kalerkantho

রবিবার। ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৬ মে ২০২১। ০৩ শাওয়াল ১৪৪২

প্রস্তুতি ম্যাচে

বোলারদের পরীক্ষা নিল ব্যাটসম্যানরা

১৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বোলারদের পরীক্ষা নিল ব্যাটসম্যানরা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : নিজেদের মধ্যে প্রস্তুতি ম্যাচ। তার ওপর দলের সঙ্গে থাকা প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের বিচারে উইকেট ‘ফ্ল্যাট’। এমন পরিস্থিতিতে জীবনপণ করে বোলিংয়ের জন্য যে তাড়না দরকার, সেটি থাকে না বোলারদের। তাই নাজমুল হোসেন শান্তর কাছে ২০ ওভার পর ব্যাটিং খুব সহজ মনে হয়ছে। হতে পারে, নেগম্বোর প্রচণ্ড গরমে অনুপ্রেরণার শেষ শক্তিটুকুও হারিয়ে বসেছিলেন বোলাররা।

তবু দুই দিনের ম্যাচের প্রথম দিন শেষে তামিম ইকবালের লাল দল চা বিরতি পর্যন্ত কোনো উইকেটই হারায়নি। ৬৩ রান করে অন্যদের সুযোগ দিতে অধিনায়ক ফিরে গেছেন সাজঘরে। লাল দলের আরেক ওপেনার সাইফ হাসানও অপরাজিত ৫২ রান করে তামিমের পথ ধরেন। নাজমুল হোসেন শান্ত (৫৩), মুশফিকুর রহিম (৬৩), নুরুল হাসান সোহান (৪৮) আউট হননি কেউই। পর্যাপ্ত ব্যাটিং অনুশীলন হয়ে যাওয়ায় স্বেচ্ছা অবসরে গেছেন তাঁরা। একটি উইকেটেরই পতন ঘটেছে। তাইজুল ইসলামের সেই উইকেটটি পেয়েছেন শুভাগত হোম।

মমিনুল হকের বাংলাদেশ সবুজ সেজেছিল পেস কোয়ার্টেটের সাজে। সেই চতুষ্টয়ের নেতা এবাদত হোসেন। তাতে বুঝতে অসুবিধা হয় না যে, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট প্ল্যানে আপাতত শরিফুল ইসলাম, মুকিদুল ইসলাম ও শহিদুল ইসলামরা নেই। পেস বোলিংয়ের আসল ইউনিট তামিমের লাল একাদশে, যাঁদের আজ বোলিং করার কথা। তবে ক্যান্ডিতে প্রথম টেস্ট শুরুর আগে নুরুল হাসান সোহানের মিডল অর্ডারে সুযোগ পাওয়া কি নতুন কোনো বার্তা দিচ্ছে? স্পেশালিস্ট উইকেটরক্ষক হিসেবে কি তবে আবার টেস্টে ফিরতে যাচ্ছেন তিনি?

এসব প্রথম এখনো তোলাই থাকছে। বরং আজ প্রস্তুতি ম্যাচের দ্বিতীয় ও শেষ দিনে পরীক্ষা হওয়ার কথা টেস্ট একাদশের সম্ভাব্য পেস আক্রমণের। আবু জায়েদ রাহির সুইং আর তাসকিন আহমেদের গতি—বাংলাদেশ দলের থিংক ট্যাংকের পেস রসায়ন এমন বলেই জানা গেছে। বাকিটা স্পিনের ‘ভেলকি’। অবশ্য এই ভেলকিতে সফল হওয়ার অন্যতম নিয়ামক দক্ষ উইকেটরক্ষক। সেসব কারণেই দীর্ঘদিন পর স্কোয়াডে ডাক পেয়েছেন নুরুল হাসান।

তবে আপাতত ব্যাটসম্যানরা রানে ফেরাতেই খুশি দলের সঙ্গে অবস্থানরত প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল, ‘প্রস্তুতিটা খুব ভালো হয়েছে। এখানকার আবহাওয়া, কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে এটা সাহায্য করবে। আমাদের টপ অর্ডারের সবাই রান করেছে। প্রথম ঘণ্টায় ব্যাটিং করা কঠিন ছিল। তবু তামিম-সাইফ-শান্ত; ওরা দারুণ ব্যাটিং করেছে। আমি মনে করি এখান থেকে আত্মবিশ্বাস নিয়ে আমরা টেস্টে যাব।’

অনেক দিন ব্যাটে রান নেই নাজমুল হোসেনের। গতকাল প্রস্তুতি ম্যাচে রান করে উঠে এসে তাঁর মনে হয়েছে, ‘খুব ভালো প্রস্তুতি হয়েছে। আমরা যেটা করতে চেয়েছি...ব্যাটিংয়ে যে পরিকল্পনা ছিল সেটা বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। টেস্টের আগে এটা আমাদের সবার জন্য বেশ ভালো হলো।’

কিন্তু ব্যাটসম্যানদের সুদিন দেখে তো আর নির্ভার হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। প্রতিপক্ষ বোলাররাও তো বাংলাদেশ দলেরই। ব্যাটসম্যানদের সাফল্য যেমন সাধুবাদ প্রাপ্য তেমনি আশঙ্কার মেঘ জমে বোলিং ইউনিটের আকাশে। মিনহাজুল অবশ্য অন্য কথা বলছেন, ‘শুরুতে ব্যাটসম্যানদের রান করা কঠিন ছিল। বোলাররা এখানকার কন্ডিশনের উপযোগী সুন্দর একটা লাইন-লেন্থে বোলিং করেছে। ওদের প্রস্তুতিও ভালো হয়েছে। বিশেষ করে এখানকার গরমে বোলিং করার অভ্যাস তৈরি হয়েছে। তা ছাড়া উইকেটও ফ্ল্যাট ছিল।’

নাজমুলের কথায় আবহাওয়া আর কন্ডিশন বোলারদের পক্ষে ছিল না বলেই মনে হয়েছে, ‘এখানে ২০ ওভার পর ব্যাটিং করা অনেক সহজ হয়ে গিয়েছিল।’ দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেটে অবশ্য শুরুর এই এক ঘণ্টা সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। ব্যাটসম্যান আর বোলারের কর্তৃত্ব ভাগাভাগি তো হয় এই সময়টাতেই।

আজ দ্বিতীয় দিনে তাসকিন-রাহি-তাইজুল-মেহেদী মিরাজরা কি পারবেন বোলিংরাজ স্থাপন করতে? লাল দলের এই বোলিং লাইন আপকেই কিন্তু ক্যান্ডিতে সিরিজের প্রথম টেস্টে দেখার জোর সম্ভাবনা।