kalerkantho

সোমবার । ৭ আষাঢ় ১৪২৮। ২১ জুন ২০২১। ৯ জিলকদ ১৪৪২

প্রথম ১০ ওভারই লিটনের সাফল্যের শর্ত

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

১১ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রথম ১০ ওভারই লিটনের সাফল্যের শর্ত

তাঁর বড় ইনিংস খেলার সামর্থ্য নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। কিন্তু ধারাবাহিকভাবে ব্যাটে ভালো ইনিংসের দেখা মেলে না বলে বিস্তর বদনামও আছে লিটন কুমার দাসের। তাই মাঝেমধ্যে ভালো খেলে প্রশংসিত এই ব্যাটসম্যান সমালোচনার দুয়ারও নিয়মিতই খোলা রাখেন। অথচ তাঁর কাছে নিয়ম করে বড় ইনিংসের প্রত্যাশা মাথাকুটে মরছে গত বেশ কিছুদিন ধরেই। এটিই রানে ফিরতে তাঁকে আরো বেশি মরিয়া করে তুলে থাকবে হয়তো বা। সে জন্য পুরনো নিজেতে ফিরে গিয়ে আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনার চেষ্টা লিটনের। বিসিবির পাঠানো ভিডিও বার্তায় তাঁকে বলতে শোনা গেল, ‘আমি যে বড় ইনিংস খেলতে পারি, সেটি জিম্বাবুয়ের সঙ্গেই অনুভব করেছি।’

২০২০ সালের মার্চে সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সেই ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেই শুধু রান করেননি, আউট হয়েছিলেন ৯ রান করে। তবে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে চোট পেয়ে অবসর নেওয়ার আগে খেলেছিলেন ১২৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস। আর শেষ ম্যাচে তো কোনো বাংলাদেশির ওয়ানডে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ডই গড়ে ফেলেছিলেন। ১৪৩ বলে ১৭৬ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলা লিটন অবশ্য এর পরের ছয় ওয়ানডেতে রীতিমতো নিষ্প্রভ। দেশের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ এবং নিউজিল্যান্ড সফর মিলিয়ে তাঁর খেলা সর্বোচ্চ ইনিংসটি মাত্র ২২ রানের। দুই ম্যাচে খুলতে পারেননি রানের খাতাই। গত বেশ কিছুদিন ধরেই ওয়ানডেতে তামিম ইকবালের ওপেনিং পার্টনারকে তাই সমাধান খুঁজতেই হচ্ছে।

সমাধান একটি খুঁজেও পেয়েছেন। কী সেটি? প্রথম ১০ ওভারের চ্যালেঞ্জ সামলে নেওয়াকেই বড় ইনিংস খেলার অবশ্যই পালনীয় শর্ত বলে মনে হচ্ছে এই ওপেনারের, ‘অবশ্যই নিজের খেলা এখন আগের চেয়ে অনেক ভালো বুঝি। অনুশীলনও সেভাবেই করছি। যেহেতু আমি সাদা বলের ক্রিকেটে ওপেন করি, এ জন্য আমার কাছে নতুন বলটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম ১০ ওভার খেলে দিতে পারলে আমার জন্য খুব সহজ হয়ে যায়।’ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই সেঞ্চুরিতে আছে এর প্রমাণও। ১২৬ রানের ইনিংস খেলার দিন ১০ ওভার শেষে তাঁর রান ছিল ২৯ বলে ২৭। আর ১৭৬ রানের রেকর্ড গড়া ইনিংস খেলার পথে ১০ ওভার সামলে দিয়েছিলেন ৩৪ বলে ৩২ রান করে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ ও নিউজিল্যান্ড সফরের দুই ম্যাচে অবশ্য ১০ ওভার পার করে দিয়েও লম্বা ইনিংস খেলতে পারেননি। লিটন অবশ্য ভাবছেন সাফল্য রাঙানো ইনিংসগুলোর কথাই, ‘আমি জানি আমার সামর্থ্য কতটুকু। ১০ ওভার যদি সফল হতে পারি, তাহলে ১৫-৪০ ওভার পর্যন্ত সহজ হবে।’