kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

আজ আবার করোনা পরীক্ষা তামিমদের

২ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আজ আবার করোনা পরীক্ষা তামিমদের

ক্রীড়া প্রতিবেদক : করোনা-পরবর্তী ক্রিকেট নতুন অভিজ্ঞতা দিয়েছে খেলোয়াড়দের। সে অভিজ্ঞতা অবশ্যই রোমাঞ্চকর কিছু নয় বরং বিষাদের। বায়ো-বাবল মানেই কঠোর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কড়াকড়ি। সিরিজ শুরুর সপ্তাহখানেক আগেই উঠে পড়তে হয় হোটেলে, একই শহরে থাকলেও পরিবার-বন্ধুদের সঙ্গে সাক্ষাৎ নিষিদ্ধ। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হোম সিরিজের বায়ো-বাবল তো আর অতটা ‘নির্মম’ ছিল না। নিউজিল্যান্ডে তো তামিম ইকবালরা রুম থেকেই বের হতে পারছেন না!

দেশ ছাড়ার আগে এ নিয়ে ভয়ের কথাই শোনা গিয়েছিল ক্রিকেটারদের কাছে। কিন্তু ক্রাইস্টচার্চে রুমবন্দি জীবন কিভাবে যেন সয়ে নিয়েছেন সবাই। গতকাল তামিম ইকবালও শোনালেন অভ্যস্ত হয়ে ওঠার কথাই, ‘আমি খুব ভয়ে ছিলাম। এটা তো আর বায়ো-বাবল না। বায়ো-বাবলে থাকলেও আপনি টিমমেটদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করতে পারেন, খেলার মাঠে তো প্রতিপক্ষের সঙ্গেও দেখা হয়। আর এখানে আইসোলেশনে থাকতে হবে জানার পর শঙ্কায় ছিলাম। কিন্তু এখন অত খারাপ মনে হচ্ছে না। আর তো মাত্র দুই দিন।’

আর দুই দিন মানে আগামীকাল (বুধবার) থেকে পাঁচজনের গ্রুপ বানিয়ে জিম করতে পারবে বাংলাদেশ দল। এর আগে আরেক দফা করোনা পরীক্ষা হবে তামিমদের। সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে মিলবে জিম করার অনুমতি। ক্রাইস্টচার্চে আরেকবার করোনা পরীক্ষা করানোর পর বাংলাদেশ দল উড়ে যাবে কুইন্সটাউনে, পাঁচ দিনের ক্যাম্প করতে। তামিম আশাবাদী,‘ক্যাম্পেই ব্যাট-বলের সঙ্গে অনভ্যস্ততা কাটিয়ে উঠবে সবাই।’

বিরক্ত লাগছে না? গতকাল এ প্রশ্ন শুনে তামিম হাসেন, ‘এখন এটাই বাস্তবতা। মানিয়ে নিয়েছি। একটা ব্যাপার নিয়েই সমস্যায় আছি, ঘুম। অবশ্য ভিন্ন টাইমজোন থেকে এলে যে কারোরই এ সমস্যা হবে। এখন এখানে ১১টা (বাংলাদেশে বিকেল ৪টা) বাজছে। ঘুমানোর চেষ্টা করতে হবে। কিন্তু এই সময়ে তো আমরা ঘুমিয়ে অভ্যস্ত না। তবে জানি আর এক-দুই দিনের মধ্যে এই সমস্যাও কেটে যাবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা