kalerkantho

রবিবার। ২২ ফাল্গুন ১৪২৭। ৭ মার্চ ২০২১। ২২ রজব ১৪৪২

‘দল নির্বাচনী’ ম্যাচে হাসান ঝলক

১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : পুরো টুর্নামেন্টে ব্যাটে তেমন রান ছিল না তবে জেমকন খুলনার হয়ে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের ফাইনালে হার না মানা ৭০ রানের ইনিংসে দলের শিরোপা জয়ের পথ খুলেছিলেন মাহমুদ উল্লাহ। এবার বিকেএসপিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের প্রাথমিক দলে থাকা ক্রিকেটারদের নিজেদের মধ্যে প্রস্তুতি ম্যাচেও অপরাজিত ৫১ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেললেন তিনি। সুবাদে তাঁর নেতৃত্বাধীন একাদশ ৪০ ওভারে নির্ধারিত ম্যাচে ৫ উইকেটে হারিয়েছে তামিম ইকবাল একাদশকে।

নিজেদের মধ্যে প্রস্তুতি ম্যাচে অপরাজিত ৫১ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেললেন মাহমুদ উল্লাহ। সুবাদে তাঁর নেতৃত্বাধীন একাদশ ৪০ ওভারে নির্ধারিত ম্যাচে ৫ উইকেটে হারিয়েছে তামিম ইকবাল একাদশকে।

যে ম্যাচটি আসলে প্রস্তুতি ম্যাচের আড়ালে দল নির্বাচনী ম্যাচও হয়ে উঠেছিল। আগামীকাল আছে আরেকটি ম্যাচ। নির্বাচকরা এ দুই ম্যাচ দেখেই ওয়ানডে স্কোয়াড চূড়ান্ত করার ঘোষণা দিয়ে রাখায় দলে ফেরার লড়াইয়ে থাকাদের সঙ্গে একেবারে নবীনদেরও পারফরম্যান্সের দ্যুতি ছড়ানোর বাড়তি তাগিদ অনুভব করে থাকার কথা। এ ক্ষেত্রে দুর্দান্ত বোলিংয়ে দলে থাকার জোর দাবি জানিয়ে রেখেছেন মাহমুদের দলেরই পেসার হাসান মাহমুদ। ছয় ওভার বোলিং করে একটি মেডেনসহ ২১ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট। এর মধ্যে তাঁর শিকার তামিম (২৮) ও নাজমুল হোসেন শান্ত (২৭)। আরেক পেসার শরীফুল ইসলামও প্রতিপক্ষকে অল্প রানে গুটিয়ে দেওয়ায় রেখেছেন দারুণ ভূমিকা। ২৭ রান খরচায় এ বাঁহাতি পেসার ফিরিয়েছেন সৌম্য সরকার (২৪) ও আফিফ হোসেনকে (৩৫)। ৮৩ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর যে দুজন মিলে গড়েছিলেন তামিম একাদশের একমাত্র পঞ্চাশোর্ধ্ব জুটি। জবাব দিতে নেমে মাহমুদ একাদশের হয়ে ছয় ওভারে ৩১ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকা সাকিব আল হাসান রান আউট হয়েছেন ৯ রান করে। তবে ওপেনার নাঈম শেখের ৪৩ রানের ইনিংসের পর অধিনায়কের ফিফটিতে অনায়াস জয়ই ধরা দিয়েছে তাদের হাতে। রান করে ম্যাচ জেতালেও মাহমুদ কৃতিত্ব দিলেন নিজ দলের পেসারদেরই, ‘শুরুতে উইকেটে মুভমেন্ট ছিল। নতুন বলে আমাদের বোলাররাও ভালো জায়গায় বোলিং করে প্রতিপক্ষকে চাপে রেখেছিল। আমি বলব, দিনটি বোলারদেরই ছিল।’

সংক্ষিপ্ত স্কোর

তামিম ইকবাল একাদশ : ৩৭.২ ওভারে ১৬১ (আফিফ ৩৫, তামিম ২৮, নাজমুল ২৭, সৌম্য ২৪, মিঠুন ১৬; হাসান ৪/২১, শরীফুল ২/২৭, আল-আমিন ২/৩২, মিরাজ ১/১৫, সাকিব ০/৩১)।

মাহমুদ উল্লাহ একাদশ : ৩৬.৫ ওভারে ১৬২/৫ (মাহমুদ ৫১*, নাঈম ৪৩, মুশফিক ২৮, মিরাজ ১৩*, সাকিব ৯; মেহেদী ১/১৬, নাসুম ১/২৯, সাইফ উদ্দিন ১/২৯, মুস্তাফিজ ১/৩৮)।

ফল : মাহমুদ উল্লাহ একাদশ ৫ উইকেটে জয়ী।

মন্তব্য