kalerkantho

সোমবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৯ নভেম্বর ২০২১। ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩

শেষ পর্যন্ত যেতে চান নবী

আফগানিস্তানের নতুন অধিনায়ক অবশ্য পারিপার্শ্বিক সমস্যায় বিচলিত নন, ‘আমাদের দলটা দারুণ। এই টুর্নামেন্টের জন্য গত দেড় মাস প্রস্তুতি নিয়েছি। ভিসার কারণে আমিরাতে আগেভাগে আসতে পারিনি। তবে কাতারে ক্যাম্প হয়েছে। কাতার এবং আমিরাতের আবহাওয়ায় পার্থক্য নেই বললেই চলে। আশা করি, দ্রুতই মানিয়ে নিতে পারব। টুর্নামেন্টের শেষ পর্যন্ত যেতে আমরা আমাদের সেরা ক্রিকেটটাই খেলব।’

১৬ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শেষ পর্যন্ত যেতে চান নবী

মোহাম্মদ নবী

‘রোডম্যাপ’ যদি অভাবিত মোড় না নেয়, তবে বাংলাদেশ দলের আসল বিশ্বকাপ মিশন শুরু হবে ২৫ অক্টোবর। শারজার সে ম্যাচে মাহমুদ উল্লাহদের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান। অবশ্য তার আগে প্রথম পর্বের বাধা উতরে সেরা ১২ দলে নাম লেখাতে হবে বাংলাদেশ দলকে, যে সুপার টুয়েলভে আগেই উঠে বসে আছে আফগানিস্তান।

ক্রিকেট দুনিয়ায় দেরিতে আবির্ভাব ঘটলেও আফগানদের অর্জনের ভাণ্ডারে এরই মধ্যে কিছু মণি-মাণিক্য জমা পড়েছে। বিশেষ করে টি-টোয়েন্টিতে তাদের একাধিক ক্রিকেটারের সব ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে বিশাল চাহিদা রয়েছে। রশিদ খান, মুজিব উর রহমান এবং মোহাম্মদ নবী ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের পরিচিত মুখ। কিন্তু দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ওলটপালট হওয়ায় আফগান ক্রিকেট দলেও অস্বস্তি। এর পরিপ্রেক্ষিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ান রশিদ খান। ১০ অক্টোবর সেই দায়িত্ব বর্তেছে অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবীর কাঁধে। দ্বিতীয় মেয়াদের এই দায়িত্বের ওজন একটু বেশি বলেই মনে হচ্ছে ৩৬ বছর বয়সী নবীর, ‘হ্যাঁ, এটা (অধিনায়কত্ব) কঠিন কাজ। তবে আমি আমার সেরা চেষ্টাটা করব দলকে সঠিকভাবে নেতৃত্ব দিতে এবং নিজের সেরা নৈপুণ্য মেলে ধরতে। সত্যি বলতে কি, এ রকম একটা ইভেন্টে (বিশ্বকাপ) অধিনায়ক হিসেবে খেলার ব্যাপারটা রোমাঞ্চকর।’

গ্রুপ টু-তে আফগানদের চারপাশে এশীয় পরাশক্তির ভিড়। প্রত্যাশিতভাবে বাংলাদেশ ছাড়াও এই গ্রুপে আছে ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ভারত, ২০০৯-এর চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান এবং বিশ্ব আসরে বরাবরই সব দলের জন্য হুমকি নিউজিল্যান্ড। এর মধ্যে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর চরম অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে আফগানিস্তানে। দেশটির ক্রিকেট বোর্ডেও ক্ষমতার পালাবদল হয়েছে। এই অস্থিরতার মধ্যে আফগান ক্রিকেটারদের সেরা নৈপুণ্য প্রদর্শন নিয়ে সংশয় আছে। কিন্তু নতুন অধিনায়ক অবশ্য পারিপার্শ্বিক সমস্যায় বিচলিত নন, ‘আমাদের দলটা দারুণ। এই টুর্নামেন্টের জন্য গত দেড় মাস প্রস্তুতি নিয়েছি। ভিসার কারণে আমিরাতে আগেভাগে আসতে পারিনি। তবে কাতারে ক্যাম্প হয়েছে। কাতার এবং আমিরাতের আবহাওয়ায় পার্থক্য নেই বললেই চলে। আশা করি, দ্রুতই মানিয়ে নিতে পারব। টুর্নামেন্টের শেষ পর্যন্ত যেতে আমরা আমাদের সেরা ক্রিকেটটাই খেলব।’

শেষ পর্যন্ত মানে বিশ্বকাপের ফাইনাল! অলরাউন্ডার নবীর এই দাবি অবশ্য খুব চটকদার নয়। অফস্পিন কিংবা ব্যাটিং সামর্থ্যে তিনি নিজেও একজন ম্যাচ উইনার। আসন্ন বিশ্বকাপে নিজের ভূমিকাও ঠিক করে ফেলেছেন আফগান অধিনায়ক, ‘ম্যাচ পরিস্থিতি বুঝে খেলব। যদি টপ অর্ডার ব্যর্থ হয় তবে আমার লক্ষ্য থাকবে শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করা। এমন মানসিক প্রস্তুতি নিয়েই আমি ম্যাচ খেলতে নামি। এটা আমাকে সাহায্যও করেছে।’

রশিদ খানের নেতৃত্বে আফগানিস্তানের বোলিং সামর্থ্য বিশ্বের অনেক দলেরই ঈর্ষার কারণ। ব্যাটিংটাই যা একটু ভাবায়। তবে সে ভাবনা দূর করতে দলটির তাঁবুতে সম্প্রতি যোগ দিয়েছেন অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার। এই অন্তর্ভুক্তিতে উচ্ছ্বসিত নবী, ‘আমিরাতের উইকেট এবং কন্ডিশন খুব ভালো চেনেন তিনি (ফ্লাওয়ার)। সিপিএলে ওনার অধীনে আমি খেলেছিও। অসাধারণ একজন কোচ।’ এএফপি



সাতদিনের সেরা