kalerkantho

শুক্রবার । ২০ ফাল্গুন ১৪২৭। ৫ মার্চ ২০২১। ২০ রজব ১৪৪২

রাসেল-মোহামেডান পয়েন্ট ভাগাভাগি

২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাসেল-মোহামেডান পয়েন্ট ভাগাভাগি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : লিগে তৃতীয় ম্যাচে এসে পয়েন্ট হারিয়েছে শেখ রাসেল। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মোহামেডানের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছে তারা। দ্বিতীয় ম্যাচে সাইফ স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই জিতেছে চট্টগ্রাম আবাহনী। নিক্সন গিলহের্মের একমাত্র গোল ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিয়েছে। মুন্সীগঞ্জ স্টেডিয়ামে কাল প্রথম ম্যাচে স্বাগতিক আরামবাগকে ১-০ গোলে হারিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা।

মোহামেডানের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েছিল রাসেল। বক্সের ভেতর জাফর ইকবালের শট ফেরাতে গিয়ে হাত লাগিয়ে ফেলেন সোহেল রানা। পেনাল্টি কিকে আশরাফুল ইসলামকে হারিয়েছেন সাদা-কালো স্ট্রাইকার সোলেমান দিয়াবাতে। প্রথমার্ধের শেষ দিকে এই গোল। তার আগে রাসেল গোলের সুযোগ তৈরি করেছিল, কিন্তু তা কাজে লাগাতে পারেনি। কাউন্টার অ্যাটাকে ওবি মোনেকের কাছ থেকে বল পেয়ে মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর নেওয়া জোরালো শট ফিরিয়ে দেন মোহামেডান গোলরক্ষক। তার আগে মোনেকের সঙ্গেই দারুণ দেওয়া-নেওয়া করে বক্সের ভেতর থেকে শট নিতে পারেননি জিয়ানকার্লো লোপেজ।

দ্বিতীয়ার্ধে সেই লোপেজই দলকে সমতায় ফিরিয়েছেন। বাঁ দিক থেকে বখতিয়ার দুশোবেকভের নেওয়া শট হেমন্ত ভিনসেন্টের মাথা ছুঁয়ে পোস্টের মুখে এলে লাফিয়ে আরেক হেডে সেই বল জালে পাঠিয়ে দিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার। এরপর লম্বা সময় পেয়েও অবশ্য জয়সূচক গোলটি বের করতে পারেনি সাইফুল বারীর দল। ৮৩ মিনিটে বদলি নামা মোহাম্মদ ইলিয়াস বল নিয়ে বক্সে ঢুকেও শট নিতে পারেননি। দুটি জয়ের পর রাসেলের এটি প্রথম ড্র। মোহামেডানের তিন ম্যাচে একটি করে জয়, হার ও ড্র। সাইফ ও চট্টগ্রাম আবাহনী মুখোমুখি হয়েছিল ফেডারেশন কাপ সেমিফাইনালের পর। সে ম্যাচে চট্টগ্রাম আবাহনীকে ৩-০ হারিয়ে ফাইনাল খেলা সাইফকে এদিন বেশ কোণঠাসা করেই রেখেছিল মারুফুল হকের চট্টগ্রাম আবাহনী। তেমন কোনো সুযোগই বের করতে পারেনি পল পুটের দল। ২৩ মিনিটে রাকিব হোসেনের কর্নারে দারুণ এক হেডে বল জালে জড়িয়ে দিয়েছেন চট্টগ্রাম আবাহনীর ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার নিক্সন। শেখ জামালের কাছে হার দিয়ে শুরুর পর মারুফুলের শিষ্যদের এটি টানা দ্বিতীয় জয়। সাইফ তিন ম্যাচে জয়, হার, ড্র—সবই দেখল। লিগে এখনো পর্যন্ত তিনে তিন জয় শুধু বসুন্ধরা কিংস ও আবাহনীর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা