kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৮। ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৩ সফর ১৪৪৩

অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর

নিশ্চিত তবু যেন অনিশ্চিত

২৪ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গত পরশু বার্বাডোজে স্থগিত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ-অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ওয়ানডে। ওই ম্যাচের আগে ক্যারিবীয় দলের একজন সাপোর্ট স্টাফ কভিড পজিটিভ হতেই সংশয় জাগে অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর নিয়েও।

ক্রীড়া প্রতিবেদক : অস্ট্রেলিয়া দল বাংলাদেশে পা রাখার সাত দিন আগে (২২ জুলাই) সফরের সূচি ঘোষিত হওয়ার পর তাদের সফর নিয়ে আর কোনো অনিশ্চয়তাই থাকার কথা নয়। তবু নিশ্চিত হয়েও যেন অনিশ্চয়তার সুর কোথাও বাজছে। সেটি বাজছে দূর ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে। যেখানে গত পরশু বার্বাডোজে স্থগিত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ-অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ওয়ানডে। ওই ম্যাচের আগে ক্যারিবীয় দলের একজন সাপোর্ট স্টাফ কভিড পজিটিভ হতেই সংশয় জাগে অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর নিয়েও। এর পরই অস্ট্রেলিয়া দলের সবাইকে আরেক দফা কভিড পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। এই পরীক্ষায় একজনও যদি পজিটিভ হন, সে ক্ষেত্রে বার্বাডোজে পুরো দলেরই ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে চলে যাওয়ার জোর সম্ভাবনার খবর দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যম। সেরকম কিছু হলে ফেঁসে যাবে ২৯ জুলাই ঢাকায় আসার অপেক্ষায় থাকা অস্ট্রেলিয়া দলের বাংলাদেশ সফরও।

যদিও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) এখনই আগাম কোনো সম্ভাবনা মাথায় নিতে চাইছে না। সংস্থার প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী বরং ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে চলমান যোগাযোগের ভিত্তিতেই আস্থা রাখতে চান, ‘আপনারা বলছেন অস্ট্রেলিয়ান সংবাদমাধ্যমের কথা। তবে আমাদের অস্ট্রেলিয়ার বোর্ডের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে। এই সফর নিয়ে আমরা নেতিবাচক কোনো কিছুই এখন পর্যন্ত পাইনি। ওয়েস্ট ইন্ডিজে যা হচ্ছে, এর খবরাখবর আমরাও রাখছি। যত দূর জানি, স্বাগতিক দলের একজন সাপোর্ট স্টাফই শুধু কভিড পজিটিভ হয়েছেন। আশা করছি, অস্ট্রেলিয়া দল পূর্বনির্ধারিত (২৯ জুলাই) সময়েই ঢাকায় আসবে।’

এমনিতে পুরো অস্ট্রেলিয়া দলেরই ভ্যাকসিন নেওয়া আছে। তবু বাংলাদেশে আসার ক্ষেত্রে তাদের দেওয়া নানা কঠিন শর্তের একটি এটিও যে জিম্বাবুয়ে সফরে থাকা দলের বাইরের কোনো সদস্যকে অস্ট্রেলিয়া দল ঢাকায় পা রাখার ১০ দিন আগেই জৈব সুরক্ষা বলয়ে ঢুকে পড়তে হবে। অসুস্থ মা-বাবার পাশে থাকতে জিম্বাবুয়ে থেকে দেশে ফেরা মুশফিকুর রহিমের তাতে ঢুকতে দু-এক দিন দেরি করার ব্যাপারটিও তারা অনুমোদন করেনি। তাই অস্ট্রেলিয়া সফরে এলেও সাত দিনের মধ্যে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে তাই খেলা হচ্ছে না স্বাগতিক দলের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যানের। ম্যাচ তিনটি হবে ৩, ৪, ৬, ৭ ও ৯ আগস্ট।



সাতদিনের সেরা