kalerkantho

সোমবার । ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২ আগস্ট ২০২১। ২২ জিলহজ ১৪৪২

কোপায় হলুদ উচ্ছ্বাস

সেই নেইমার সেই ব্রাজিল। কোপার উদ্বোধনী ম্যাচের মতো তাঁর দ্যুতিতে গতকাল পেরুকেও ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করল ব্রাজিল। একটি করে গোল অ্যালেক্স সান্দ্রো, নেইমার, এভারতন রিবেইরো ও রিচার্লিসনের। ম্যাচসেরা আবেগী নেইমার পুরস্কার হাতে ধরে রাখতে পারেননি নিজেকে। কাঁদছিলেন অঝোরে।

১৯ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কোপায় হলুদ উচ্ছ্বাস

ব্রাজিলিয়ান আরেক কিংবদন্তি রোনালদোর ৬৭ গোল ছাড়িয়ে নেইমারের গোল এখন ৬৮টি। ৭৭ গোল নিয়ে সামনে শুধু পেলে। নানা বিতর্ক পেছনে ফেলে এমন কীর্তিতে চোখের পানি মুছতে মুছতে নেইমার জানালেন, ‘এটা আমার জন্য আবেগের, কারণ গত দুই বছর অনেক কঠিন সময় কাটিয়েছি। ব্রাজিলিয়ান দলের ইতিহাসের অংশ হতে পারাটা আমার জন্য ভীষণ সম্মানের। সত্যিটা হচ্ছে দেশের হয়ে খেলতে পারাটাই আমার স্বপ্ন। কখনো ভাবিনি গোলের রেকর্ডের এই তালিকায় এত ওপরে উঠে আসতে পারব।’

ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়দের গোলের তালিকা নিয়ে বিতর্ক চিরন্তন। এত দিন সবারই জানা ছিল রোনালদোর গোল ৬২টি। কিন্তু ব্রাজিলিয়ান ফুটবল কেনফেডারেশন হঠাৎ করেই জানায় রোনালদোর গোল ৬৭টি! সেই রেকর্ডও গতকাল পেছনে ফেললেন নেইমার। ফিফাও টুইট করে জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক গোলের সংখ্যায় নেইমার এখন ২০তম। তবে গোলের সংখ্যাটা উল্লেখ করেনি ফিফা। তিনটি বিশ্বকাপ জেতা একমাত্র কিংবদন্তি পেলের বিশ্বাস নেইমার ভাঙবেন ব্রাজিলের জার্সিতে তাঁর ৭৭ গোলের রেকর্ডও। নেইমারকে প্রশংসায় ভাসালেন তিনি, ‘যতবারই নেইমারকে দেখি, সে হাসছে। এই হাসি সংক্রামক। সে আমার গোলের রেকর্ড ছোঁয়ার পথে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল। ওর এই রেকর্ডের অপেক্ষায় আছি, ঠিক ততটা আনন্দ নিয়ে যতটা হয়েছিল তাকে প্রথম দিন খেলতে দেখার পর।’

ভেনিজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারানো একাদশের ছয়জনকে বেঞ্চে বসিয়ে শুরু করেছিল ব্রাজিল। ১২ মিনিটে অ্যালেক্স সান্দ্রোর গোলে এগিয়ে যায় গত কোপা ফাইনালে পেরুকেই হারানো সেলেসাওরা। এভারতন রিবেইরোর ক্রস ডি বক্সে গ্যাব্রিয়েল জেসুস পেয়ে বাড়িয়েছিলেন সান্দ্রোকে। ৬২ মিনিটে নেইমার ডি বক্সে ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। কিন্তু ভিএআরে বাতিল হয় সেটা। ৬৮ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে নেইমারের দুর্দান্ত শটেই ব্যবধান হয় ২-০। ৮৯ মিনিটে নেইমারের শুরু করা দারুণ এক মুভে রিচার্লিসনের পাস ধরে স্কোর ৩-০ করেন এভারতন রিবেইরো। ইনজুরি টাইমে ফিরমিনোর শট গোলরক্ষক ঠেকালেও ফিরতি বল জালে জড়িয়ে দেন রিচার্লিসন।

অপর ম্যাচে গোলশূন্য ড্র করেছে কলম্বিয়া ও ভেনিজুয়েলা। ৬৫ শতাংশ বলের দখল রেখে খেলা কলম্বিয়া পোস্টে শট নেয় ২৩টি, যার লক্ষ্য ছিল আটটি। ভেনিজুয়েলা লক্ষ্যে রাখতে পারেনি একট শটও। এমন দাপটে খেলে ড্র করাটা হতাশার কলম্বিয়ার। সেটা আরো বাড়ে ইনজুরি টাইমে বদলি খেলোয়াড় লুই দিয়াজ লাল কার্ড দেখলে। এএফপি



সাতদিনের সেরা