kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

রোমাঞ্চকর ফেরা পুলিশের

জিতেছে মোহামেডান

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : ১৮, ২০ ও ৪৯ মিনিটে টানা তিন গোল হজম করেও পুলিশ ম্যাচটা জিততে দেয়নি চট্টগ্রাম আবাহনীকে। ফাগুনের বিকেলে প্রত্যাবর্তনের অসাধারণ এক গল্প লিখে ম্যাচটা তারা৩-৩ গোলে ড্র করে ফিরেছে। ৫৮, ৭৫ এবং যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে পুলিশের টানা তিন গোল।

পিছিয়ে পড়েছিল মোহামেডানও। ৩ মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে ২-১ এ হারিয়েই দিয়েছে তারা ব্রাদার্সকে। ১১ মিনিটে জোসেফ নূরের গোলে এগিয়ে যাওয়ার পর ৬৯ মিনিট পর্যন্ত লিডটা ধরে রেখেছিল ব্রাদার্স। কিন্তু এর মিনিট তিনেকের মধ্যেই আব্দুল হাকিম বাপ্পি ও সোলেমান দিয়াবাতের লক্ষ্যভেদে ম্যাচটা বের করে নেয় মোহামেডান। আগের ম্যাচে পুলিশের প্রত্যাবর্তনের শুরু দুটি কর্নার থেকে। দুটিই নিয়েছিলেন কিরগিজ মিডফিড্ডার আহমেদভ। প্রথমটিতে লাফিয়ে ওঠে হেডে বল জালে পাঠান ফ্রেদেরিক পুদা। অন্যপ্রান্ত থেকে পরের কর্নারে একইভাবে লক্ষ্যভেদ ডিফেন্ডার ল্যান্সিন তোরের। পুলিশের সমতা ফেরানো শেষ গোলটাতে রোমাঞ্চ উপচে পড়েছে। বক্সের বাইরে থেকে পুদার আপাত নিরীহ একটা শট চট্টগ্রাম আবাহনী গোলরক্ষক গ্লাভসবন্দী করতে না পারলে সেই বলই পোস্টে ঠেলেছিলেন কমল বড়ুয়া। গোললাইনে দাঁড়িয়ে তখন ডিফেন্ডার মঞ্জুরুর রহমান। ২০১০ বিশ্বকাপের লুই সুয়ারেসকে মনে করিয়ে দিয়ে তিনি গোলরক্ষকের মত হাত দিয়ে ফিরিয়েছেন সেই বল। তাতে লাল কার্ড আর পেনাল্টি। কিন্তু আসামোয়া জিয়ানের মত ভুলটি করেননি পুলিশ স্ট্রাইকার বাল্লো ফামোসা। ঠান্ডা মাথায় তিনি বল জালে জড়িয়ে দিয়েছেন।

লিগে এর আগে ২ গোলে পিছিয়ে পড়েও সাইফ স্পোর্টিংকে হারিয়েছিল শেখ জামাল। পুলিশ কাল জয় না পেলেও ৩ গোল ফিরিয়ে দিয়ে মাঠ ছেড়েছে বীরদর্পে। অথচ দিনটা হতে পারতো রাকিব হোসেনের। এই উইঙ্গারের জোড়া গোলেই যে স্কোরলাইন ৩-০ করে ফেলেছিল চট্টগ্রাম। প্রথম গোলটা করেছিলেন নিক্সন গিলহের্মে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা