kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

কিংসের একাধিপত্য চলছেই

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কিংসের একাধিপত্য চলছেই

ছবি : আবুল কাশেম হৃদয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভালো মাঠে রোবিনহো-বেতেরাকে আটকে রাখা মুশকিল। তাঁদের চোখে ঢাকার চেয়ে কুমিল্লার মাঠ চমৎকার। আর এই মাঠে গিয়ে বসুন্ধরা কিংসের দুই লাতিন ফরোয়ার্ড মেতেছেন গোল উৎসবে। তারা ৪-০ গোলে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রকে হারিয়ে ১১ ম্যাচে ৩১ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ন রেখেছে। ১০ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে শেখ রাসেল। দিনের অন্য ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিং ২-১ গোলে হারিয়েছে উত্তর বারিধারাকে। 

কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়াম এই মুহূর্তে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের সেরা ভেন্যু। ঢাকায় বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে এবড়োখেবড়ো মাঠে বল নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন, সে তুলনায় কুমিল্লায় ঘাসের মাঠে খেলা সহজ। অনুকূল পরিবেশে সেখানে পুরো আধিপত্য বজায় রেখে খেলে ম্যাচের ২৩ মিনিটে এগিয়ে যায় চ্যাম্পিয়নরা। রোবিনহোর বানিয়ে দেওয়া বলে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড রাউল বেতেরা গোল করে এগিয়ে নেন দলকে। প্রথমার্ধের শেষ দিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রোবিনহো, এই পাসটি বাড়ান তৌহিদুল আলম সবুজ। চ্যাম্পিয়নদের অমন একাধিপত্যের ম্যাচে শেখ রাসেলেরও করার কিছু ছিল না। কিংসের ফরোয়ার্ডদের মানের তুলনায় অনেক পিছিয়ে থাকা লোপেজ-বখতিয়ার-মোনেকেদের পক্ষে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। আগের দুই ম্যাচে জয়হীন থাকা শেখ রাসেল তাই ম্যাচে ফিরতে পারেনি।

তাই উল্টো আরো দুই গোল হজম করে বিরতির পর। ৭৪ মিনিটে ইরানি ডিফেন্ডার খালিদ শাফির পাস ধরে ব্যবধান বাড়ান, তাতে লক্ষ্যভেদ করেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড বেতেরা। এই দুই গোল নিয়ে রাউল বেতেরার গোলসংখ্যা হয়েছে ১০। ৮৩ মিনিটে এই আর্জেন্টাইনের বানিয়ে দেওয়া সুযোগ কাজে লাগান রোবিনহো। জোড়া গোলের সুবাদে ১২ গোল নিয়ে শীর্ষে আছেন এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। ১১ গোল নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের ওমর জোবে।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিং ২-১ গোলে হারিয়েছে উত্তর বারিধারাকে। ১০ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে আছে সাইফ স্পোর্টিং। তবে ২০ মিনিটে এগিয়ে যায় উত্তর বারিধারা। উজবেক মিডফিল্ডার ইভাজেনি কোচনেভের থ্রু পাসে আরিফ গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। ২৭ মিনিটে আরিফুর রহমানের বাঁ পায়ের জোরালো শট ফিরিয়ে দেন উত্তর বারিধারার ত্রাতা গোলরক্ষক মিতুল। ৩২ মিনিটে ফয়সাল আহমেদ ফাহিমের শট পোস্ট ঘেঁষে বাইরে গেলে সাইফের ম্যাচে ফেরার অপেক্ষা বাড়ে। টানা দুই ম্যাচ হারা সাইফ ম্যাচে ফেরে ৪৪ মিনিটে। ইয়াসির আরাফাতের থ্রু বল ধরে এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে নিখুঁত শটে দূরের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড জন ওকোলি।  

দ্বিতীয়ার্ধে বেশির ভাগ সময় খেলা মাঝমাঠেই সীমাবদ্ধ ছিল। এর মধ্যে সাইফ কয়েকটি সুযোগ তৈরি করলেও বল জালে পাঠাতে পারেনি। ৮০ মিনিটে ভালো একটি সুযোগ নষ্ট করে ফেডারেশনের রানার্স আপরা। ইকেচুকু কেনেথের পাস ধরে সিরাজউদ্দিন বাড়িয়েছিলেন ক্রস। গোলমুখ থেকে টোকা দেওয়ার কাজটুকু করতে পারেননি ৭৬ মিনিটে ফয়সাল আহমেদ ফাহিমের বদলি হয়ে নামা সাজ্জাদ। কিন্তু ৮৮ মিনিটে সেই আক্ষেপ ভুলিয়ে দিয়ে ম্যাচ উইনিং গোল করেন সাজ্জাদ। রহিম উদ্দিনের ক্রসে ডাইভিং হেডে লক্ষ্যভেদ করেন এই মিডফিল্ডার।

মন্তব্য