kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭। ৪ মার্চ ২০২১। ১৯ রজব ১৪৪২

৩১০ রানে চোখ ক্যারিবীয়দের!

১৭ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৩১০ রানে চোখ ক্যারিবীয়দের!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সাদা বোর্ডে লেখা, টার্গেট ৩১০। বোঝা গেল ম্যাচ সিনারিও প্র্যাকটিসে শিষ্যদের ফিল সিমন্স লক্ষ্যটা বেঁধে দিয়েছেন আসন্ন ওয়ানডে সিরিজের কথা ভেবেই। ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামের উইকেটে তিনশোর্ধ্ব রানকেই জয়ের মানদণ্ড মনে করছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোচ।

বিসিবির একাডেমি মাঠের দৈর্ঘ্যে পূর্ণদৈর্ঘ্য ম্যাচ খেলার উপায় নেই। উইকেটের পেছনের বাউন্ডারি খুবই ছোট। আবার এক দিকের মিড উইকেট সীমানা তো ব্রিসবেনের গ্যাবার চেয়েও বড়! অবশ্য এ মাঠ তো আর ম্যাচ খেলার জন্য নয়। কিন্তু সফরকারীরা অনুশীলন করে থাকে এ মাঠে। বায়ো বাবলের কারণে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার উপায় নেই জেনে নিজেরাই ম্যাচ পরিস্থিতি ভেবে ব্যাটিং-বোলিং করেছে।

এক প্রান্ত থেকেই বোলিং হয়েছে। সিমন্স কড়া হেডমাস্টারের মতো ঠায় দাঁড়িয়ে থেকেছেন বোলারের পেছনে। এর মধ্যে ব্যাটসম্যান কিংবা ফিল্ডারের শরীরী ভাষায় গড়িমসি দেখলে বকাঝকা করতেও ছাড়েননি। ফিল্ডিং সাজানোর সময়ও বোলার, এমনকি অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদকেও নানা পরামর্শ দিচ্ছিলেন সিমন্স। যে দলের সাতজন অভিষেকের অপেক্ষায় উতলা, সে দলের কোচকে একটু বেশিই নজরদারি করতে হয়।

অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা একঝাঁক ক্যারিবীয়র একজন কাইল মায়ার্স। বাঁ হাতে ব্যাট করলেও এ অলরাউন্ডার বোলিং করেন ডান হাতে। সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতেই অভিষিক্ত হতে পারেন ভেবে রোমাঞ্চিত মায়ার্স, ‘জাতীয় দলে খেলাটা আমার কাছে স্বপ্নের মতো ব্যাপার। বড় চ্যালেঞ্জও।’ অভিজ্ঞদের অনেকের অনুপস্থিতি নতুনদের জন্য বড় সুযোগ বলে মনে করেন তিনি, ‘আমার তো মনে হয় এটা আমার মতো তরুণদের জন্য দারুণ সুযোগ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার।’ তবে মিরপুরের উইকেট দেখে বুঝে গেছেন মায়ার্সের নিজের ভূমিকা, ‘এখানে আমার ব্যাটিংটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে মনে হচ্ছে।’ কাইল মায়ার্সের এমন ভাবনার পেছনে যুক্তিও আছে। গতকালের ম্যাচ সিনারিও প্র্যাকটিসে স্পিনের বিপক্ষে স্বচ্ছন্দই দেখা দেখা গেছে তাঁকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা