kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ১ ডিসেম্বর ২০২০। ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

রিয়ালের মুখরক্ষা, লিভারপুলের দুশ্চিন্তা

২৯ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রিয়ালের মুখরক্ষা, লিভারপুলের দুশ্চিন্তা

চ্যাম্পিয়নস লিগে কখনো টানা চার ম্যাচ হারেনি রিয়াল মাদ্রিদ। সেই শঙ্কাই পেয়ে বসেছিল পরশু। বরুশিয়া মুনশেনগ্লাডবাখের বিপক্ষে ৮৬ মিনিট পর্যন্ত পিছিয়ে ছিল ২-০ গোলে। শেষ কয়েক মিনিটের রোমাঞ্চে ২-২ সমতায় মাঠ ছেড়ে মুখরক্ষা ১৩ বারের চ্যাম্পিয়নদের। অপর ম্যাচে মিডজিল্যান্ডকে ২-০ গোলে হারিয়েও দুশ্চিন্তায় লিভারপুল। এই ম্যাচে হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে মাঠ ছাড়েন ব্রাজিলিয়ান ফাবিনহো। ফন ডাইকের পর সেন্টারব্যাক পজিশনে খেলা আরেকজনকে হারানোয় কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপের।

৩৩ মিনিটে খেলার ধারার বিপরীতে রিয়ালের বিপক্ষে প্রথম গোল বিশ্বকাপজয়ী লিলিয়ান থুরামের ছেলে মার্কাস থুরামের। এরপর মার্কাস অ্যাসেনসিওর দুর্দান্ত দুটি প্রচেষ্টা রুখে দেন গোলরক্ষক ইয়ান সমের। ৫৮ মিনিট প্লিয়ার শট থিবো কর্তোয়া আটকালেও ফিরতি বল জালে জড়িয়ে ব্যবধান ২-০ করেন থুরামই।

ভিনিসিয়াস জুনিয়র এল ক্লাসিকোর পর ব্যর্থ এই ম্যাচেও। মেজাজ হারিয়ে করিম বেনজিমা বিরতিতে টানেলে ভিনিসিয়াসকে পাস না বাড়ানোর কথা বলছিলেন সতীর্থদের! ৮৭ মিনিটে বাইলাইন থেকে কাসেমিরোর হেড পেয়ে বাইসাইকেল কিকে এক গোল ফেরান বেনজিমা। ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে সের্হিয়ো রামোসের বাড়ানো বল আলতো টোকায় জালে জড়িয়ে ২-২ সমতা ফেরান কাসেমিরো।

মিডজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৫৫ মিনিটে ডিয়েগো জোতার গোলে এগিয়ে যায় লিভারপুল। ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে মো সালাহর পেনাল্টিতে ২-০ ব্যবধানের জয়ে মাঠ ছাড়ে তারা। অপর ম্যাচে সলজবুর্গের বিপক্ষে ৫১ মিনিট পর্যন্ত ২-১ গোলে পিছিয়ে ছিল অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। ৫২ ও ৮৫ মিনিটে জোড়া গোলে ৩-২ ব্যবধানের অসাধারণ জয় এনে দেন জোয়াও ফেলিক্স। ২৯ মিনিটে প্রথম গোলটি করেছিলেন মার্কোস লরেন্তে। বায়ার্ন মিউনিখ চ্যাম্পিয়নস লিগে টানা ১৩তম ম্যাচ জিতলেও ঘাম ঝরাতে হয়েছে মস্কোয়। ৭৮ মিনিট পর্যন্ত লোকোমোতিভ মস্কোর বিপক্ষে ১-১ গোলে সমতা ছিল ম্যাচে। ৭৯ মিনিটে জোসুয়া কিমিচের গোলে ২-১ ব্যবধানের জয়ে মাঠ ছাড়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। এএফপি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা