kalerkantho

শনিবার । ১১ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৮ সফর ১৪৪২

জাতীয় দলের ৭৫, বসুন্ধরার ১০০ শতাংশ

বসুন্ধরার জন্যও বড় ধাক্কা

৮ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বসুন্ধরার জন্যও বড় ধাক্কা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : জাতীয় দলের বিশ্বকাপ বাছাই এবং বসুন্ধরা কিংসের এএফসি কাপের খেলা কাছাকাছি সময়ে। কারা ফুটবলারদের এই সময়ে ক্যাম্পে পাবে—এ নিয়ে এখনো আলোচনা চলছে। কিন্তু সেই আলোচনাও এখন ছাপিয়ে গেছে করোনার হানায়। এই অদৃশ্য ঘাতক যে ক্লাব, জাতীয় দল কোনো কিছুরই বাছ-বিচার করে না। জাতীয় দলের ১৮ জন আক্রান্ত, সেখানে ২৩ অক্টোবর থেকে এএফসি কাপের লড়াইয়ে নামতে যাওয়া বসুন্ধরা কিংসেরই যে সাতজন।

দলের নাম্বার ওয়ান গোলরক্ষক আনিসুর রহমানই পজিটিভ, যিনি এএফসি কাপের শুরুর ম্যাচে তিন পেনাল্টি ঠেকিয়ে হুলুস্থুল ফেলে দিয়েছিলেন। অন্য ছয়জন—মোহাম্মদ ইব্রাহিম, বিশ্বনাথ ঘোষ, সুশান্ত ত্রিপুরা, রবিউল হাসান, বিপলু আহমেদ ও মাহবুবুর রহমান। প্রথম রিপোর্টে ৫ জনের পজিটিভের খবর জানা গেলেও কাল বিপলু ও মাহবুবুরের নামও তাতে যুক্ত হওয়ায় এখন আসলে বসুন্ধরার পরীক্ষা করানো ৭ খেলোয়াড়েরর সবাইই পজিটিভ। তাই জাতীয় দলের মত এখন একই উদ্বেগ আতঙ্ক বসুন্ধরা শিবিরেও। কাল ক্লাব সভাপতি ইমরুল হাসান সেই আশাহত হওয়ার কথাই বলছিলেন, ‘জাতীয় দলের মতো এটা আমাদের ক্লাবের জন্যও বড় ধাক্কা। সেপ্টেম্বরের শুরু থেকে আমাদের ক্যাম্প শুরুর পরিকল্পনা। এখন এতগুলো খেলোয়াড় পজিটিভ হয়ে পড়ায় জানি না তারা তখন ঠিক কী অবস্থায় থাকবে। আমি আসলে খুবই দুশ্চিন্তায় আছি। ওরা সবাই আমাদের দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়। আর আরো তো আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে।’ ফুটবলারদের প্রতিও যথেষ্ট অনুযোগ তাঁর। আবাহনীর ফুটবলার মামুনুল ইসলামের এলাকায় প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলার খবর জেনেছেন। সন্দেহ করছেন তাঁর ফুটবলাররাও এই করোনাকালীন যথেষ্ট সতর্ক হয়ে চলেনি, ‘আমরা যথাসম্ভব ওদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার চেষ্টা করেছি। কিন্তু এলাকায় গিয়ে কেউই আসলে নিয়ম-কানুন খুব কিছু মেনেছে বলে আমার মনে হয় না। শুনেছি জিকো (আনিসুর), ইব্রাহিম কক্সবাজারে প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ খেলেছে। দুজন নাকি দুই দলের অধিনায়কত্বও করেছে। ওরা যদি নিজেদের ভালোটা নিজেরা না বুঝতে পারে তাহলে তো খুবই হতাশার। আমরা ওদের শোকজ নোটিশ করব।’

একে তো পাঁচ মাস খেলার বাইরে থাকায় ফুটবলারদের ফিটনেস ফিরিয়ে আনাটাই ক্লাব ও জাতীয় দলের কোচিং স্টাফদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হবে। সেখানে এখন নতুন করে যুক্ত হলো এই করোনা। যাঁরা আক্রান্ত হয়েছেন তাঁরা তো লম্বা একটা সময় অনুশীলনের বাইরেই চলে গেলেন। বসুন্ধরা কোচ অস্কার ব্রুজোনের এ মাসেই স্পেন থেকে ফেরার কথা। ইমরুল জানিয়েছেন স্প্যানিশ এই কোচও যথেষ্ট উদ্বিগ্ন আনিসুর, ইব্রাহিমদের পজিটিভ হওয়ার খবরে। বসুন্ধরা বাড়তি সতর্কতায় ইনজুরি থেকে সেরে উঠা তিন ফুটবলার মাশুক মিয়া, আতিকুর রহমান ও মতিন মিয়াকে জাতীয় দলের ক্যাম্পে উঠারই অনুমতি দেয়নি। আগে নিজেরা তাদের পরখ করে দেখতে চেয়েছে। ব্রাজিলের ফ্লুমিনেন্স থেকে উড়িয়ে আনছে তারা রোবিনহোকে। আর্জেন্টাইন হার্নান বার্কোস তো আছেনই। এএফসি কাপ নিয়ে তাদের স্বপ্নও আকাশছোঁয়া। মালদ্বীপের টিসি স্পোর্টসকে ৫-১ গোলে উড়িয়ে দারুণ শুরুর পর করোনার কারণেই তাতে ছন্দঃপতন। এখন বাকি সব ম্যাচ হবে মালদ্বীপে। সেই চ্যালেঞ্জ নিয়ে নতুন করে তৈরি হওয়ার পথে খেলোয়াড়দের আক্রান্ত হওয়ার খবরে আবারও বড় ধাক্কা খেল তারা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা