kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ব্রুজোনে ভাগ্যবদলের নতুন বাজি

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্রুজোনে ভাগ্যবদলের নতুন বাজি

ছবি : কালের কণ্ঠ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : লাল-সবুজ ফুটবলের ভাগ্যবদলের চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন অস্কার ব্রুজোন। সঙ্গে তাঁর ক্লাবের সফল কোচিং স্টাফ এবং আক্রমণাত্মক ফুটবলের ব্রত। দুইয়ের সম্মিলনে বাংলাদেশ ফুটবলকে সুফলা করে তুলতেই নতুন মিশন শুরু করেছেন এই স্প্যানিশ কোচ।

একটা শিরোপার জন্য বাফুফের কত আহাজারি। বছরের পর বছর জাতীয় দল নিয়ে চলছে তাদের চেষ্টা। দেশি-বিদেশি কোচ দিয়ে আগের সব চেষ্টাই বিফলে গেছে কাজী সালাউদ্দিনের, টানা চারবার সাফ চ্যাম্পিয়নিশপ থেকে ছিটকে গেছে সেমিফাইনালের আগে। পঞ্চমবার নাটকীয়ভাবে হাজির হয়েছেন অস্কার ব্রুজোন। আগের ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে-কে ‘ওএসডি’ করে ক্লাব পর্যায়ে সফল কোচের শরণাপন্ন হয়েছেন বাফুফে সভাপতি। বসুন্ধরা কিংসের হয়ে ছয় ট্রফিজয়ী অস্কার ব্রুজোনই ধরেছেন নতুন বাজি। তাতে এই স্প্যানিশ কোচের ক্যারিয়ারে প্রথম যোগ হলো জাতীয় দল। এটা অমৃতযোগ কি না, সেটা সময়ই বলে দেবে। তবে প্রথম দিনের ট্রেনিং শেষে অস্কার বলেছেন, ‘ক্লাব কোচিং আর জাতীয় দলের কোচিং আলাদা। তবে ১৩ মাস ধরে আমি এই কাজটা করে আসছি। ক্লাব কোচিং শেষ করে এখন আবার একই কাজে নেমেছি। মুক্ত বাতাস নিচ্ছি আর ছেলেদের সামনে এগিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু করেছি। এই বড় চ্যালেঞ্জ জেতার জন্য আমরা প্রাণপণ চেষ্টা করব।’

দিনে দিনে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের চ্যালেঞ্জ অনেক বড় হয়ে উঠছে। প্রতিবেশীদের উত্থান আর নিজেদের অবনমনে এখন আর বলে-কয়ে হারানোর প্রতিপক্ষ নেই। উল্টো একসময়ের পরাশক্তি বাংলাদেশের বিপক্ষে এখন জয়ের প্রহর গোনে অন্যরা। ওদের স্বপ্নভঙ্গের মিশন নিয়ে মালদ্বীপ যেতে চান অস্কার ব্রুজোন, তাই প্রথম দিন ট্রেনিংয়ে নেমে কোচ ফাইনালের লক্ষ্যের কথা জানিয়ে দিয়েছেন খেলোয়াড়দের। তাঁর কথা শুনে দলের মিডফিল্ডার জামাল ভুঁইয়াও আশাবাদী হয়েছেন, ‘কোচের পরিকল্পনা কী, কিভাবে খেলাতে চাইছেন এবং আমাদের কাছ থেকে কী চান—সেগুলো তিনি ব্যাখ্যা করেছেন প্রথম দিন। আমরা সবাই চেষ্টা করব সে অনুযায়ী মাঠে খেলতে। আমাদের গ্রুপটি অনেক দিন ধরে একসঙ্গে খেলছি, এখানে সবাই সবাইকে চেনে। সুতরাং নতুন কোচের অধীনে নতুন স্টাইলে ভালো করার সুযোগ আছে।’

ফাইনাল খেলতে হলে অন্তত ৭ পয়েন্ট লাগবে। জেমি ডে-র রক্ষণাত্মক ফুটবলে এটা সব সময় ছিল গরমিলের অঙ্ক। নতুন কোচ তৈরি হচ্ছেন সেই অঙ্ক মেলাতে। প্রথম দিন থেকে শুরু হয়েছে ৪-৩-৩ ফরমেশনে ম্যাচ খেলানোর প্রস্তুতি। এটা জামাল ভুঁইয়ারও খুব পছন্দের, ‘নতুন ফরমেশন ও নতুন স্টাইলে আমরা সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলব। এ জন্য প্রথম দিন থেকে কোচ কাজ শুরু করেছেন। জেমি কিরগিজস্তানে তিন জাতি সিরিজে তিন ডিফেন্ডার নিয়ে খেলানোর চেষ্টা করেছেন, তাতে ভালো ফল আসেনি। আমার মনে হয় ৪-৩-৩ ফরমেশনে খেললে ভালো হবে, এটা আমিও পছন্দ করি। দেশে বেশির ভাগ দল এই ফরমেশনে খেলে।’ নতুন ফরমেশনের মতো নতুন কোচকে স্বাগত জানাচ্ছেন খেলোয়াড়রা। সাফের মাত্র এক সপ্তাহ আগে নতুন কোচের অধীনে ট্রেনিং শুরু হলেও বাংলাদেশ অধিনায়ক কোনো সমস্যা দেখছেন না, ‘অস্কারের অধীনে কোনো সমস্যা হচ্ছে না আমাদের। কারণ তিন বছর ধরে এ দেশে কাজ করায় এখানকার ফুটবল এবং ফুটবলারদের পারফরম্যান্স সম্পর্কে তাঁর ধারণা আছে।’ কোচ যেমন চেনেন, তেমনি খেলোয়াড়রা জানেন তাঁকে। সব চেনা-জানাদের হাতেই বাংলাদেশ ফুটবলের নিয়তি।



সাতদিনের সেরা