাচে তাঁরই সর্বোচ্চ ১৬ উইকেট। ব্যাটিংয়ে মোহাম্মদ শাহজাদ, হজরতউল্লাহ জাজাইরা ভালো একটা শুরু এনে দিতে পারলে ভালো স্কোর গড়ারও সামর্থ্য আছে তাদের। ক্যারিবীয় বোলারদের বিপক্ষেই তো ১৮৯ তুলেছিল তারা। ফর্মে আছে স্কটিশরাও। টপ অর্ডারে কাইল কোয়ের্টজার ও জর্জ মানসির এই ম্যাচেও ভালো করাটা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। রিচার্ড বেরিংটনও আছেন রানের মধ্যে, কোয়ালিফায়ারে দলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রান তাঁরই, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ম্যাথু ক্রসের। বোলিংয়েও জশ ডেভিরা নিজেদের সামর্থ্য দেখিয়েছেন। শারজার এ ম্যাচটা তাই উপভোগ্য হয়ে উঠতে পারে। স্পিনের ধারে কাটতে পারে ম্যাচ। তাই ব্যাটসম্যানদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জই অপেক্ষা করছে। ক্রিকইনফো



সাতদিনের সেরা