kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

লিভারপুলকে হারিয়ে রিয়ালের বার্তা

৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



লিভারপুলকে হারিয়ে রিয়ালের বার্তা

চ্যাম্পিয়নস লিগে কেন তারা ভিনগ্রহের দল, আরো একবার প্রমাণ করল রিয়াল মাদ্রিদ। সের্হিয়ো রামোস, দানি কারভাহাল, রাফায়েল ভারান—মূল তিন সেন্টারব্যাকের কেউ ছিলেন না ইনজুরি আর অসুস্থতায়। এর পরও বিরতির আগে রিয়ালের পোস্টে কোনো শট নিতে পারেনি লিভারপুল! ব্রাজিলিয়ান ভিনিসিয়ুস গতি আর ফিনিশিংয়ে মুগ্ধতা ছড়িয়ে করেছেন জোড়া গোল, তাতেই ৩-১ ব্যবধানে জিতে প্রতিপক্ষদের বার্তা দিয়ে রাখল জিনেদিন জিদানের দল। অপর ম্যাচে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়েও স্বস্তিতে নেই ম্যানচেস্টার সিটি। কারণ মূল্যবান একটা ‘অ্যাওয়ে’ গোল পেয়েছে জার্মান দলটি।

লিভারপুলকে বড় ব্যবধানে হারালেও উচ্ছ্বাসে ভাসছেন না জিনেদিন জিদান, ‘কোনো শিরোপা জিতে যাইনি। দুটি টুর্নামেন্টে আশা বেঁচে আছে, আর আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাব। ভিনিসিয়ুস গোলখরায় ভুগছিল, দুই গোল করায় ওর আত্মবিশ্বাস বাড়বে।’ রিয়াল ছাড়ার গুঞ্জনে জোড়া গোলের পর ভিনিসিয়ুসের জবাব, ‘আমি এখানে আছি, এখানেই থাকব।’ রিয়ালের দ্বিতীয় গোলের ২০ সেকেন্ড আগে সাদিও মানে ফাউলের শিকার হয়েছিলেন ডি বক্সের সামনে। রেফারি সেটা এড়িয়ে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ ইয়ুর্গেন ক্লপ, ‘পরিষ্কার ফাউলটাকে রেফারির কাছে মনে হয়েছে ডাইভ! আমার কাছে এটা ব্যক্তিগত কিছু। তবে জেতার মতো খেলতে পারিনি। আশার কথা হচ্ছে আরো একটা লেগ বাকি।’

২৭ মিনিটে প্রতিপক্ষের রক্ষণ অনেকখানি উঠে আছে দেখে ৫০ গজ দূর থেকে উঁচু করে বল বাড়ান টনি ক্রুস। ভিনিসিয়ুস সেটা বুক দিয়ে নামিয়ে ডি বক্সে ঢুকে করেন অসাধারণ গোল। ৩৬ মিনিটে সেই ক্রুসের উঁচু করে বাড়ানো বল বিপদমুক্ত করতে গিয়ে ট্রেন্ট আলেকজান্ডার আরনল্ড দিশাহীনভাবে ঠেলে দেন নিজেদেরই বক্সে। সুযোগটা নিয়ে প্রথম টোকায় গোলরক্ষক আলিসন বেকারকে বোকা বানিয়ে দ্বিতীয় টোকায় বল জালে জড়ান মার্কো আসেননিও। থিয়াগো আলকান্তারা নামার পর মাঝমাঠে কিছুটা নিয়ন্ত্রণ ফিরে পায় লিভারপুল। ৫১ মিনিটে একটি গোলও ফেরান মো সালাহ। তবে ৬৫ মিনিটে লুকা মদরিচের পাস পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় জালে জড়িয়ে রিয়ালকে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন ভিনিসিয়ুস ।

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে ১৯ মিনিটে ম্যানসিটিকে এগিয়ে নেন কেভিন ডি ব্রুইন। ৩০ মিনিটে কানের চ্যালেঞ্জে রদ্রি ডি বক্সে পড়ে গেলে ম্যানসিটিকে পেনাল্টি দিয়েছিলেন রেফারি। ভিএআরে বদলায় সেই সিদ্ধান্ত। ৩৭ মিনিটে বেলিংহাম বল জালে জড়ালেও বাতিল হয় ম্যানসিটির গোলটি। আর্লিং হালান্ড গোল না পেলেও তাঁর পাসে ৮৪ মিনিটে ডর্টমুন্ডকে সমতায় ফেরান মার্কো রয়েস। শেষ মিনিটে ফিল ফোডেনের গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পেপ গার্দিওলার দল। ইএসপিএন

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা