kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

চারে উঠে এলো মোহামেডান

৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চারে উঠে এলো মোহামেডান

ক্রীড়া প্রতিবেদক : কারো কারো চোখে শেখ জামাল ধানমণ্ডির অ্যাটাকিং লাইন সবচেয়ে ভয়ংকর। তারা ভুগিয়েছে বসুন্ধরা কিংস ও আবাহনীর মতো পরাশক্তিকেও। তবে গতকাল শেখ জামালের বিপক্ষে গোলাম জিলানী কখনো আলগা হতে দেয়নি রহমতগঞ্জের রক্ষণভাগ। তাতেই হোঁচট খেয়েছে শেখ জামাল। ১-১ গোলের এই ড্র ম্যাচের পর ১১ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে তারা দ্বিতীয় স্থানে আছে। রহমতগঞ্জের সংগ্রহ ১০ পয়েন্ট। ওদিকে কুমিল্লায় মোহামেডান ২-০ গোলে মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে ১১ ম্যাচে পাঁচ জয় ও চার ড্রয়ে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে গোল পার্থক্যে চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে। গোল পার্থক্যে পিছিয়ে পড়া সাইফ স্পোর্টিং নেমে গেছে এক ধাপ নিচে।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রথমার্ধে শেখ জামাল আধিপত্য করলেও পরিষ্কার কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি।

বিরতির পর ৪৯ মিনিটে দুর্দান্ত এক কর্নার কিকে ওতাবেক এগিয়ে নেন শেখ জামালকে। বাঁ দিক থেকে এই উজবেক মিডফিল্ডারের কর্নার কিকটি বাঁক খেয়ে গোলরক্ষককে বিভ্রান্ত করে জালে পৌঁছে যায়। আগের দিন ব্রাদার্স ইউনিয়নের অধিনায়ক ফয়সাল মাহমুদ একইভাবে কর্নার কিকে দু-দুটি গোল করে চমকে দিয়েছিলেন আরামবাগকে। গতকাল ওতাবেক একই কীর্তি গড়ে লিড এনে দেওয়ার পর মিনিট দুয়েক বাদেই রহমতগঞ্জের ক্রিস রেমি ম্যাচে ফেরান রহমতগঞ্জকে। আইভরি কোস্টের এই ফরোয়ার্ড জামালের অফসাইডের ফাঁদ কেটে বেরিয়ে নজরকাড়া গোল করেন। কিন্তু শেখ জামালের খেলার বৈশিষ্ট্য হলো, ম্যাচ শেষ দিকে গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তাদের গাম্বিয়ান ফরোয়ার্ড ত্রয়ীতে আক্রমণের ধার বাড়ে। তৈরি হয় গোলের সুযোগ। গতকাল সেই ঝড় শুরু হলেও রহমতগঞ্জের কঠিন প্রহরায় থেমে গেছে রক্ষণে। ৫৮ মিনিটে বদলি জাহিদের নিখুঁত কর্নার কিকে ওমর জোবে হেড রাখতে পারেননি পোস্টে। চার মিনিট বাদে সুলেমান সিলার কাটব্যাকে ওমরের ব্যাকভলিটিও আটকে যায় রক্ষণে। ৭০ মিনিটে তাঁকে ফিরিয়ে দিয়েছে পোস্ট। সিলার চমৎকার থ্রু-বল ধরে বক্সে ঢুকে এই গাম্বিয়ান স্ট্রাইকার দারুণ শট নিয়ে গোলরক্ষকে পরাস্ত করলেও আটকে দিয়েছে গোলপোস্ট।

আগের ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীর সঙ্গে ড্র করা মোহামেডান গতকাল কুমিল্লায় আধিপত্য করে ২-০ গোলে হারিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়াচক্রকে। শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ স্টেডিয়ামে ম্যাচের ৩৫ মিনিটে মালির ফরোয়ার্ড সুলেমানে দিয়াবাতের গোলে এগিয়ে যায় সাদা-কালোরা। বিরতির পর সেটা দ্বিগুণ করেন কুলিদিয়াতি। সোহাগের তৈরি করে দেওয়া সুযোগ কাজে লাগিয়েছেন বুরকিনা ফাসোর এই ফরোয়ার্ড।

মন্তব্য