kalerkantho

মঙ্গলবার । ৭ আশ্বিন ১৪২৭ । ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৪ সফর ১৪৪২

করোনার বাধা পেরিয়ে ক্যাম্পে

৬ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



করোনার বাধা পেরিয়ে ক্যাম্পে

ছবি : মীর ফরিদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফুটবল ফিরছে মাঠে। করোনা মহামারির চোখ-রাঙানি এড়িয়ে ফুটবল ফিরছে। এই খুশির হাওয়ায় ভেসে একদল ফুটবলার নতুন স্বপ্ন বুকে নিয়ে রওনা হয়ে গেছে দূরের একটি অবকাশযাপন কেন্দ্রে। এখানে নতুন আঙ্গিকে শুরু জাতীয় দলের ফুটবল ক্যাম্পে হবে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ম্যাচ জয়ের স্বপ্নের বাতাবরণ। এ লক্ষ্যে গাজীপুরের অস্থায়ী ক্যাম্পমুখী হয়েছেন ফুটবলাররা। করোনা পরীক্ষাসহ নানা বিধি-নিষেধ মেনে গতরাতে খেলোয়াড়দের প্রথম দল গেছে, যাবে আগামী দুদিনও। শুরু হবে বাছাই পর্বের প্রাথমিক দলের অনুশীলন।

প্রাথমিক দল ৩৭ জনের হলেও শেষ পর্যন্ত কতজনকে নিয়ে শুরু করতে পারবে, বলা মুশকিল। লম্বা সময় ইনজুরিতে কাটানো মতিন, মাশুক ও আতিকুর রহমানকে জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার ছাড়পত্র দেয়নি বসুন্ধরা কিংস। তা ছাড়া অধিনায়ক ডেনিশ বংশোদ্ভূত বাংলাদেশি জামাল ভূঁইয়া ও ফিনিশ-বাংলাদেশি তারিক কাজী এখনো পাননি ঢাকায় ফেরার বিমান টিকিট। সঙ্গে কাল যোগ হয়েছে চারজনের করোনা আক্রান্ত হওয়ার দুঃসংবাদ। দুদিন আগে পরীক্ষা করিয়ে ডিফেন্ডার বিশ্বনাথ ঘোষ পেয়েছেন করোনা পজিটিভ হওয়ার খবর। গতকাল বাফুফের উদ্যোগে করানো পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ আসে আরো তিন ফুটবলারের। কাকতালীয়ভাবে তিনজনই ক্যাম্পে প্রথম ডাক পেয়েছিলেন—ম্যাথিউস বাবলু, নাজমুল ইসলাম রাসেল ও সুমন রেজা। অথচ তাঁদের কোনো লক্ষণই ছিল না। বাফুফের মেডিক্যাল কমিটির সদস্য ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. আলী ইমরান জানিয়েছেন, ‘তিন ফুটবলারের কোনো লক্ষণই ছিল না, অথচ তাঁরা করোনা পজিটিভ। তাঁদেরকে আইসোলেশনে থাকার জন্য পরামর্শ দিয়েছি।’ এই খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সন্ধ্যায় তিন করোনা আক্রান্ত ফুটবলারকে বাসায় পাঠিয়ে দিয়েছে বাফুফে। কিন্তু তাঁরা যে পুরো দিন অন্য ফুটবলারদের সঙ্গে কাটিয়ে গেছেন!

এত প্রতিকূলতার মধ্যেও ফুটবলের ক্যাম্প শুরু হচ্ছে, এটাই ফুটবলারদের কাছে বেশ ইতিবাচক। অনেক দিন ঘরবন্দি থাকার পর তাঁরা মাঠে নামবে, এই আনন্দ স্পষ্ট তাঁদের চোখে-মুখে। বন্দি জীবন থেকে মুক্ত হয়ে ফুটবল-আনন্দ উপভোগের প্রত্যাশায় দারুণ খুশি বিপলু আহমেদ, ‘অনেক দিন পর মাঠে নামব, অন্যদের সঙ্গে ফুটবল খেলব। বাফুফে অনেক সতর্কভাবে ফুটবল ক্যাম্প আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে, এটা খুব ভালো। মাঠে নামতে হবেই। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের খেলার তারিখ চূড়ান্ত হয়ে গেছে, এখন বাসায় বসে থাকার সুযোগ নেই।’

আগামী ৮ অক্টোবর আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচ দিয়ে ফের শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাই। এই ম্যাচ হবে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে। নিজের মাঠে সেরাটা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হতে চান মিডফিল্ডার বিপলু, ‘বাসায় ফিটনেস ধরে রাখার ব্যায়াম করলেও টিম ট্রেনিং অন্য রকম। চেষ্টা করব এক মাসের মধ্যে নিজেকে পুরোপুরি ফিট করে তুলতে। সিলেটের এই ম্যাচে আমি যেন একাদশে থাকতে পারি, সেই লক্ষ্য নিয়েই ক্যাম্পে যাচ্ছি।’

খেলোয়াড়দের এই খুশি দেখে স্থানীয় কোচ মাসুদ পারভেজ কায়সারেরও খুব ভালো লাগছে, ‘অনেক দিন পর ফুটবলারদের দেখে ভালো লাগছে আমার। জাতীয় দলের ট্রেনিং শুরু হচ্ছে, তারা মাঠে নামবে, এই ভেবে ফুটবলাররাও খুব খুশি। তারা এত দিন ঘরে সীমাবদ্ধতার মধ্যে ট্রেনিং করত, এখন শিডিউল মেনে ফিটনেস ট্রেনিং হবে।’ জাতীয় দলের মূল কোচ ইংলিশ জেমি ডে ও অন্য বিদেশি কোচিং স্টাফরা ফিরবে এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে। তার আগ পর্যন্ত কায়সার ও সৈয়দ গোলাম আজিজ জিলানীর অধীনে শুরু হয়ে গেছে ট্রেনিং ক্যাম্প। চার মাসেরও বেশি সময় মাঠের বাইরে থাকা ফুটবলারদের নিয়ে মোটেও চিন্তিত নন কায়সার, ‘অনেক দিন খেলার বাইরে থাকলেও তারা ঘরে ট্রেনিং করেছে, তাই খুব বেশি কাজ করতে হবে না তাদের নিয়ে। আশা করি, এই মাসের মধ্যেই তাদের ফিটনেস আগের জায়গায় পৌঁছে যাবে। তার চেয়েও বড় কথা হলো, তাদের শরীরী ভাষা বেশ ইতিবাচক।’ প্রথম দিনে করোনা চারজনকে ছিটকে দিলেও ফুটবলাররা ইতিবাচক!

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা