kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সেনাবাহিনীকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন অনূর্ধ্ব-২১

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেনাবাহিনীকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন অনূর্ধ্ব-২১

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফাইনালটা উপভোগ্য হলো। জুনিয়রদের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়ে সেনাবাহিনীর সমতায় ফেরার লড়াইটা ছিল দেখার মতো। তবে শেষ হাসি আশরাফুল ইসলামদেরই। ম্যাচের শুরুতেই ২ গোলে এগিয়ে গিয়ে সেই লিডটা হারায় তাঁরা খেলা শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট বাকি থাকতে। তবে ৫৮ মিনিটে পেনাল্টি স্ট্রোক থেকে আশরাফুলের গোল ৩-২ ব্যবধানে জয় এনে দিয়েছে অনূর্ধ্ব-২১ সবুজ দলকে।

আশরাফুলের জোড়া গোল। ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে পেনাল্টি কর্নার থেকে তিনিই প্রথম এগিয়ে দিয়েছিলেন সবুজ দলকে। সেনাবাহিনী সেই গোলের ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার আগেই রাজীব দাসের রিভার্স হিটে স্কোর ২-০ হয়ে যায়। দ্বিতীয় কোয়ার্টারে ব্যবধান কমানোর সুযোগ পেয়েও তা নষ্ট করেছেন তানজিম আহমেদ ও আহসান হাবিব। ১৭ মিনিটে তানজিমের হিট পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। ২১ মিনিটে ফাঁকায় থেকে পোস্টে মারতে পারেননি হাবিব। এই অর্ধে দুই দলই পিসি পেয়েছে, কিন্তু কাজে লাগাতে পারেনি। তৃতীয় কোয়ার্টারে ম্যাচে ফিরতে মরিয়া হয়ে ওঠে সেনাবাহিনী। ফরোয়ার্ডে মিলন হোসেন, আব্দুল মালেককে সামলানোটা তখন বড় পরীক্ষা হয়ে দাঁড়ায় অনূর্ধ্ব-২১ দলের ডিফেন্ডারদের জন্য। ৪৯ মিনিটে হাবিবের একটি হিট দারুণ দক্ষতায় ফিরিয়ে পোস্ট অক্ষত রাখেন সবুজ দলের গোলরক্ষক বিপ্লব কুজুর।

শেষ কোয়ার্টারে আর তা সম্ভব হয় না তাঁর। ৫৩ মিনিটে মালেককে ফেরাতে গিয়ে ফাউলই করে বসেন তিনি। ফলে পেনাল্টি স্ট্রোক পায় সেনাবাহিনী। সেখান থেকে সাব্বির রানা ব্যবধান ২-১ করেন। এর দুই মিনিটের মধ্যে মিলনের দারুণ এক রিভার্স হিটে ম্যাচে সমতা ফিরে আসে। শেষ পাঁচ মিনিটে ম্যাচটি তাই যে কারোরই হতে পারত। ৫৮ মিনিটে সবুজ দল পেনাল্টি কর্নার পেয়ে গেলে তাদের সম্ভাবনা বাড়ে। সেনা ডিফেন্ডারদের দ্বিধায় ফেলে আশরাফুলের বদলে ড্র্যাগ করেন মাহবুব হোসেন। সেই বল এক ডিফেন্ডারের হাতে লাগায় স্ট্রোক। আশরাফুল গোল করেন সেখান থেকে। টুর্নামেন্টে অনূর্ধ্ব-২১ দলের অধিনায়কের সেটি পঞ্চম গোল। টুর্নামেন্ট সেরা হয়েছেন অবশ্য সেনাবাহিনীর মিলন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা