kalerkantho

রবিবার । ৯ কার্তিক ১৪২৭। ২৫ অক্টোবর ২০২০। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সংকটের নতুন বাঁকে শ্রীলঙ্কা সফর

ক্যান্ডি ও কলম্বোর হোটেলে দুই দফায় ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে গতকালই সবে শ্রীলঙ্কা দলের অনুশীলনে যোগ দিতে পেরেছেন শেন। কভিড-১৯ নিয়ে কড়াকড়ির এই একটি উদাহরণই বুঝিয়ে দেয় যে সেখানে বাংলাদেশের তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে যাওয়ার ব্যাপারটি খুব সহজেই রফা হওয়ার নয়।

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সংকটের নতুন বাঁকে শ্রীলঙ্কা সফর

ছবি : মীর ফরিদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশ দলকে তবু হোটেলে ১৪ দিন বন্দি হয়ে থাকতে বলা হয়েছিল। কিন্তু খোদ শ্রীলঙ্কার অস্ট্রেলিয়ান ফিল্ডিং কোচ শেন ম্যাকডারমটকে কত দিনের কোয়ারেন্টিন করতে হয়েছে জানেন? বেশি না, মাত্র ২৮ দিন!

অবিশ্বাস্য হলেও এটিই সত্য। ক্যান্ডি ও কলম্বোর হোটেলে দুই দফায় ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে গতকালই সবে শ্রীলঙ্কা দলের অনুশীলনে যোগ দিতে পেরেছেন শেন। ভারত মহাসাগরের বুকে ছোট্ট দ্বীপরাষ্ট্রে কভিড-১৯ নিয়ে কড়াকড়ির এই একটি উদাহরণই বুঝিয়ে দেয় যে সেখানে বাংলাদেশের তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে যাওয়ার ব্যাপারটি খুব সহজেই রফা হওয়ার নয়।

তবু আশাবাদের কথা শোনা যায়। আবার সেই আশার সঙ্গে আশঙ্কাও মিশে থাকে। যদিও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন চৌধুরী এখনো ইতিবাচক। গতকাল বিকেলে তাঁকে বলতে শোনা গেল, ‘এসএলসির (শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট) সঙ্গে নিয়মিতই কথা হচ্ছে আমাদের। তবে আনুষ্ঠানিক কিছু এখনো পাইনি। সব কিছু আশাব্যঞ্জকই আছে। আশা করছি, আজ-কালের মধ্যেই একটি ভালো খবর আসবে।’

অবশ্য গতকাল যে খবর এসেছে, সেটি বরং হতাশ হওয়ার মতোই। নানা শর্ত মেনে বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা সফরে যাবে না, বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানের এই ঘোষণার পর দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় সমাধানের পথ খুলেই গিয়েছিল প্রায়। কিন্তু তাও দেশটির কভিড-১৯ টাস্কফোর্সে গিয়ে আটকে গেছে। দেশটিতে যখন মার্শাল ল’ চলছে, তখন এই টাস্কফোর্সই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিয়ে আসছে। বাংলাদেশকে নানা ছাড় দিয়ে শ্রীলঙ্কায় নেওয়ার যে ফর্মুলায় এসএলসি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়েছিল, সেটি আবার খারিজ করে দিয়েছে কভিড টাস্কফোর্স। এই অবস্থায় আজ আবার স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় টাস্কফোর্সের সঙ্গে এসএলসির আলোচনায় বসার কথা রয়েছে বলে জানা গেছে কয়েকটি সূত্র থেকে।

অথচ এর আগ পর্যন্ত সব কিছু ঠিকঠাকই ছিল। সফর হচ্ছে ধরে নিয়ে জোর প্রস্তুতিও চালিয়ে নিচ্ছিল বিসিবি। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে স্কিল ক্যাম্প শুরুর আগেই ক্রিকেটারদের বায়ো-বাবল বা জৈব নিরাপত্তা বলয়ে ঢুকিয়ে ফেলা হয়। হোটেল থেকে মাঠে আসা-যাওয়া করেই অনুশীলন সারছেন ক্রিকেটাররা। এর বাইরে অন্য কোথাও যাওয়ারও সুযোগ নেই তাঁদের। বিসিবি এসএলসির কাছে শ্রীলঙ্কায় গিয়েও একই ‘মডেল’ অনুসরণের প্রস্তাব দেয়। সেই প্রস্তাবনা অনুযায়ী শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার দিনক্ষণও পিছিয়ে দেওয়া হয়। ঠিক হয় ২৭ সেপ্টেম্বর নয়, মমিনুল হকের দল কলম্বো রওনা হবে ২ অথবা ৩ অক্টোবর। সেখানে গিয়ে তাঁরা ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনই করবে, তবে হোটেলে বন্দি হয়ে থাকবে মাত্র চার দিন। এরপর অনুসরণ করবে ঢাকায় স্কিল ক্যাম্পের মডেল। বাকি ১০ দিন তাঁদের জন্য নির্ধারিত ভেন্যুতে গিয়ে কঠোর অনুশীলন করে হোটেলে ফিরে আসবে। ১৭ অক্টোবর ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষ হলে পরদিনই শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের সঙ্গে খেলবে তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। এই প্রস্তাবনাও শ্রীলঙ্কার কভিড টাস্কফোর্স আটকে দেওয়ায় আবার অনিশ্চয়তা নিয়ে অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে!

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা