kalerkantho

শনিবার । ৯ মাঘ ১৪২৭। ২৩ জানুয়ারি ২০২১। ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪২

পেরেক-বিটুমিনে ট্র্যাক ঝালিয়ে আসর!

২৬ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পেরেক-বিটুমিনে ট্র্যাক ঝালিয়ে আসর!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : অ্যাথলেটিক ট্র্যাকে ছয় ইঞ্চি পেরেক মারার কথা কেউ কবে শুনেছে! দেশের অ্যাথলেটিকসে সব অদ্ভুতুড়ে কাণ্ড। যে ট্র্যাকে দৌড়ানোর কথা, তার ওপর এখন হাঁটাই বিপজ্জনক। ছয় বছর আগে বাতিল হওয়া এই ট্র্যাকে পেরেক মেরে কিংবা কোথাও বিটুমিন দিয়ে ঝালিয়ে নিয়ে বঙ্গবন্ধু ৩৬তম জাতীয় জুনিয়র অ্যাথলেটিকস আয়োজনের চ্যালেঞ্জ নিয়েছে ফেডারেশন।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে আগামীকাল থেকে হবে দুই দিনব্যাপী জাতীয় জুনিয়র অ্যাথলেটিকস। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ট্র্যাকের দুরবস্থার কারণে এই আয়োজন আর্মি স্টেডিয়ামে করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ফেডারেশন। সেখানে খরচ বেশি বিধায় তারা আবার ফিরেছে বঙ্গবন্ধুতে। অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রকিবের মুখে সেই খরচের দোহাই, ‘আমরা হিসাব করে দেখেছি, আর্মি স্টেডিয়ামে করলে আমাদের ২০ লাখ টাকা খরচ হবে। সেটা অনেক টাকা, অথচ কোনো স্পন্সর ছাড়া এই জুনিয়র মিট করছি। তা ছাড়া ওই ভেন্যুর (আর্মি স্টেডিয়াম) আশপাশে অ্যাথলেটদের আবাসনের ব্যবস্থা নেই। তাই বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের ট্র্যাক সংস্কার করে এই মিট করার চেষ্টা করছি। ট্র্যাকের যেসব জায়গায় ফেটে গিয়ে হাঁ হয়ে গেছে, সেখানে পেরেক মেরে, কোথাও ঝালাই করে মোটামুটি একটা অবস্থায় আনা হচ্ছে।’

এই আসরে ৬৪ জেলা, আট বিভাগসহ বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ড থেকে পাঁচ শ অ্যাথলেটের অংশ নেওয়ার কথা। মোট ৪১টি ইভেন্ট হবে চারটি বয়স বিভাগে। ফেডারেশন কর্তাদের দাবি অনুযায়ী, তরুণ অ্যাথলেটরা এই আয়োজনের জন্য মুখিয়ে ছিলেন। তাঁরা প্রস্তুতি নিয়েই অংশ নিচ্ছেন এই জুনিয়র মিটে। করোনাকালে যেকোনো ক্রীড়া আসরের আগে অ্যাথলেটদের করোনা পরীক্ষা জরুরি। কিন্তু স্বাস্থ্য সুরক্ষার জরুরি কাজ করারও সংগতি নেই ফেডারেশনের। সম্পাদক আব্দুর রকিব বলেছেন, ‘প্রত্যেকের পরীক্ষা করাতে সাড়ে তিন হাজার টাকা করে লাগবে। অত টাকা তো নেই, তাই পরীক্ষা করানো সম্ভব নয়। তবে যাদের উপসর্গ থাকবে, তাদের খেলার বাইরে রাখা হবে।’ 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা