kalerkantho

সোমবার । ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮। ২ আগস্ট ২০২১। ২২ জিলহজ ১৪৪২

ফেভারিটের মতোই শুরু ফ্রান্সের

১৭ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফেভারিটের মতোই শুরু ফ্রান্সের

এক গোলে জয়, তাও আবার সেটি আত্মঘাতী। এটুকুতে কাল জার্মানির বিপক্ষে ফ্রান্সের দাপট বোঝানো যাবে না কিছুতেই। আত্মঘাতী গোলে জেতা ম্যাচের পুরোটা সময়ে তারা দেখিয়েছে কেন টুর্নামেন্টের হট ফেভারিট বলা হচ্ছে ফরাসিদের।

কিলিয়ান এমবাপ্পেকে দুর্দান্ত ফর্মে পাওয়া গেছে, যেমনটা প্রত্যাশা ছিল সবার। অফসাইডের কারণে তাঁর যে গোলটি বাতিল হয়েছে সেটিতেই নিখুঁত আর পরিণত এক এমবাপ্পেকে দেখা গেছে। ছয় বছর পর ফেরা করিম বেনজিমাও বল জালে পাঠিয়েছেন। ভিএআর রিভিউতে বাতিল হয়েছে সেই গোলটাও। তার আগে আদ্রিয়ান রাবিওর শট প্রতিহত হয়েছে পোস্টে। যাঁর কথা এখনো বলাই হয়নি সেই পল পগবা ছিলেন আসলে ম্যাচের নায়ক। অ্যাটাকিং থার্ডে পগবা কতটা দুর্ধর্ষ হতে পারেন সেটিই দেখা গেছে এদিন।

২০ মিনিটে ম্যাচের একমাত্র গোলটিতেও অবদান আছে পগবার। ডান প্রান্ত থেকে তাঁর বুদ্ধিদীপ্ত্ত ক্রস খুঁজে পায় বাঁ প্রান্তের লুকাস হার্নান্দেসকে। ফ্রেঞ্চ লেফট ব্যাক সেই বলেই পাল্টা ক্রস ফেলেছেন ছোট ‘ডি’ এর ভেতর। এমবাপ্পে তাতে পা ছোঁয়াতে তৈরি। সেটি ক্লিয়ার করতে গিয়েই ম্যাটস হামেলসের হাঁটুতে লেগে বল জড়ায় জালে।

এরপর ব্যবধান বাড়াতে পারেনি ফ্রান্স। উল্টো দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সার্জ জিনাব্রি ম্যাচে সমতা ফেরানোর সুযোগ তৈরি করেছিলেন। কিন্তু রবিন গোসেনসের ক্রসে বক্সের ভেতর থেকে উড়িয়ে মেরে সেই সম্ভাবনাটা নষ্ট করেছেন তিনি। ইওয়াখিম ল্যোভ অবশ্য বলেছেন, ‘খেলোয়াড়রা সর্বোচ্চটাই দিয়েছে মাঠে, এর বেশি আমি চাইতে পারতাম না।’ ফরাসি কোচ দিদিয়ের দেশম খুশি, ‘যেমনটা চেয়েছিলাম তেমন পারফরম্যান্সই পেয়েছি।’ পগবা নিজের দারুণ পারফরম্যান্সে কৃতিত্ব দিয়েছেন বাকিদের, ‘সতীর্থদের সমর্থন ছাড়া এটা সম্ভব ছিল না। আমার পাশে কারা খেলে দেখুন, এনগোলো কান্তে, রাবিও, গ্রিয়েজমান—প্রত্যেকেই অসাধারণ। আর আজ আমাদের ব্যাকলাইনও কোনো ভুল করেনি।’

এই গ্রুপেরই আরেক ফেভারিট পর্তুগালের দীর্ঘ অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে হাঙ্গেরির বিপক্ষে জয়ের জন্য। স্কোরলাইন ৩-০ হলেও পর্তুগাল লিড নেয় ৮৪ মিনিটে! এরপর পেনাল্টিতে ব্যবধান বাড়ানোর পর অতিরিক্ত সময়ে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো করেছেন তাঁর দ্বিতীয় গোলটি। ১১ গোলে ইউরোর সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসেবে মিশেল প্লাতিনিকে ছাড়ানোর পর পর্তুগিজ তারকা কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সতীর্থদের প্রতি, ‘দলের সবাই সাহায্য করেছে বলেই গোল দুটি করতে পেরেছি।’

এদিকে গতকাল রাশিয়াকে হারালে নকআউট নিশ্চিত হয়ে যেত ফিনল্যান্ডের। এমন ম্যাচে ১-০ গোলে হেরে গেছে তারা। রাশিয়ার হয়ে বিরতির আগে ইনজুরি টাইমে একমাত্র গোলটি অ্যালেকসি মিরানচুকের। এ ছাড়া গতকাল তুরস্ককে ২-০ গোলে হারিয়েছে ওয়েলস। গোলডটকম



সাতদিনের সেরা