kalerkantho

বুধবার । ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১২ সফর ১৪৪২

অ্যাতলেতিকোকে ফেভারিট মানছে লিপজিগ

১৩ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



অ্যাতলেতিকোকে ফেভারিট মানছে লিপজিগ

২০১৪ আর ২০১৬ সালে খেলেছে ফাইনাল। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলকে ছিটকে দিয়ে জায়গা করে নিয়েছে কোয়ার্টার ফাইনালে। লকডাউনের পর লা লিগার বাকি ১১ ম্যাচেও অপরাজিত অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। তাই আজ লিসবনের এস্তাদিও হোসে আলভালাদের কোয়ার্টার ফাইনালে ডিয়েগো সিমিওনের দলকেই ফেভারিট মানছেন লিপজিগ তারকা ইউসুফ পলসেন। জার্মান ক্লাবটির হয়ে ২৫০ ম্যাচে ৬৩ গোলের পাশাপাশি ৫১টি অ্যাসিস্ট আছে তাঁর। তাই বাস্তবতা মেনে অ্যাতলেতিকোকে ফেভারিট বললেও হাল না ছাড়ছেন না এই ডেনিশ, ‘অবশ্যই অ্যাতলেতিকো ফেভারিট, আমরা আন্ডারডগ। আমরা প্রথমবার কোয়ার্টার ফাইনাল খেলছি। আর ওরা গত ১০ বছরে প্রায় সময়ই থেকেছে এই মঞ্চে। এর পরও আমাদের সুযোগ আছে। সবার বিশ্বাস সেটা কাজে লাগাতে পারব।’

লকডাউনের আগে বুন্দেসলিগা জয়ের পথে বায়ার্নের সঙ্গে ভালোভাবে লড়াইয়ে ছিল লিপজিগ। তবে সব শেষ ১৫ ম্যাচের আটটিতে ড্র করে পিছিয়ে পড়ে জুলিয়ান নাগেলসমানের দল। তৃতীয় হয়ে লিগ শেষ করে তারা। সবচেয়ে কম বয়সী কোচ হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগ কোয়ার্টার ফাইনাল খেলার রেকর্ড গড়া নাগেলসমানের জন্য বড় ধাক্কা হয়ে এসেছে টিমো ভেরনারের চেলসিতে যাওয়া। গত মৌসুমে ৩৪ গোল করা জার্মান এই ফরোয়ার্ডকে লিপজিগের হয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলার অনুমতি দিয়েছিল চেলসি। লন্ডনের জীবনযাপনে মানিয়ে নিতে সুযোগটা নেননি তিনি। ভেরনারের অভাব পুষিয়ে নিতে ৩-৪-১-২ ছকে খেলার ছক কষেছেন জুলিয়ান নাগেলসমান। দুই ফরোয়ার্ড হিসেবে খেলাবেন ইউসুফ পলসেন ও মার্সেল সাবিতজের। এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগে ভেরনারের সমান ৪ গোল সাবিতজেরও।

লকডাউনের পর লা লিগার ১১ ম্যাচে অপরাজিত ছিল অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। তাই আজ লিসবনের এস্তাদিও হোসে আলভালাদের কোয়ার্টার ফাইনালে ডিয়েগো সিমিওনের দলকেই ফেভারিট মানছেন লিপজিগ তারকা ইউসুফ পলসেন।

ওদিকে লিসবনে যাওয়ার ঠিক আগে করোনা হানা দিয়েছিল অ্যাতলেতিকোয়। দুই ফুটবলার আনহেল কোররেয়া ও সিমে ভারাসালকো আক্রান্ত হওয়ায় নকআউটের মাচ নিয়ে ঘোর সংশয়ে পড়েছিল অ্যাতলেতিকো। তবে সে সংশয় মুছেও গেছে। অন্য খেলোয়াড়দের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পর এক দিন পিছিয়ে মাদ্রিদ ছাড়ে ডিয়েগো সিমিওনের দল। কোয়ার্টার ফাইনালের আগে বড় ধাক্কা এটা। তবে অ্যাতলেতিকো আত্মবিশ্বাস পেতে পারে শেষ ১৬-তে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলকে ১-০ ও ৩-২ ব্যবধানে হারানোয়। কোয়ার্টার ফাইনাল দুই লেগ না হওয়ায় অনেকে শিরোপার অন্যতম ফেভারিট ভাবছেন অ্যাতলেতিকোকে। দলটির তারকা সাউল নিগুয়েসও চান ফাইনাল পর্যন্ত  যেতে, ‘নতুন ফরম্যাট মেনে নেওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। তাহলে এর সঙ্গে তাল মেলানো সহজ হয়। ১৮০ মিনিটের বদলে ৯০ মিনিট খেলাটা সাহায্য করতেই পারে আমাদের। শেষ পর্যন্ত যাওয়া লক্ষ্য এখন।’

আলভারো মোরাতার ক্যারিয়ারে ১৫ চ্যাম্পিয়নস লিগ গোলের ৮টি নকআউটে। লা লিগাতেও এই মৌসুমে দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১২ গোল তাঁর। এর পরও আজ মোরাতার বদলে ডিয়েগো কস্তা ও জোয়াও ফেলিক্সকে একাদশে দেখার সম্ভাবনা বেশি। শেষ পর্যন্ত যাঁরাই খেলুন, ডিয়েগো কস্তা আত্মবিশ্বাসী ম্যাচটা জিততে, ‘আমরা অপরাজিত অনেক দিন। লিভারপুলকে হারানোর পর যেকোনো দলকে হারাতে পারি, এই আত্মবিশ্বাস জন্মেছে সবার মধ্যে।’ আন্তোয়ান গ্রিয়েজমানের জায়গায় জোয়াও ফেলিক্সকে ১২৬ মিলিয়ন ইউরোয় কিনেছে অ্যাতলেতিকো। গ্রিয়েজমানের মতোই ক্লাব কিংবদন্তি হতে চান ৩৫ ম্যাচে ৮ গোল ও ৩টি অ্যাসিস্ট করা ফেলিক্স, ‘গ্রিয়েজমান যা করেছে আমি যদি সেটা পারি বা ওর চেয়েও ভালো কিছু করি তাহলে অসাধারণ হবে। কেননা ক্লাবের হয়ে ইতিহাসই গড়েছে গ্রিয়েজমান।’ পারবেন তো পর্তুগিজ এই তরুণ? এএফপি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা