kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

আন্তর্জাতিক ম্যাচের সর্বোচ্চ

দাইয়ির অনুমানই সত্যি করলেন রোনালদো

২৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দাইয়ির অনুমানই সত্যি করলেন রোনালদো

তিনি যা ভেবেছিলেন, হয়েছেও তাই। আলি দাইয়ির সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক গোলের রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। এরপরও সাবেক ইরানি তারকা এতটুকু অখুশি নন! বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম সেরা তারকাকে অভিনন্দন জানিয়ে এশিয়ার অন্যতম সেরা ফরোয়ার্ড লিখেছেন, ‘ক্রিশ্চিয়ানোকে অভিনন্দন। ফুটবলে আন্তর্জাতিক গোলের রেকর্ড থেকে মাত্র এক গোল দূরে দাঁড়িয়ে তিনি।’

হয়তো-বা ইউরোর চলমান আসরেই পর্তুগিজ তারকা গড়বেন গোলের নতুন রেকর্ড। তবে আলি দাইয়ির সর্বোচ্চ ১০৯ গোলের রেকর্ডটি অনেক দিনের। ১৯৯৩ সালে জাতীয় দলে অভিষেক হয়েছিল তার। এরপর ১৪ বছরে ১৪৯ ম্যাচ খেলে এই রেকর্ড গড়েছিলেন সাবেক ইরানি ফরোয়ার্ড। অনেকের ধারণা ছিল, এই রেকর্ড শেষপর্যন্ত অধরাই থেকে যাবে। তবে আলি দাইয়ির ভাবনায় ছিল রোনালদোর কথা। তিনি বিভিন্ন সময় সেটা বলেছিলেনও এবং পর্তুগিজ তারকা ভাঙ্গলে তিনি খুশি হবেন বলেও জানিয়েছিলেন। শেষপর্যন্ত তাই হয়েছে, পরশু রাতে পেনাল্টি স্পট থেকে ফ্রান্সের জালে দু-দুবার বল পাঠিয়ে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড ছুঁয়ে ফেলেন ৫২ বছর বয়সী ইরানি স্ট্রাইকারের রেকর্ড। তাতে এশিয়ান তারকার এতটুকু মন খারাপ হয়নি, বরং নিজে সম্মানিত বোধ করছেন, ‘এরকম একটা অর্জন রোনালদোর সঙ্গে ভাগাভাগি করতে পেরে আমি সম্মানিত বোধ করছি। ফুটবলের চ্যাম্পিয়ন মানুষটির মানবতাদী চরিত্র বিশ্বের মানুষকে অনুপ্রাণিত করে।’  

৩৬ বছর বয়সী এই ফুটবল চ্যাম্পিয়নের চরিত্রের আরেকটি সৌন্দর্য্য হলো বয়সের সঙ্গে লড়াই করে নিজেকে মাঠে ধরে রাখা এবং আগের মতো গোল উদযাপন করা। গোলে যেন কখনো অতৃপ্তি  হয় না ! ১০৯ গোলের রেকর্ডে ভাগ বসাতে খেলেছেন তিনি ১৭৮ ম্যাচ। জাতীয় দলের জার্সিতে প্রথম গোলের আনন্দ শুরু সেই ২০০৪ ইউরোতে, তবে গ্রিসের কাছে ২-১ গোলে পর্তুগাল হেরেছিল ম্যাচটা। মোট ৪৩ টা দলের বিপক্ষে গোলগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ ৭ টি করে গোল আছে লিথুয়ানিয়া ও সুইডেনের বিপক্ষে।

তার কাছে বয়স যেন সে ফ কিছু সংখ্যা। এর তোয়াক্কা না করে রোনালদো বরাবরের মতো সচল রেখেছেন গোল মেশিন। প্রথম ফুটবলার হিসাবে ইউরোর টানা পাঁচ আসর খেলছেন তিনি এবং এবার তিনটি গ্রুপ ম্যাচে করেছেন ৫ গোল। তাতেই পেছনে ফেলে দিয়েছেন ফুটবলের আরেক কিংবদন্তি মিশেল প্লাতিনিকে। ১৪ গোল নিয়ে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে তিনিই এখন সর্বোচ্চ গোলের মালিক। চার গোলে পিছিয়ে প্লাতিনি।