kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

তবু লকডাউনে না পড়ার স্বস্তি

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তবু লকডাউনে না পড়ার স্বস্তি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : যখন-তখন বাইরে বের হতে না পারা নিয়ে যদি কোনো অস্বস্তি থেকে থাকে নিউজিল্যান্ড সফরে থাকা বাংলাদেশ দলের সদস্যদের, তাহলে গতকাল থেকে সেটি স্বস্তিতেই রূপ নেওয়ার কথা। কারণ দলটির বর্তমান ঠিকানা ক্রাইস্টচার্চ না হয়ে অকল্যান্ড হলেই যে পড়ে যেতে হতো লকডাউনের কবলে। অজ্ঞাত একজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার ঘটনায় নিউজিল্যান্ডের সবচেয়ে বড় শহরটি আজ থেকে ঢুকে পড়ছে সাত দিনের লকডাউনে। এর ধাক্কায় ইতিমধ্যেই নিউজিল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের চতুর্থ টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি অকল্যান্ড থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে ওয়েলিংটনে। সেখানে আবার খেলা হবে দর্শকবিহীন মাঠেও। নর্থ আইল্যান্ডের অকল্যান্ডে লকডাউন নিশ্চিতভাবেই প্রভাব ফেলতে চলেছে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ড নারী ক্রিকেট দলের টি-টোয়েন্টি সিরিজেও। তুলনায় সাউথ আইল্যান্ডের শহর ক্রাইস্টচার্চে ৪৮ ঘণ্টা হোটেলরুমে বন্দি হয়ে থাকার পর অন্তত বাইরের হাওয়া গায়ে মাখার সুযোগ হয়েছে বাংলাদেশ দলের।

দিন দিন কঠোর আইসোলেশনের শিকলও একটু একটু করে আলগা হচ্ছে। গতকাল সফরের চতুর্থ দিনেই যেমন। আগের দিন ৪০ মিনিটের জন্য হোটেল লাগোয়া খোলা জায়গায় হাঁটাহাঁটি করতে পেরেছিলেন ক্রিকেটাররা। প্রতিদিন এ রকম একবার করেই বের হওয়ার সুযোগ পাওয়ার কথা তাঁদের। কিন্তু গতকাল সেই সুযোগ হয়ে গেল দ্বিগুণ, সকাল-সন্ধ্যা দুই বেলাই বাইরে একটু ঘুরে আসতে পেরেছেন বাংলাদেশ দলের সদস্যরা। একই দিন দ্বিতীয় কভিড পরীক্ষার নমুনাও সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলের সঙ্গে যাওয়া মিডিয়া ম্যানেজার রাবীদ ইমাম, ‘যাঁর যাঁর রুমের দরজায় দাঁড়িয়ে নমুনা দিয়েছেন দলের সবাই। এদিন বাইরেও বের হতে দেওয়া হয়েছে দুইবার। সকাল এবং সন্ধ্যায় ৩০ মিনিট করে তিনটি গ্রুপে ভাগ হয়ে আমরা হাঁটতে বের হয়েছিলাম।’ একই হোটেলে আছে অস্ট্রেলিয়ার নারী নেটবল দলও। তাঁদেরও কোয়ারেন্টিনের একই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রাবীদ। সফরের ষষ্ঠ দিনে নেওয়া হবে তৃতীয় দফা কভিড পরীক্ষার নমুনা। তাতে নেগেটিভ হলে সপ্তম দিন থেকেই হোটেলের জিম ব্যবহার করার অনুমতি মিলবে। অষ্টম দিন থেকে পাঁচজনের একেকটি গ্রুপ যেতে পারবে মাঠের অনুশীলনেও।

 

মন্তব্য