kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ মাঘ ১৪২৭। ২৮ জানুয়ারি ২০২১। ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

করোনায় আক্রান্ত ৪ মেয়ে ফুটবলার

২ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনায় আক্রান্ত ৪ মেয়ে ফুটবলার

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফুটবল ফেডারেশন ভবনের চারতলায় মেয়েদের ক্যাম্প। ওখানে প্রবেশে আগে থেকেই কড়াকড়ি। তবে এই মুহূর্তে ওই তলাটি পুরো ভবন থেকেই একরকম বিচ্ছিন্ন। কারণ ক্যাম্পের মেয়েদের চারজন করোনা আক্রান্ত। ৮-১০ দিন ধরে তাঁরা সেখানেই আইসোলেশনে আছেন। এর মধ্যে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন এবং কয়েকজন কর্মচারীও আক্রান্ত হয়েছেন। তাই এ নিয়ে বাফুফে ভবনের বাতাসে আশঙ্কাও মিশে।

ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম অবশ্য জানিয়েছেন, অন্য মেয়েরা ঝুঁকিমুক্তই আছেন, ‘ওদেরকে (করোনা আক্রান্ত) যথাযথভাবে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। ডাক্তারের নিয়মিত পর্যবেক্ষণের মধ্যে আছে তারা। আজও চারজনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে। উপসর্গ নেই বলেই ওদের হাসপাতালে পাঠানো হয়নি।’ করোনা আক্রান্ত চারজন হলেন সিরাত জাহান, আনাই মোগিনি, রেহেনা ও শামসুন্নাহার জুনিয়র। শেষ তিনজন নাসরিন স্পোর্টস একাডেমির খেলোয়াড়। এই একাডেমির পুরো দলটি বাফুফে ভবনে থেকেই লিগে অংশ নিচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, তাঁরা জাতীয় দলের কোচিংও পাচ্ছেন। জাতীয় দলের কোচ গোলাম রব্বানীর অধীনেই তাঁদের অনুশীলন চলছে। শুধু ম্যাচের দিন গিয়ে নাসরিন স্পোর্টসের জার্সি পরে তাঁরা লিগ খেলতে নেমে যাচ্ছেন। আবু নাঈম জানিয়েছেন, ‘জাতীয় দলের স্বার্থে অন্য ক্লাবগুলোও তা মেনে নিয়েছে।’

দ্বিতীয় লেগে ক্যাম্পে থাকা সিরাত জাহানকে সই করিয়েছে কিংস। কিন্তু তাঁকে নিজেদের ক্যাম্পেই তুলতে পারেনি লিগ টেবিলের শীর্ষে থাকা দলটি। প্রথম করোনা পরীক্ষাতেই পজিটিভ হয় সিরাত। এরপর তিনি বাফুফের ক্যাম্পেই আইসোলেশনে আছেন। আনাই মোগিনি অবশ্য দ্বিতীয় লেগে নাসরিনের হয়ে মাঠেও নেমেছেন। এরপর আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। এভাবে আক্রান্তের সংখ্যাটা দিন দিন বাড়ে কি না সেই ভয় থাকছেই। কোচ গোলাম রব্বানী জানিয়েছেন চারজনকে আইসোলেশনে রেখে অন্যদের নিয়ে তাঁরা অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছেন। বাফুফে ক্যাম্পে এই মুহূর্তে ৩৫ জন খেলোয়াড় আছেন। দুজন বাদে সবাই লিগে খেলছেন। নাসরিনের হয়েই খেলছেন বেশির ভাগ। এফসি উত্তরবঙ্গ এবং আনোয়ারা স্পোর্টিংয়েরও আছেন কয়েকজন। লিগ শুরুর আগেই বাফুফে মেয়েদের এই ক্যাম্পটা শুরু করেছিল। কিন্তু লিগ শুরু হতেই বসুন্ধরা কিংস তাদের খেলোয়াড়দের নিজ ক্যাম্পে নিয়ে যায়। অন্য দলগুলোর খেলোয়াড়দের আশ্রয়স্থল বাফুফে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা