kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জুনিয়র এশিয়া কাপের প্রস্তুতিতে দেরি

১ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জুনিয়র এশিয়া কাপের প্রস্তুতিতে দেরি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ‘ভারত অনেক আগে থেকে ক্যাম্প করছে, মালয়েশিয়া প্রস্তুতি শুরু করে কিছুদিন আগে একটা টুর্নামেন্টও খেলে ফেলেছে। পাকিস্তান ক্যাম্প শুরু করেছে দেড় মাস আগে, জাপান এবং কোরিয়াতেও হকি শুরু হয়ে গেছে। শুধু আমাদের খেলোয়াড়রাই বসে সাত মাস। সে জন্য যত দ্রুত সম্ভব ক্যাম্পটা শুরু করা উচিত ছিল। কিন্তু আমরা এখনো তা পারলাম না’, আক্ষেপ নিয়ে বলছিলেন জুনিয়র এশিয়া কাপ হকি দলের কোচ মামুনুর রশিদ।

করোনার কারণে জুনে স্থগিত হওয়া টুর্নামেন্টটা আগামী জানুয়ারিতে হচ্ছে—এটা জানা গেছে প্রায় দেড় মাস আগে। দিন পনেরো আগে মামুনকে নতুন করে কোচের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এর পরও ক্যাম্পটা শুরু করতে এক মাস সময় নিয়েছে ফেডারেশন। শুরুতে জানা গিয়েছিল অক্টোবরের শুরু থেকেই ক্যাম্পটা শুরু হয়ে যাবে, কিন্তু তা হচ্ছে না। আগামী ১০ অক্টোবর খেলোয়াড়দের করোনা পরীক্ষা। এর পাঁচ দিন পর শুরু হবে প্রস্তুতি। কোচের মতো অধিনায়ক আশরাফুল ইসলামেরও মনে হচ্ছে বড্ড দেরি হয়ে যাচ্ছে ক্যাম্পটা শুরু হতে, ‘কভিড টেস্টে পজিটিভ-নেগেটিভ হওয়ার ব্যাপার আছে। কেউ পজিটিভ হয়ে গেলে তাঁকে আবার আমরা কমপক্ষে দুই সপ্তাহের জন্য হারাব। পুরোদমে ক্যাম্প শুরু করতে তাই হয়তো আগামী মাস লেগে যাবে। সে ক্ষেত্রে হাতে সময় থাকবে আমাদের খুবই কম।’ মামুন বলছিলেন, ‘শূন্য থেকে শুরু করতে হবে আমাদের। গত জানুয়ারিতে দলটাকে শারীরিক, মানসিক দিক দিয়ে পুরো তৈরি করে ফেলেছিলাম আমি। গেম প্ল্যান নিয়ে কাজ করার শুধু বাকি ছিল। এখন তো ওদের ফিটনেস ট্রেনিংই শুরু করতে হবে নতুন করে।’

গত মাসে বিমানবাহিনীর তত্ত্বাবধানে ২০ খেলোয়াড়কে নিয়ে হয়েছে ফিটনেস ক্যাম্প। কিন্তু সেই ক্যাম্পের ফল আসলে শূন্য। কারণ এক মাস অনুশীলনের পর আবার এক মাস পুরোপুরি বসে থাকতে হচ্ছে তাঁদের। ১০ অক্টোবর থেকে আগের ক্যাম্পের ৩৬ জনকে নিয়ে নতুন করে আবার বিমানবাহিনীতেই ক্যাম্প শুরু হবে। তবে স্টিক, বলে অনুশীলনের জন্য খেলোয়াড়দের আবার যেতে হবে মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে।

২১ জানুয়ারি থেকে এ মাঠেই ১০ দলের জুনিয়র এশিয়া কাপ। ভারত, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, কোরিয়া, জাপানের মধ্য থেকে সেমিফাইনালে ওঠার চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের। তাহলে যে আগামী জুনিয়র বিশ্বকাপ হকির টিকিটও মিলবে। ঘরের মাঠের টুর্নামেন্টে তাই দারুণ সুযোগ স্বাগতিকদের। কিন্তু প্রস্তুতি নিয়ে সেই তোড়জোড় আসলে নেই। যেমন—শুধু কোচের নাম ঘোষণা করা হলেও ট্রেনার, ভিডিও অ্যানালিস্ট বা গোলরক্ষক কোচ নিয়ে ফেডারেশনের ভাবনা নেই। করোনার কারণে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ম্যাচ খেলাও সম্ভব হবে না। মামুনের শিষ্যদের চ্যালেঞ্জটা তাই বেশিই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা