kalerkantho

রবিবার । ২ মাঘ ১৪২৮। ১৬ জানুয়ারি ২০২২। ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

তাঁদের চোখে বাংলাদেশের সম্ভাবনা

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনেই মাঠে নামছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড। প্রথম পর্বে খেলতে হবে স্বাগতিক ওমান আর পাপুয়া নিউ গিনির সঙ্গেও। র‌্যাংকিং আর ক্রিকেট ঐতিহ্যে পিছিয়ে থাকা এই দলগুলোর বাধা টপকে সুপার টুয়েলভের স্বপ্ন বাড়াবাড়ি কিছু নয়। বিশ্বকাপ শুরুর আগে বাংলাদেশের সাবেক তারকারা শুভ কামনা জানালেন মাহমুদ উল্লাহর দলকে।

১৭ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বোলিং নিয়ে দুশ্চিন্তা নেই

সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ ক্রিকেট

আমি বিশ্বাস করি, আমাদের এই দলের সামর্থ্য অনেক। বিশেষ করে বোলিং ডিপার্টমেন্ট বেশ ভালো। ভরসা রাখা যায় স্পিন আক্রমণের ওপর, ওখানকার উইকেটে তারা ভালো করবে। উইকেট শেষ দিকে মন্থর হয়ে আসে। আইপিএলে দারুণ ফর্মে থাকা মুস্তাফিজুর রহমানও যোগ দিচ্ছে এবং তাকে খেলা কঠিন হবে প্রতিপক্ষের জন্য। সাকিবও ভালো বোলিং করেছে আইপিএলে। বোলিং নিয়ে কোনো দুশ্চিন্তা নেই, বাকি কাজটা করতে হবে ব্যাটারদের। তারা সেরাটা দিতে পারলে এবং প্রত্যেক ইনিংসে দু-একজন বিধ্বংসী হয়ে উঠতে পারলেই হয়ে যাবে। বড় সুবিধা হলো, বাংলাদেশের ওপর কোনো চাপ নেই। তারা ইতিবাচক মানসিকতায় বিশ্বকাপটা উপভোগ করুক, তাতেই ভালো ফল মিলবে।

সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ ক্রিকেট

 

জুনিয়রদের সাহস অনেক বেশি

বাংলাদেশকে নিয়ে আমি সব সময় টি-টোয়েন্টিতে বাজি ধরতে চাই। তামিম থাকলে আরো ভালো হতো, এর পরও এই দল সিনিয়র ও জুনিয়র ক্রিকেটার মিলে অনেক ব্যালান্সড দল। এদের মধ্যে জুনিয়রদের সাহস অনেক বেশি, তারা যেকোনো ম্যাচ ঘুরিয়ে দিতে পারে। তাই বলছি, বাংলাদেশের সম্ভাবনা অনেক। প্রস্তুতি ম্যাচগুলো ভালো খেলেনি, হয়তো মানিয়ে নিতে একটু সময় নিচ্ছে। তবে স্কটল্যান্ডকে হারিয়েই শুরু করবে বলে আমি বিশ্বাস করি। বিশ্বকাপের আগে আমরা অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছি। ওরা হয়তো সেরা খেলোয়াড়দের পাঠায়নি। উইকেটও আমরা নিজেদের মতো করে বানিয়েছি। তাতে কী। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জয়ের অভ্যাস থাকাটা বিশেষ কিছু।

সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ ফুটবল

 

প্রথম রাউন্ডে সমস্যা হবে না

আন্তর্জাতিক অঙ্গন রাঙানোর খেলা হলো আমাদের ক্রিকেট। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও তাদের কাছ থেকে সেরকম গৌরবের মুহূর্ত প্রত্যাশা করি। এই দলে যেমন সাকিব-মাহমুদ উল্লাহদের মতো তারকা আছে, তেমনি অনেক তরুণ ক্রিকেটার আছে, যারা ঝলক দেখাতে পারে বিশ্বকাপে। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের শামীম-শরীফুল খুবই সাহসী ক্রিকেটার। একাদশে সুযোগ পেলে ভালো কিছু করতে মুখিয়ে থাকবে দুজনই। আমাদের দেশে একমাত্র ক্রিকেটের অবকাঠামোই শক্তিশালী, পাইপলাইনে অনেক নতুন ক্রিকেটার আছে। তাদের অনেকে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে সিরিজে ভালো খেলেছে। এই ছন্দটা পেয়ে গেলে  বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড পার হতে কোনো সমস্যা হবে না। ওমান, স্কটল্যান্ড, পাপুয়া নিউ গিনি ভয় পাওয়ার মতো দল নয়।

সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ ফুটবল 

 

সেমিফাইনালেও উঠতে পারে বাংলাদেশ

প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলঙ্কা ও আয়ারল্যান্ডের কাছে হারলেও আমি এই দল নিয়ে আশাবাদী। বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতি ম্যাচের ফল দেখে কাউকে মূল্যায়ন করাটা বোকামি। আমাদের সেরা পারফরমার সাকিব আর অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ কিন্তু ম্যাচ দুটোতে খেলেনি। অথচ এই দুজনের যে কেউ গড়ে দিতে পারে ম্যাচের ভাগ্য। সাকিব-মুশফিক আমার বিকেএসপির ছোট ভাই, তাদের সাফল্য সব সময় কামনা করি। তারা ছাড়াও দলে আরো কয়েকজন তারকা আছে, সঙ্গে আছে আফিফ-নাঈম-শামীমদের মতো প্রতিভাবান ক্রিকেটার। সুতরাং এই দলের সম্ভাবনা অনেক, স্কটল্যান্ডকে হারিয়েই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুরু করবে বলে বিশ্বাস করি। সেমিফাইনাল পর্যন্তও পৌঁছে যেতে পারে বাংলাদেশ।

সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ ফুটবল

 

প্রস্তুতি ম্যাচের হার বড় কিছু না

ক্রিকেট আমাদের ক্রীড়াঙ্গনে সব সময় বড় অনুপ্রেরণার জায়গা। তারা অনেকবার এই জাতিকে আন্দোলিত করেছে, নানা অর্জনে আনন্দে ভাসিয়েছে আমাদের। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। এবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে তাদের কাছ থেকে সেরকম কিছু প্রত্যাশা করছি। আমি মনে করি, ছোট সংস্করণের ক্রিকেটে বড় দল আর ছোট দলের পার্থক্য খুবই সামান্য। তা ছাড়া এই দল অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মতো দুই শক্ত প্রতিপক্ষকে হারিয়েছে এবং প্রস্তুতিও ভালো হয়েছে। প্রস্তুতি ম্যাচের হারকে খুব বড় করে দেখার কিছু নেই, বরং এই দলের তারুণ্যে অনেক সম্ভাবনা দেখছি। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে আজ ভালো ম্যাচ খেলেই তারা শুভ সূচনা করবে বিশ্বকাপে।

 সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ হকি



সাতদিনের সেরা