kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৮ মে ২০২১। ৫ শাওয়াল ১৪৪

জুডোকা ‘দুই বোনের’ গল্প

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

১০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জুডোকা ‘দুই বোনের’ গল্প

ওরা দুই বোন। মিরপুর ইনডোরের গেটে দাঁড়িয়ে একজন খুব রাগ-অভিমানের ভঙ্গিতে হাত-পা ছুড়ে কথা বলছেন। অন্যজন তাঁকে বুঝিয়ে পারছেন না। আনসার কোচ আলী আনোয়ার দেখে বললেন ‘বোন নয়, তবে ওরা তারও বেশি।’

অভিমানে গাল ফুলিয়ে থাকা মেয়েটির নাম সখিনা খাতুন। বাকপ্রতিবন্ধী। ২০১৩ সালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আসেন আনসারে ভর্তি হতে। আর্মি স্টেডিয়ামে হওয়া ট্রায়ালে কোচকে অনেক ইশারা-ইঙ্গিতেও কিছু একটা বোঝাতে পারছিলেন না, কোচ বিরক্ত হচ্ছিলেন। প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে থাকা অন্য মেয়েটি, নিলুফা ইয়াসমিনও ফরিদপুর থেকে এসেছিলেন সেই ট্রায়ালে। শেষে তিনিই এগিয়ে যান সখিনাকে সাহায্য করতে, ‘ও কী বলতে চাচ্ছিল, সেটা আমি বুঝতে পারছিলাম। পরে কোচকেও আমি বুঝিয়ে বলি।’ সেই থেকেই সম্পর্ক? নিলুফা বলেন, ‘ট্রায়াল দিয়ে আমরা তো যার যার মতো চলে যাই। পরে যখন ভর্তি হতে আসি, দেখি ও একাডেমির গেটে একা দাঁড়িয়ে আছে। এরপর আমিই ওকে ভেতরে নিয়ে যাই। সব কিছু ঠিকঠাক করে দিই। এখন আমি আর ও রুমমেট।’

বোন না হয়েও বোনের চেয়ে বেশি আপন দুই জুডোকার গল্পই এটি। নিলুফা ২০১৬ সাল থেকেই নিজের ওজন শ্রেণিতে টানা চ্যাম্পিয়ন। বাকপ্রতিবন্ধকতাও আটকাতে পারেনি সখিনাকে? মোটেও না। ২০১৬ থেকে তিনিও টানা পদক জিতেছেন, ২০১৭-তে ৪৪ কেজি ওজন শ্রেণিতে জাতীয় চ্যাম্পিয়নও হয়েছেন। এবারের বাংলাদেশ গেমসে অবশ্য দুজনেরই ব্রোঞ্জ। তা নিয়ে নিলুফার অন্তত খুব একটা আক্ষেপ নেই। পরের আসরেই সেরার মুকুট জিতবেন বলে আত্মবিশ্বাস তাঁর। আর সখিনা? তাঁর হয়ে নিলুফাই বলে দিলেন, ‘ও-ও পারবে।’ কোচ আলী আনোয়ার বলছিলেন, ‘নিলুফার মতো করে ওকে কেউ বোঝে না। আমরাও ওকে কিছু বোঝাতে চাইলে আগে নিলুফাকে ডাকি। নিলুফার কাছেই ওর যত আদর-আবদার, অভিমান।’

তবু বাকপ্রতিবন্ধী একটি মেয়ের সাধারণের সঙ্গে খেলে সেরা হয়ে ওঠাটা সহজ কথা নয়। নিলুফা বলেন, এর পেছনে সবারই সহযোগিতা আছে, ‘কোচরা ওকে স্নেহ করেন। খেলার সময় রেফারিরা সহযোগিতা করেন, যাতে ও নির্দেশগুলো সহজে বুঝতে পারে। শুরুতে একটু সমস্যা হতো, এখন ও পুরোপুরি মানিয়ে নিয়েছে।’ নিলুফাই জানালেন সখিনার বাবা নেই, বড় দুই ভাইও বাকপ্রতিবন্ধী, তাঁরা রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। আনসারে খেলে সখিনা তাঁর আয় মাস শেষে মায়ের কাছে পাঠিয়ে দেন।