kalerkantho

সোমবার। ৪ মাঘ ১৪২৭। ১৮ জানুয়ারি ২০২১। ৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

টিকা নিয়ে ডিপিএল!

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



টিকা নিয়ে ডিপিএল!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : কেউ আশা দেখান, আবার কেউ নিরাশ করেন। বেশির ভাগ ক্রিকেটারের আয়-রোজগারের প্রধান উৎস ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল) নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে আশা-নিরাশার এই দোলাচল। এই সেদিন বর্তমান বাস্তবতায় স্থগিত গত মৌসুমের আসরটি আয়োজনের সম্ভাবনা একরকম নাকচই করে দিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) পরিচালক আকরাম খান। তবে আরেক পরিচালক কাজী ইনাম আহমেদ গতকাল আবার শোনালেন আশার কথা। ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা সিসিডিএম প্রধানের সেই আশায় অবশ্য অনেক ‘যদি-কিন্তু’ আছে। ডিপিএল আয়োজনের জন্য যে তাঁরা এখন টিকা আসার অপেক্ষায়।

টিকা না আসা পর্যন্ত আসরটি আয়োজন কার্যত অসম্ভব বলেও ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন তিনি, ‘বাংলাদেশ সরকার বলছে একটি ভ্যাকসিন দ্রুত আসার সম্ভাবনা রয়েছে। সে ক্ষেত্রে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করব সব খেলোয়াড়কে ভ্যাকসিন দিয়ে ডিপিএল আয়োজনের। আসরটির সঙ্গে সম্পৃক্ত সবাইকেই ভ্যাকসিন দিয়ে খেলা পরিচালনা করতে পারি কি না, তা নিয়ে ভাবছি আমরা।’ টিকা কবে আসবে, তা এখনো নিশ্চিত নয়। তাই ডিপিএল আবার মাঠে নামানোর সম্ভাব্য সময় নিয়েও স্পষ্ট কিছু বললেন না সিসিডিএম প্রধান।

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ শেষ হবে ১৮ ডিসেম্বর। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সফর দিয়ে জানুয়ারিতে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটও ফেরার কথা আছে। তাই দিনক্ষণ নির্ধারণও স্থগিত করে রাখা হয়েছে বলে মনে হতেই পারে ইনামের কথায়, ‘এখনই বলতে পারছি না। কারণ জানুয়ারিতে আমাদের একটি আন্তর্জাতিক সিরিজ আছে। তা ছাড়া ব্যবস্থাপনার দিক থেকে বিসিবি কতটা কী করতে পারবে, সেটিও একটি ব্যাপার।’ অর্থাৎ ফেব্রুয়ারি-মার্চের আগে ডিপিএল হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই দেখা যাচ্ছে না।

তত দিনে টিকা আসে কি না, মূল বিবেচ্য তো সেটিও। তবে এসে গেলে আগামী বছরই দুটি ডিপিএল আয়োজনের ভাবনার কথাও বললেন সিসিডিএম প্রধান, ‘আমাদের বেশির ভাগ ক্রিকেটারের এটিই কিন্তু উপার্জনের জায়গা। তাই দরকার হলে এক বছরের মধ্যেই দুটি ডিপিএল করতে পারি আমরা। সে ক্ষেত্রে হয়তো মাঝখানে সাত-আট মাসের ব্যবধান থাকবে।’ সে ক্ষেত্রে ম্যাচসংখ্যা কমানোর ভাবনার কথাও বলেছেন ইনাম, ‘দুটি আসরই সিঙ্গেল লিগ করা যেতে পারে, যাতে খেলার মোট সংখ্যা কমে যায়।’

ম্যাচসংখ্যা কমিয়ে একই বছরে দুটি ডিপিএল করলেও মাঝখান থেকে একটি আসর ঠিক গায়েব হয়ে যাবে। স্থগিত আসরটি গত মৌসুমের। এরই মধ্যে শুরু হয়ে যাওয়া নতুন মৌসুমে স্থগিত আসরটিই আগে শেষ করার পক্ষে সিসিডিএম প্রধান।

মন্তব্য