kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পাশে আছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

মোশাররফ হোসেন আমাদের গৌরব। তাঁর খবরটিও কি ফেডারেশন রাখতে পারে না! কদিন আগেই বক্সিংয়ের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি আমার সঙ্গে দেখা করে গেলেন। -জাহিদ আহসান রাসেল, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাশে আছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

ক্রীড়া প্রতিবেদক : তিন বছর ধরে অসুস্থ বক্সার মোশাররফ হোসেন। এশিয়ান গেমসে ব্যক্তিগত ইভেন্টে একমাত্র পদকজয়ীর শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে, চিকিৎসা করানোর সাধ্যও নেই তাঁর। কিংবদন্তির এই দুরবস্থার খবর কালের কণ্ঠে পড়ে উদ্বিগ্ন হয়েছেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী। খুব আক্ষেপ করে বলেছেন, ‘মোশাররফ হোসেন আমাদের গৌরব। তাঁর খবরটিও কি ফেডারেশন রাখতে পারে না! কদিন আগেই বক্সিংয়ের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি আমার সঙ্গে দেখা করে গেলেন।’

অথচ ফেডারেশনের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম তুহিনকে নিজের অসুস্থতা ও অর্থকষ্টে চিকিৎসা বন্ধ হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন মোশাররফ হোসেন। ২০১৮ সালে যুব গেমস বক্সিংয়ের ম্যাচ পরিচালনা করতে ঢাকায় এসেই তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। সেনাবাহিনীতে চাকরি করতেন বলেই তখন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরতে পেরেছিলেন। তখনকার ফেডারেশন সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস একবারের জন্যও দেখা দেননি। রাজশাহী ফেরার জন্য একটা অ্যাম্বুল্যান্সের সাহায্য চেয়েও পাননি। ওই হৃদরোগের পর থেকে তার বাঁ পাশটা অবশ হয়ে যায়। কিছুদিন পর অর্থাভাবে বন্ধ হয়ে যায় ফিজিওথেরাপিও।

এই খবর গতকাল পত্রিকায় পড়ে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলও খুব আফসোস করে বলেন, ‘খেলোয়াড়দের জন্যই তো আমি এখানে আছি। সব সময় আমি খেলোয়াড়দের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করি। এত বড় ক্রীড়াবিদ অসুস্থতায় ভুগছেন, এটা শুনলে আমি আগেই ব্যবস্থা নিতে পারতাম। যা হোক, দেরিতে জানলেও মোশাররফ ভাইকে আশ্বস্ত করতে চাই, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী উনার পাশে আছে।’ এরপর একটু থেমে যোগ করেন, ‘শুধু আমি কেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীরও আলাদা দরদ খেলোয়াড়দের জন্য।’ প্রধানমন্ত্রীর দরদের খবর প্রতিনিয়ত পত্র-পত্রিকায় দেখেন মোশাররফ হোসেন। প্রধানমন্ত্রী সব সময় ক্রীড়াবিদদের পাশে দাঁড়ান। সেই আশায় বুক বেঁধে সিউল এশিয়াডের এই ব্রোঞ্জজয়ী বক্সার ফেডারেশন সম্পাদক তুহিনকে অনুরোধ করেছিলেন তাঁর অসুস্থতার খবরটা প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত পৌঁছে দিতে। দেরিতে হলেও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জেনেছেন, এখন প্রধানমন্ত্রীর কানেও পৌঁছে যাবে কিংবদন্তির অসহায়ত্বের খবর।

এদিকে বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশনও (বিএসপিএ) এই তারকা বক্সারের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাঁর চিকিৎসার জন্য অর্থ সহায়তা দেবে সংগঠনটি।



সাতদিনের সেরা