kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পিএসজির জয় ছাপিয়ে মেসি বিতর্ক

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পিএসজির জয় ছাপিয়ে মেসি বিতর্ক

পার্ক দ্য প্রিন্সেসে অভিষেক হলো লিওনেল মেসির। দর্শকরা করতালি দিলেও অভিবাদন জানাননি দাঁড়িয়ে। অলিম্পিক লিঁওর বিপক্ষে মেসি অবশ্য দারুণ কিছু সুযোগ তৈরি করেছেন, লক্ষ্যভেদ করতে পারতেন নিজেও। শেষ পর্যন্ত মেসির গোল বা অ্যাসিস্ট ছাড়াই ২-১ ব্যবধানের জয়ে মাঠ ছাড়ে পিএসজি। তবে ৭৬ মিনিটে মেসির বদলি হিসেবে আশরাফ হাকিমিকে নামানো নিয়ে বইছে সমালোচনার ঝড়। বেঞ্চে যাওয়ার সময় স্বদেশি কোচ মরিসিও পচেত্তিনোকে কী যেন বলছিলেন মেসি। পচেত্তিনোর সঙ্গে মেলাননি হাত। বেঞ্চে বসা মেসির অভিব্যক্তিতে ঠিকরে বেরোচ্ছিল অসন্তুষ্টি।

এদিকে লা লিগায় ভিনিসিয়ুস জাদুতে ভ্যালেন্সিয়ার মাঠে ২-১ গোলের রোমাঞ্চকর জয় পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। শুরুতে পিছিয়ে পড়লেও ভিনিসিয়ুস সমতা ফেরান ৮৬ মিনিটে। দুই মিনিট পর তাঁর ক্রসেই গোল করে রিয়ালকে জেতান করিম বেনজিমা। তিন মৌসুম পর প্রথমবার লিগে ভ্যালেন্সিয়ার মাঠ থেকে জয় নিয়ে ফিরল রিয়াল। আর একবিংশ শতাব্দীতে মেসির পর প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে শুরুর পাঁচ ম্যাচে ১১ গোলে অবদান রাখলেন বেনজিমা। তাঁর গোল ৬টি, অ্যাসিস্ট ৫টি।

সিরি ‘এ’তে আবার জিততেই ভুলে গেছে জুভেন্টাস। নগর প্রতিদ্বন্দ্বী এসি মিলানের বিপক্ষে পরশু ১-১ গোলে ড্র করেছে তারা। চতুর্থ মিনিটে আলভারো মোরাতো জুভেন্টাসকে এগিয়ে দিলেও ৭৬ মিনিটে সমতা ফেরান আন্তে রেবিচ। ১৯৬১-৬২ মৌসুমের পর এবারই প্রথম তারা জয়হীন টানা চার ম্যাচে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে টটেনহামের মাঠে ৩-০ গোলের জয়ে শীর্ষে উঠে এসেছে চেলসি। আর বুন্দেসলিগায় আর্লিং হালান্ডের জোড়া গোলে ইউনিয়ন বার্লিনকে ৪-২ ব্যবধানে হারিয়েছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড।

লিঁওর বিপক্ষে ৪-২-৩-১ ছকে শুরু করেছিল পিএসজি। মেসি-নেইমার-দি মারিয়ার সামনে ছিলেন এমবাপ্পে। পেছনে দুই মিডফিল্ডার আন্দের এরেরা ও ইদ্রিসা গেয়ে। এই দুজন সেভাবে বলের জোগান দিতে পারেননি ‘এমএনএম’ ত্রিফলাকে। ৩২ মিনিটে নেইমারের ব্যাকহিলে বল পেয়ে নেওয়া মেসির শট শেষবেলায় পা দিয়ে কোনো রকমে বাইরে পাঠান গোলরক্ষক অ্যান্থনি লোপেস। ৩৭ মিনিটে ৩০ গজ দূর থেকে নেওয়া মেসির ফ্রি কিক ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে। বিরতির আগে মেসির পাসে গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি কিলিয়ান এমবাপ্পে। উল্টো ৫৪ মিনিটে পাকুয়েতার গোলে এগিয়ে যায় লিঁও।

পিএসজি সমতা ফেরায় ৬৬ মিনিটে নেইমারের পেনাল্টিতে। মেসি মাঠে থাকতেও স্পট কিকটি নেন তিনিই। মাঠে কিছুক্ষণ বাঁ হাঁটুতে হাত বোলানো মেসিকে ৭৬ মিনিটে তুলে নেন পচেত্তিনো। ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে এমবাপ্পের ক্রসে দুর্দান্ত হেডে লিগে পিএসজিকে টানা ষষ্ঠ জয় এনে দেন মাউরো ইকার্দি। ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে বেশির ভাগটা জুড়ে থাকলেন মেসি। এ নিয়ে পচেত্তিনোর বিরক্তি, ‘৩৫ জনের দারুণ একটা স্কোয়াড আমার। এখান থেকে এমন কিছু সিদ্ধান্ত নিতেই হয়। বদলের পর মেসিকে বলেছিলাম, ঠিক আছে কি না। ও জানায়, ঠিক আছে। এসব নিয়ে মাতামাতি বন্ধ করুন।’ এএফপি



সাতদিনের সেরা