kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

অপেক্ষা বাড়ছে মাহমুদ উল্লাহর

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাওয়ালপিন্ডিতে নাসিম শাহর দূরের বল তাড়া করতে গিয়ে হ্যাটট্রিকের শিকার মাহমুদ উল্লাহর ‘পাপস্খলন’ হয়নি। তাই সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতিতে মিডল অর্ডারে অভিজ্ঞতার অভাব পূরণের যুক্তিতেও বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ককে বিবেচনা করা হচ্ছে না আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য। তাই ক্যারিয়ারের ৫০তম টেস্ট খেলার জন্য আরো কাঠখড় পোড়াতে হবে মাহমুদকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের প্রথম টেস্টের পর মাহমুদ উল্লাহর টেস্ট প্রত্যাবর্তনের একটা সুযোগ তৈরি হয়েছিল। সাকিব আল হাসান চোট নিয়ে আগাম পিতৃত্বকালীন ছুটিতে গেলে এ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের নাম উঠেছিল আলোচনায়। কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্ট বেছে নিয়েছিল সৌম্য সরকারকে। এবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন দুই টেস্টের সিরিজ থেকে সাকিব আগেই ছুটি নিয়ে নেওয়ায় আবার আলোচনায় আসেন মাহমুদ। বাংলাদেশ দল নিউজিল্যান্ডে থাকাকালীন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানও ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, ‘রিয়াদ (মাহমুদ) দলে থাকবে যদি সে বোলিং করার মতো ফিট হয়।’

নিউজিল্যান্ডে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে বোলিং করেননি মাহমুদ, পিঠের চোটের কারণে। শেষ টি-টোয়েন্টি খেলেননি ঊরুর পেশিতে টান পড়ায়। তবে গতকাল টেলিফোনে মাহমুদ বলেছেন, ‘এখন বোলিং করতে কোনো সমস্যা হবে না। ব্যথা নেই। অনেক ভালো বোধ করছি।’ ঊরুর পেশির চোটও গুরুতর নয় বলে জানিয়েছেন তিনি, ‘ফিজিও (জুলিয়ান ক্যালেফাতো) বলেছিল সাত-আট দিনের মধ্যে এমনিতেই সেরে যাবে। সে হিসেবে আমার সেই সমস্যাও নেই। কোনো সমস্যাও হচ্ছে না।’ গতকালই ফোন করে মাহমুদকে মিরপুরে যেতে বলেছেন বাংলাদেশ দলের ফিজিও। ‘মনে হয় আমার ইনজুরির কতটা হিলিং (সেরে ওঠা) উঠল, সেটি দেখবে’, এমনটাই ধারণা মাহমুদের।

তবে কি মাহমুদকে শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্য বিবেচনা করছেন নির্বাচকরা? এ ব্যাপারে সরাসরি কিছু বলেননি নির্বাচক কমিটির সদস্য হাবিবুল বাশার, ‘ওর (মাহমুদ) কিন্তু ফিটনেট টেস্ট হবে না। সামান্য চোট আছে। ফিজিও সেটির ফলোআপের জন্যই ডেকেছেন। আর আমাদের নির্বাচনী ভাবনায় আসলে অনেকেই থাকে। দল চূড়ান্ত হলে তো এমনিতেই জানতে পারবেন।’ করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার শ্রীলঙ্কায়ও নেট বোলার পাওয়া নিয়ে আশঙ্কা রয়েছে। তাই দলের বহর ১৮ জনের কম হচ্ছে না। তাতে মাহমুদের থাকা নিয়ে সংশয় থাকার কথা নয়। কিন্তু বাশারের কথায় দল নির্বাচনী নীতির ইঙ্গিত স্পষ্ট, ‘নেট করানোর জন্য তো আর রিয়াদকে নেওয়ার কোনো মানে হয় না। ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। রিয়াদের স্কোয়াডে থাকা মানে সে খেলবে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দল নির্বাচনী সভাতেও একই যুক্তিতে উহ্য থেকে গিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। শ্রীলঙ্কায় আসন্ন সফরেও একই যুক্তির দেয়ালে আটকে গেছে মাহমুদের টেস্ট প্রত্যাবর্তন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা