kalerkantho

বুধবার । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৯ মে ২০২১। ৬ শাওয়াল ১৪৪

কাবাডিতে আসছে করপোরেট লিগ

২২ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : বদলে যাচ্ছে কাবাডির চেহারা। একটা আন্তর্জাতিক কাবাডি টুর্নামেন্টের সফল আয়োজনের পর বাংলাদেশ এখন স্বপ্ন দেখছে বৈশ্বিক টুর্নামেন্টের। পাশাপাশি দেশের ভেতরেও কাবাডি নিয়ে নাক সিটকানো ভাবটা উবে যাচ্ছে, বড় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলো আগ্রহ নিয়ে আসছে করপোরেট কাবাডি খেলতে।

বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশন প্রথমবারের মতো করপোরেট কাবাডি আয়োজনের রূপরেখা চূড়ান্ত করেছে। পাশাপাশি এ দেশে বিশ্বকাপ কাবাডি আয়োজনের কূটনৈতিক তৎপরতাও চলছে বলে জানিয়েছেন ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক গাজী মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক, ‘বঙ্গবন্ধুর নামে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টটি সফল আয়োজনের পর বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বদলে গেছে আন্তর্জাতিক কাবাডি ফেডারেশনের কাছে। তাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগে সেটা বুঝতে পারছি। তারা দেখেছে আমাদের সাংগঠনিক দক্ষতা, একই সঙ্গে আমাদের দলের সামর্থ্য। সত্যি বললে, দেশে বিশ্বকাপ কাবাডি আয়োজনের জায়গায় পৌঁছে গেছি আমরা, এ নিয়ে কাজ চলছে।’

আন্তর্জাতিক কাবাডির ভেন্যু হওয়ার পাশাপাশি তাদের মূল লক্ষ্য এশিয়ান গেমসে লাল-সবুজের হারানো গৌরব ফিরে পাওয়া। সর্বশেষ দুটি এশিয়ান গেমসে চরম ভরাডুবি হলেও একসময় রুপালি গৌরবে মোড়ানো ছিল দেশের কাবাডি। এ পর্যন্ত এশিয়ান গেমসে পুরুষ কাবাডি দলের আছে তিনটি রুপা ও তিনটি ব্রোঞ্জ। এই বৈশ্বিক পদক দিয়ে বিচার করলে ফুটবল-ক্রিকেটের আগে থাকে কাবাডি! ‘এশিয়ান গেমসকে লক্ষ্য রেখেই কাবাডির সংস্কার শুরু করেছি আমরা। তাই খেলা ও খেলোয়াড়দের মান বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন পরিকল্পনা করেছে ফেডারেশন। তার একটি হলো করপোরেট কাবাডি, করোনার প্রকোপ কমলেই এটা আয়োজন করব। দেশের বড় বড় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে। ছয় দল নিয়ে প্রথমবারের মতো এটা হবে, তার রূপরেখা চূড়ান্ত হয়ে গেছে’—জানিয়েছেন পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি (উন্নয়ন) গাজী মোজাম্মেল হক। ভারতের মতো প্রো-কাবাডি করতে গেলে অনেক অর্থের প্রয়োজন। বর্তমান প্রেক্ষাপটে সেটা অনেক কঠিন হলেও ফেডারেশনের এই কর্মকর্তা মনে করেন, ‘এখন আর পুরোপুরি অ্যামেচারশিপ দিয়ে কোনো খেলাকে এগিয়ে নেওয়া যাবে না। খেলা দিয়েই খেলোয়াড়দের আয়ের পথ তৈরি করতে হবে। করপোরেট লিগে থেকে খেলোয়াড়দের এক লাখ কিংবা তারও বেশি আয়ের সুযোগ আছে। লিগ খেলতে প্রত্যেক দলের ৪০-৫০ লাখ টাকার মতো খরচ হবে।’

এই লিগে দেশি খেলোয়াড়দের সঙ্গে থাকবেন বিদেশিরাও। প্রত্যেক দলে চারজন করে ২৪ জন বিদেশি খেলার সুযোগ পাবেন। সর্বোচ্চ ছয়জন থাকবেন ভারতের, এ ছাড়া ইরান, কেনিয়া, শ্রীলঙ্কা, পোল্যান্ডসহ অন্যান্য দেশের থাকবেন দুজন করে।



সাতদিনের সেরা