kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১০ আষাঢ় ১৪২৮। ২৪ জুন ২০২১। ১২ জিলকদ ১৪৪২

লেগস্পিনের পুরনো ফাঁদে বাংলাদেশ

১৮ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : আমিনুল ইসলাম বিপ্লব আর রিশাদ হোসেন বাংলাদেশ দলে নেই। তবু মিরপুরে জাতীয় দলের অনুশীলনে তাঁদের খুব ব্যস্ত সময় কাটছে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ওয়ানডের সিরিজের আগে এই দুই লেগস্পিনারের প্রবল চাহিদা বাংলাদেশ দলের অনুশীলনে। সফরকারী দলে যে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা ও লাকশান সান্দাকান নামের দুজন আছেন!

সাদা বলে শ্রীলঙ্কার এই দুই লেগস্পিনারেরই পর্যাপ্ত সুনাম আছে। আর ঠিক ততটাই লেগস্পিনার সামলানোয় দুর্নাম বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের। তাই ঘরের মাঠে কোনো সিরিজ এলেই অনুশীলনে ডাক পড়ে লেগস্পিনারদের। একসময় দেখা যেত জুবায়ের হোসেন লিখনকে। এখন তেমনি দেখা যাচ্ছে আমিনুল ও রিশাদকে। গতকাল নির্বাচক কমিটির সদস্য হাবিবুল বাশার জানিয়েছেন যে, স্কোয়াডে না থাকলেও আমিনুল ও রিশাদকে তামিম ইকবালদের প্র্যাকটিসে নিয়মিত দেখা যাবে। সঙ্গে তিনি ক্ষোভও জানিয়েছেন ওপরে আক্ষেপের প্রলেপ দিয়ে।

‘বিশ্বের সব দলেই লেগস্পিনার দেখবেন আপনি। সাদা বলের ক্রিকেটে আরো বেশি। এই ফরম্যাটে ফিঙ্গার স্পিনারের (অর্থোডক্স) চেয়ে রিস্ট স্পিনারের (লেগি) কার্যকারিতা বেশি। শ্রীলঙ্কা দলেই সেরকম দুজন আছে। হাসারাঙ্গা টেস্টে অত ভালো করেনি, তবে সাদা বলে ও দুর্দান্ত বোলার’, এটুকু বলার পর ক্ষোভ মেশানো আক্ষেপ হাবিবুলের কণ্ঠে, ‘আপনি যে আমিনুল আর রিশাদের কথা বললেন...ওদের ক্যারিয়ারই শেষ হয়ে যাবে নেটে বোলিং করতে করতে। এখন লিখন কোথায়? কোথাও নেই!’

আপনি যে আমিনুল আর রিশাদের কথা বললেন...ওদের ক্যারিয়ারই শেষ হয়ে যাবে নেটে বোলিং করতে করতে। এখন লিখন কোথায়? কোথাও নেই!

হাবিবুল বাশার, নির্বাচক

এই হারিয়ে যাওয়ার পেছনে সব দেশেই নির্বাচকদের ভূমিকা থাকে। কিন্তু হাবিবুল জানালেন তাঁদের সব চেষ্টাই বিফলে যাওয়ার কথা, ‘নিয়মিত ম্যাচ না খেলালে আপনি কোনো দিনও লেগস্পিনার তৈরি করতে পারবেন না। আমরা (নির্বাচক কমিটি) চেষ্টা করি। জাতীয় লিগ কিংবা বিসিএলে দল গড়ার সময় লেগস্পিনার রাখি। বোর্ড থেকেও লেগস্পিনারদের খেলানোর কথা বলা হয়। কিন্তু পরে দেখি ওদের খেলানো হচ্ছে না। কেন খেলানো হয় না, সেই প্রশ্নের উত্তর আমার কাছে নেই। আমি শুধু একটা কথাই জানি, সেটা হলো, লেগস্পিনাররা ম্যাচ উইনার। একটু বেশি রান হয়তো দেয় তবে উইকেট নেয়। আর লেগস্পিনার তৈরি হবে তখনই, যখন আপনি তাকে খেলার পর্যাপ্ত সুযোগ দেবেন। আপনি আমাকে বলেন তো, আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেটে কয়জন লেগস্পিনার খেলার সুযোগ পায়?’

হাবিবুল বাশার মনে করেন, ‘আপনি যদি বিশেষ ধরনের বোলিং না খেলেন তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সমস্যা তো হবেই। এই সমস্যাটা নিয়ে অনেক দিন ধরেই আলোচনা হচ্ছে, কিন্তু সমাধান হচ্ছে না। আমি আসলে বুঝতে পারি না একটা দল কেন লেগস্পিনার খেলাতে চায় না?’

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ বাদ দিন। বিসিবির অধীন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের দলগুলোও বিসিবির নির্দেশনা মানে না। তাই জুবায়ের হোসেন লিখনরা হারিয়ে যান। আমিনুল, রিশাদদের জীবন কাটে নেটে বোলিং করে। আর বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা দিশাহারা হয়ে পড়ে লেগস্পিনারের সামনে।



সাতদিনের সেরা