kalerkantho

শনিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৪ রজব ১৪৪২

অ্যানফিল্ডে ৬৮ ম্যাচ পর হারল লিভারপুল

২৩ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অ্যানফিল্ডে ৬৮ ম্যাচ পর হারল লিভারপুল

অ্যানফিল্ড দুর্গই হয়ে উঠেছিল লিভারপুলের। প্রিমিয়ার লিগে টানা ৬৮ ম্যাচ নিজেদের মাঠে হারেনি তারা। ২০১৭ সালের ৩ এপ্রিল ক্রিস্টাল প্যালেসের কাছে ২-১ ব্যবধানে হারের পর অজেয়ই ছিল এখানে। প্রতিরোধটা ভাঙল পরশু। বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের বার্নলি হারিয়েছে ১-০ গোলে। হারের পাশাপাশি লিভারপুলকে পোড়াচ্ছে টানা চার ম্যাচ গোল করতে না পারাও। সর্বশেষ ২০০০ সালে জেরার্ড হুলিয়েরের লিভারপুল ব্যর্থ হয়েছিল চার ম্যাচে গোল করতে।

এদিকে কোপা দেল রে’তে কোরনিয়ার বিপক্ষে শেষ ৩২-এর ম্যাচে ২-০ গোলের ঘাম ঝরানো জয় পেয়েছে বার্সেলোনা। দুটি পেনাল্টি মিস করলেও অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচে গোল করেন উসমান দেম্বেলে ও মার্টিন ব্রাথওয়েট। এ ছাড়া লা লিগায় লুই সুয়ারেসের জোড়া গোলে এইবারকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়েছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। ১৭ ম্যাচে ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থানটা আরো সুসংহত হলো তাদের। রিয়াল মাদ্রিদ ১৮ ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে আছে দুইয়ে।

অ্যানফিল্ডে প্রায় চার বছর প্রিমিয়ার লিগে হারেনি লিভারপুল। এই চার বছরে তারা জিতেছে চ্যাম্পিয়নস লিগ। ৩০ বছর পর স্বাদ পেয়েছে প্রিমিয়ার লিগেরও। নিজেদের মাঠে চেলসির ৮৬ ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড ভাঙার দিকেও এগিয়ে চলেছিল দাপটে। সেই অভিযানটা থামল পরশু। ৮৩ মিনিটে অ্যাশলে বার্নসের পেনাল্টিতে তাদের হারায় বার্নলি। এরপর লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপের হতাশা, ‘এটা অনেক, অনেক বড় আঘাত। দায়টা আমার, এটাই সহজ ব্যাখ্যা।’ ১৯ ম্যাচে ৩৪ পয়েন্ট নিয়ে লিভারপুল এখন চার নম্বরে। শীর্ষে থাকা ম্যানইউর পয়েন্ট ১৯ ম্যাচে ৪০। তাই শিরোপা ধরে রাখা নিয়ে শঙ্কায় ক্লপ, ‘শেষ তিন বা চার ম্যাচে আমরা গোল পাইনি। এই পরিস্থিতিতে শিরোপা অভিযান নিয়ে কথা বলব? ব্যাপারটা বোকামির হয়ে যায়।’

এবারের কোপা দেল রে’তে কোরনিয়া বিদায় করেছিল অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদকে। পরশু বার্সেলোনাকেও প্রায় পেয়ে বসেছিল তৃতীয় বিভাগের দলটি। নিষেধাজ্ঞার জন্য খেলতে পারেননি লিওনেল মেসি। দলের প্রাণভোমরাকে ছাড়া একের পর এক সুযোগ নষ্ট করে গেছে কাতালানরা। এমনকি গোল পায়নি দুটি পেনাল্টি থেকেও! ৩৯ মিনিটে মিরোলাম পিয়ানিচের স্পটকিক ডান দিকে ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক রামোন। ৮০ মিনিটে উসমান দেম্বেলের দুর্বল পেনাল্টিও ঠেকিয়ে দেন তিনি। নির্ধারিত ৯০ মিনিটে গোল না হওয়ায় খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। ৯২ মিনিটে দেম্বেলের দূরপাল্লার বুলেট শটে এগিয়ে যায় বার্সা। ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজার কিছুক্ষণ আগে মার্টিন ব্রাথওয়েটের গোলে স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে রোনাল্ড কোম্যানের দল। ইএসপিএন

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা