kalerkantho

রবিবার । ২৬ বৈশাখ ১৪২৮। ৯ মে ২০২১। ২৬ রমজান ১৪৪২

রিয়ালকে জাদুবন্দি করতে পারবেন ক্লপ?

১৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রিয়ালকে জাদুবন্দি করতে পারবেন ক্লপ?

এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল জিনেদিন জিদানের পৃথিবী। শঙ্কা জাগে চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে যাওয়ার। লা লিগায় অ্যাতলেতিকো এগিয়ে যায় ১০ পয়েন্টে। সেই দুঃস্বপ্ন পেছনে ফেলে সুখ ফিরেছে রিয়ালের সংসারে। লা লিগায় অ্যাতলেতিকোর সঙ্গে ব্যবধান কমিয়ে এনেছে ১ পয়েন্টে। কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে লিভারপুলকে ৩-১ ব্যবধানে হারিয়ে এক পা দিয়ে রেখেছে চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনালে। আজ অ্যানফিল্ডে ফিরতি লেগে এক গোলে হারলেও জিদানের দলই পাবে শেষ চারের টিকিট।

লিভারপুল অবশ্য হাল ছাড়ছে না। তারা প্রত্যাশায় ইয়ুর্গেন ক্লপ নামের জাদুকরের ভেলকিতে। ৩০ বছর পর লিগ শিরোপা ফিরিয়ে আনায় লিভারপুলে কিংবদন্তিতুল্য এই জার্মান। জিতিয়েছেন ২০১৯ সালের চ্যাম্পিয়নস লিগও। সেবার সেমিফাইনালের প্রথম লেগে বার্সেলোনার কাছে লিভারপুল হারে ৩-০ গোলে। ফিরতি লেগে কোনো আশা দেখছিলেন না পাঁড় লিভারপুল সমর্থকও। অথচ ফিরে আসার রোমাঞ্চকর গল্প লিখে লিভারপুল জিতেছিল ৪-০ গোলে! সেই ম্যাচের কথা স্মরণ করিয়ে শিষ্যদের উদ্দীপ্ত করছেন ক্লপ, ‘আবেগের কোনো স্মৃতি মনে করতে চাইলে বার্সেলোনার ম্যাচটি ফিরে দেখা যেতে পারে। এখনো সব শেষ হয়ে যায়নি।’ অপর ম্যাচে আজ ম্যানচেস্টার সিটি মুখোমুখি হবে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের। প্রথম লেগে ২-১ গোলে জিতেছে পেপ গার্দিওলার দল। ডর্টমুন্ডের মাঠে আজ ড্র করলেও প্রথমবার ম্যানসিটির হয়ে সেমিফাইনালের স্বাদ পাবেন এ স্প্যানিয়ার্ড।

রিয়াল আর লিভারপুল মিলে চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছে ১৯ বার। ২০তম শিরোপার অভিযানে প্রথম লেগের ভাগ্য গড়ে দিয়েছিলেন ২০ বছর বয়সী ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। ৩-১ ব্যবধানের জয়ে জোড়া গোল তাঁর। আজও বিশেষ নজর থাকবে এই ব্রাজিলিয়ানের ওপর। চোটের জন্য সের্হিয়ো রামোস ছিটকে গেলেও মাঠে উপস্থিত থেকে দলকে উৎসাহ জুগিয়ে গেছেন এতদিন। গতকাল করোনা আক্রান্ত হওয়ায় অ্যানফিল্ডে আসা হচ্ছে না তাঁর। এছাড়া রাফায়েল ভারান, দানি কারভাহালের পর এল ক্লাসিকোয় লুকাস ভাসকেসকেও হারিয়েছে রিয়াল। তাই রাইটব্যাক পজিশনটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় জিদান। আস্থা না থাকলেও আলভারো অদ্রিয়জোলাকে খেলাতে পারেন তিনি। এমনকি ফেদ ভালভের্দেকেও ভাবা হচ্ছে এই পজিশনে।

লিভারপুলও রক্ষণ নিয়ে স্বস্তিতে নেই। জো গোমেজ, ভারজিল ফন ডাইক, জোয়েল মাতিপরা ছিটকে গেছেন পুরো মৌসুমের জন্য। জর্ডান হেন্ডারসন ফেরার মতো শতভাগ ফিট নন। অনভিজ্ঞ নেট ফিলিপস আর অজান কাবাকরাই ভরসা। সাদিও মানে আর রবার্তো ফিরমিনোর ফর্ম হারিয়ে ফেলাটাও মাথাব্যথার কারণ ক্লপের। অ্যানফিল্ডে গত জানুয়ারি পর্যন্ত লিগে টানা ৬৮ ম্যাচ অপরাজিত ছিল লিভারপুল। সেই দুর্গও ভেঙে চুরমার। লিগে নিজেদের মাঠেই হারতে হয়েছিল টানা ছয় ম্যাচ! গত শনিবার অ্যাস্টন ভিলাকে ২-১ গোলে হারিয়ে ব্যর্থতার বৃত্তটা ভেঙেছে তারা। এবার মৌসুমের সবচেয়ে বড় ম্যাচটিতে তারকাদের জ্বলে ওঠার প্রত্যাশায় সমর্থকরা। ইএসপিএন



সাতদিনের সেরা