kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

বড় জয় নিয়েই এএফসি কাপে কিংস

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

৮ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বড় জয় নিয়েই এএফসি কাপে কিংস

দেশে বসুন্ধরা কিংসকে ঠেকানোর কেউ নেই! চ্যাম্পিয়নরা গতকাল ৫-১ গোলে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে উড়িয়ে দিয়ে পেয়েছে লিগের চতুর্দশ জয়টি। ১৫ ম্যাচে ৪৩ পয়েন্টে অপরাজিত কিংস ছুটছে শিরোপার দিকে। হাইতিয়ান বেলফোর্টের হ্যাটট্রিকে রহমতগঞ্জের বিপক্ষে ৬-০ গোলে বড় জয় পাওয়া আবাহনী আছে ১১ পয়েন্ট পেছনে। তারা দ্বিতীয় স্থানে থাকলেও একই সংগ্রহ নিয়ে এক ম্যাচ কম খেলা শেখ জামাল আছে তৃতীয় স্থানে।

বসুন্ধরা কিংসের বিপক্ষে ব্রাদার্সের প্রতিরোধ টেকে মাত্র ২০ মিনিট। ২১ মিনিটে গোপীবাগের দলটির ডিফেন্ডার আরিফুল করে বসেন বড় ভুল আর জোনাথনের গোলে গুনতে হয়েছ তার মাসুল। সুফিলের কাট-ব্যাকটি ক্লিয়ার করতে গিয়ে ডিফেন্ডার তুলে দিয়েছিলেন ব্রাজিলিয়ান জোনাথন ফার্নান্দেজের পায়ে। লিড নেওয়ার পর ৩৫ মিনিটে বসুন্ধরা কিংসকে চমকে দিয়ে ব্রাদার্স সমতায় ফেরে ফুরতাজন হাসানবয়েভের গোলে। বক্সে জটলা থেকে উজবেক ফরোয়ার্ড কোনাকুনি শটে পরাস্ত করেন কিংস গোলরক্ষক আনিসুর রহমানকে। ১৫ ম্যাচে ষষ্ঠ গোল হজম করেছেন তিনি! তবে গোল দেওয়ায় যে তাদের জুড়ি নেই। বিরতিতে যাওয়ার আগে আগেই আবার রবসন রোবিনহোর গোলে কিংস আবার লিড নিয়েছে। তারেক কাজী স্কয়ার পাস ধরে এই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডারকে পায়ের ঝলকে পরাস্ত করে বল জালে পাঠিয়েছেন। লিড বড় হয় ৫৯ মিনিটে কিংসের আরেকটি দুর্দান্ত মুভে। চমত্কার মুভটি ছিল মাহবুবুর রহমানের, বক্সে ঢোকার পথে রবসনের সঙ্গে একটা ওয়াল পাস তিনি এত সুন্দর বানিয়ে দিয়েছেন যে তৌহিদুল আলমের গোল না করে উপায় ছিল না। ৭৪ মিনিটে এই দেশি ফরোয়ার্ড পেয়েছেন নিজের জোড়া গোল। জোনাথনের হাওয়ায় ভাসানো বলটি তিনি বাঁ পায়ে ব্রাদার্সের জালে পাঠিয়ে ব্যবধান করেন ৪-১ গোলের। ৮০ মিনিটে রবসন রোবিনহো দুর্দান্ত ফ্রি কিকে নিজের ১৭তম গোলটি করে সর্বোচ্চ গোলদাতার শীর্ষস্থানটি পোক্ত করেছেন। দুর্দান্ত ফর্ম নিয়ে এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড খেলতে যাচ্ছেন এএফসি কাপ।  

প্রথম ম্যাচে রহমতগঞ্জের বিপক্ষে শুরু থেকেই আবাহনীর দাপট। তবে ২৭ মিনিটে তারা এগিয়ে যায় আত্মঘাতী গোলে। বাঁ দিক দিয়ে বাড়ানো বেলফোর্টের থ্রু বল ধরে রায়হান বক্সে ক্রসে পাঠান সানডের উদ্দেশে। সেটি ক্লিয়ার করতে গিয়েই নিজেদের জালে বল ঠেলেন খুরশেস বেকনাজারভ। ৩৭ মিনিট বাদে ব্যবধান বড় করেন বেলফোর্ট। ব্রাজিলিয়ান রাফায়েল আগুস্তোর কাটব্যাকে গোলমুখের জটলা থেকে বাঁ পায়ে প্লেসিংয়ে গোল উত্সব শুরু করেন। ৪২ মিনিটে এই ব্রাজিলিয়ানের সঙ্গে দুর্দান্ত বোঝাপড়ায় আবাহনী এগিয়ে যায় ৩-০ গোলে। এবার দুই ডিফেন্ডারকে পরাস্ত করে রাফায়েল দেন মাপা ক্রস, তাতে হেড করে বেলফোর্ট বল পৌঁছে দেন রহমতগঞ্জের জালে। বেলফোর্টের জোড়া গোলে ৩-০ গোলের স্বস্তির লিড নিয়ে আবাহনী বিরতিতে যায়।

দ্বিতীয়ার্ধেও সেই আধিপত্য বজায় রেখে তারা খেলা শুরু করে। ৬২ মিনিটে বেলফোর্ট হ্যাটট্রিক পূরণ করেন মামুন মিয়ার বাড়ানো এক বলে। মৌসুমে প্রথম হ্যাটট্রিকের দেখা পান এই হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড। মিনিট তিনেক বাদে আগের গোলে অ্যাসিস্ট করা মামুন মিয়ার পায়েও গোল! এই ডিফেন্ডার আবাহনীর প্রথম একাদশে সচরাচর থাকেন না। গতকাল একাদশে শুরু করা মামুন সানডের সঙ্গে ওয়ান টু খেলে ডান দিক থেকে দুর্দান্ত এক শটে বল জালে পৌঁছে দেন অবিশ্বাস্যভাবে। ৮৫ মিনিটে আবাহনীর ষষ্ঠ গোল করেন মাসি সাইগানি। ফুলব্যাক রায়হানের কাটব্যাকে বক্সের অনেক বাইরে থেকে নেওয়া এই আফগানের বাঁ পায়ের শটটি বাঁক খেয়ে রহমতগঞ্জের জালে পৌঁছে গেলে আবাহনী মৌসুমের বড় জয়ের দেখা পায়। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে পুলিশ মোহাম্মদ জুয়েলের জোড়া গোলে বারিধারাকে হারিয়েছে ২-১ গোলে।



সাতদিনের সেরা