kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩ ডিসেম্বর ২০২০। ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

অস্ট্রেলিয়া সিরিজটাই শুধু অনিশ্চিত

২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : সভাপতি নাজমুল হাসানই বলেছিলেন যে বৈশ্বিক মহামারির কারণে স্থগিত সিরিজগুলোর মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গেই শুধু সূচি পুনর্নির্ধারণ করা যায়নি। বাকি সবগুলোই পরে সুবিধাজনক সময়ে আয়োজনের নিশ্চয়তা দিয়েছিলেন তিনি। শ্রীলঙ্কায় তিন টেস্টের সিরিজ এরই মধ্যে নিশ্চিত হয়ে আছে। বাকিগুলোও ধাপে ধাপে হবে বলে আশ্বস্ত করলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী। তবে গত জুনে হওয়ার কথা থাকলেও পিছিয়ে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই টেস্টের হোম সিরিজের সূচি পুনর্নির্ধারণ করাই যে ভীষণ চ্যালেঞ্জিং হবে, জানিয়ে রাখলেন সেটিও।

মাঠে ফেরার অপেক্ষায় থাকা অস্ট্রেলিয়ার জন্যও অপেক্ষায় ঠাসা সূচি। এর মধ্যে ফাঁকা সময় বের করতে হিমশিম খেতে হবে তাদেরও। এটিই সূচি পুনর্নির্ধারণের পথে সবচেয়ে বড় বাধা বলে মনে করেন বিসিবি প্রধান নির্বাহী, ‘ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) সঙ্গে কথাবার্তা চলছে আমাদের। সুবিধাজনক সময়ে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে হোম সিরিজটি ফেলার চেষ্টা করছি আমরা। কিন্তু সমস্যা হলো, এটি খেলার জন্য আমাদের সময় থাকলেই তো শুধু হবে না। অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় দলেরও ফাঁকা সময় থাকতে হবে।’ অর্থাৎ এই সিরিজের জন্য ‘উইন্ডো’ বের করার অপেক্ষায় থাকা ছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই বিসিবির।

তবে অন্য স্থগিত সিরিজগুলোর ভাগ্য এ রকম নয়। বরং সেগুলো নিশ্চিত হওয়াটা শুধুই সময়ের ব্যাপার বলে মনে করাতে চাইলেন নিজাম উদ্দিন। গত মার্চে ভারতীয় উপমহাদেশে করোনাভাইরাসের ধাক্কা লাগতেই বিসিবি সবার আগে স্থগিত করে বাংলাদেশ দলের তৃতীয় দফার পাকিস্তান সফর, যাতে দুই ম্যাচ সিরিজের শেষ টেস্ট ছাড়াও একটি ওয়ানডে খেলার কথা ছিল জাতীয় দলের। স্থগিত সিরিজগুলোর মধ্যে এটির সূচি পুনর্নির্ধারণই তুলনামূলক সহজ। কারণ সময় লাগবে খুবই অল্প। বিসিবি প্রধান নির্বাহী বলছিলেন, ‘পাকিস্তানে একটি টেস্ট খেলাই শুধু বাকি আছে আমাদের। এর জন্য সময় বের করা কঠিন কিছু হবে না। কারণ এ জন্য আমাদের ছোট্ট একটি উইন্ডো বের করা দরকার হবে, যা নিয়ে আমরা পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) সঙ্গে কথা বলে ঠিক করে নেব।’

বছরের ঠিক এই সময়ে দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে থাকার কথা ছিল নিউজিল্যান্ড দলেরও। তবে গত জুনেই সিরিজটি স্থগিতের ঘোষণা আসে। এই সিরিজটি আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে খেলার ক্ষেত্রে দুই বোর্ডের মধ্যে ‘বোঝাপড়া’ হয়েছে বলে জানালেন নিজাম উদ্দিন, ‘নিউজিল্যান্ড বোর্ডের সঙ্গে আমাদের একটি বোঝাপড়া হয়েছে। আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যেই সিরিজটি খেলার জন্য একমত হয়েছি আমরা।’ স্থগিত আয়ারল্যান্ড সফর নিয়েও সে দেশের বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা চলমান। গত মে মাসে ওই সফরে গিয়ে তিনটি ওয়ানডের পর ইংল্যান্ডে আইরিশদের বিপক্ষে চার ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজও খেলার কথা ছিল বাংলাদেশের। আয়ারল্যান্ড সিরিজটি আইসিসির ওয়ানডে লিগের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় এর সূচি পুনর্নির্ধারণ নিয়ে তেমন ভাবছেন না বিসিবি প্রধান নির্বাহী, ‘এটি ওয়ানডে লিগের খেলা। এর (আসরের জন্য) সময়সীমা বাড়ানোর পরিকল্পনা আইসিসিরও রয়েছে। সেই বর্ধিত সময়ের মধ্যেই আশা করছি সিরিজটি খেলতে পারব।’ তবে অস্ট্রেলিয়া সিরিজও বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। তা নিয়ে অবশ্য তেমন আশার কথা শোনা যাচ্ছে না দলটির ব্যস্ততার জন্য।

মন্তব্য