kalerkantho

রবিবার। ২২ ফাল্গুন ১৪২৭। ৭ মার্চ ২০২১। ২২ রজব ১৪৪২

অবশেষে

লয়েডের অনুপ্রেরণা নিয়ে খোলা হাওয়ায়

১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



লয়েডের অনুপ্রেরণা নিয়ে খোলা হাওয়ায়

ছবি : মীর ফরিদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : অনুশীলন শুরুর আগে মানববৃত্ত তৈরি করে দাঁড়ালেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট দলের সবাই। মিনিটখানেকের মতো পার করলেন নীরবতায়। খোঁজ নিয়ে জানা গেল, এক মিনিটের প্রার্থনায় ডুবে গিয়েছিলেন তাঁরা। ঢাকায় আসার পর চার দিন কঠোর আইসোলেশনে হোটেলে রুমবন্দি হয়ে থাকার পর ক্যারিবীয়রা খোলা হাওয়া গায়ে মাখলেন সমবেত প্রার্থনায় একজোট হয়েই। কাল প্রথম অনুশীলন শুরুর আগেই অবশ্য পুরো শিবিরে অন্য রকম এক অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে এসেছে কিংবদন্তি ক্লাইভ লয়েডের খোলা চিঠিও।

চিঠিতে নিজের টেস্ট অভিষেকের ঘটনাপ্রবাহ তুলে ধরে এই ক্যারিবীয় দলটির তরুণদের তাতিয়ে তুলতে চেয়েছেন ‘বিগ ক্যাট’ নামের সর্বকালের সেরা ক্যারিবীয় অধিনায়ক। ১৯৬৬ সালের মুম্বাই (তখনকার বোম্বে) টেস্টে সিমুর নার্সের চোটে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। তাও আবার ম্যাচ শুরুর মাত্র ৪৫ মিনিট আগে জেনেছিলেন যে অভিষেক হতে যাচ্ছে তাঁর। জোড়া ফিফটি করে সেই যে দলে জায়গা পাকা করে নেন লয়েড, আর তাঁকে পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। বর্তমান দলের তরুণদের সেভাবেই সুযোগ লুফে নিতে বলেছেন তিনি চিঠিতে, ‘তোমাদের বিষয়টি এমনভাবে নেওয়া উচিত যে এটি ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে শূন্যতা পূরণের ব্যাপার নয়। বরং নিজেদের জায়গা পাকা করার সুযোগ। যোগ্যতার ভিত্তিতেই তোমরা সুযোগ পেয়েছ। বিশ্বকে নিজের প্রতিভা ও দক্ষতা দেখানোর দারুণ এক সুযোগ এটি। সবাইকে দেখানোর সুযোগ যে তোমরা দ্বিতীয় সারির ক্রিকেটার নও। তোমরাও শীর্ষ সারিতে উঠে আসতে পারো।’

এই চিঠি যে কতটা উজ্জীবনী শক্তির সঞ্চার করেছে, সেটি সন্ধ্যায় ওয়ানডে অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদের ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনেই ফুটে উঠেছে, ‘চিঠিটি এমন একজনের কাছ থেকে এসেছে, যিনি আমাদের কিংবদন্তি। যখন চারদিকে শুধুই নেতিবাচক কথাবার্তা, তখন এ রকম কিছুই শুনতে চাইবেন আপনি। যখন তাঁর মতো কেউ এ রকম কিছু বলেন, তখন নিজের ওপরও বিশ্বাস স্থাপন করতে পারেন আপনি। দলের সবার জন্যই দারুণ অনুপ্রেরণার ব্যাপার এটি। দারুণ কিছু করে আমরা তাঁকে এর প্রতিদান দিতে পারলে ভালো হয়।’

যদিও বাংলাদেশে ক্যারিবীয়দের সাম্প্রতিক রেকর্ড সুবিধার নয়। সেটি জানা থাকার পরও বিচলিত নন জেসন মোহাম্মদ, ‘এটি ঠিক যে গত কয়েকবার তারাই (সিরিজ) জিতেছে। এবার তরুণ দল হলেও যদি আমরা ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিংয়ে নিজেদের দক্ষতা প্রকাশে ধারাবাহিক হতে পারি, তাহলে আমাদের ম্যাচ জেতা সম্ভব।’

চিঠিটি এমন একজনের কাছ থেকে এসেছে, যিনি আমাদের কিংবদন্তি। যখন চারদিকে শুধুই নেতিবাচক কথাবার্তা, তখন এ রকম কিছুই শুনতে চাইবেন আপনি। যখন তাঁর মতো কেউ এ রকম কিছু বলেন, তখন নিজের ওপরও বিশ্বাস স্থাপন করতে পারেন আপনি। দলের সবার জন্যই দারুণ অনুপ্রেরণার ব্যাপার এটি। দারুণ কিছু করে আমরা তাঁকে এর প্রতিদান দিতে পারলে ভালো হয়।

জেসন মোহাম্মদ, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে অধিনায়ক

সেই লক্ষ্য সামনে রেখে গতকাল শুরু অনুশীলনে ক্যারিবীয়রা এলো দুই ভাগে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এলো টেস্ট দল। দুপুর দেড়টার দিকে মিরপুরের একাডেমি মাঠে দেখা গেল ওয়ানডে স্কোয়াডকে। দুই স্কোয়াডের অনুশীলনে ছিল ভিন্ন মেজাজ। টেস্ট ক্রিকেটাররা স্কিল অনুশীলনে মনোযোগী থাকলেন তো ওয়ানডে দলের সদস্যরা নজর দিলেন ফিটনেসে। গা গরম করে নেওয়ার পর ফুটবল খেলে টেস্ট দল। এরপর নেটে শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের টানা বোলিংয়ে সঙ্গী আরেক পেসার রেমন রেইফার। পরে নেটে বোলিংয়ে ঘাম ঝরাতে দেখা যায় অন্য দুই পেসার কেমার রোচ ও আলজারি জোসেফকে। এক নেটে যখন পেসাররা বোলিং করে যাচ্ছেন, তখন অন্য নেটে ছিলেন স্পিনাররা। রাকিম কর্নওয়াল ও কাভেম হজের পর হাত ঘোরান অন্য দুই স্পিনার জোমেল ওয়ারিকান ও ভিরাসামি পেরমল। নেটে ব্যাটিং করেছেন টেস্ট অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েট থেকে শুরু করে অন্যরা। এরপর ওয়ানডে দলের সঙ্গে অনুশীলনে আসেন হেড কোচ ফিল সিমন্সও। তবে স্কিল নয়, প্রথম দিনের অনুশীলনে কন্ডিশনের সঙ্গে ধাতস্থ হওয়ার দিকেই বেশি মনোযোগ ছিল তাঁদের। তাই ট্রেনার লম্বা সময় ধরে একের পর এক ড্রিল করিয়ে যান ওয়ানডে ক্রিকেটারদের।

মন্তব্য