kalerkantho

বুধবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৭। ৫ আগস্ট  ২০২০। ১৪ জিলহজ ১৪৪১

স্পেনে খেলতে চায় না নাপোলি

৩১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্পেনে খেলতে চায় না নাপোলি

যুক্তরাজ্য স্প্যানিশদের জন্য কোয়ারেন্টিনের নিয়ম করার পর রিয়াল মাদ্রিদের ম্যানচেস্টারে গিয়ে খেলা প্রশ্নের মুখে পড়েছিল। এবার নাপোলি সভাপতি অরেলিও দ্য লরেন্তে জানালেন, তাঁর ক্লাবও খেলতে চায়না স্পেনে গিয়ে। দেশটিতে করোনা সংক্রমণের নতুন ঢেউ আসছে আশঙ্কা করেই যুক্তরাজ্যের অমন সিদ্ধান্ত আর নাপোলিরও নুক্যাম্পে খেলতে যেতে আপত্তি।

লরেন্তে বলছিলেন, ‘আমরা জানতে পারছি ওরা এই মুহূর্তে পরিস্থিতি সামলাতে বেশ হিমশিম খাচ্ছে, অথচ এমন ভাব করছে যেন কোনো সমস্যাই নেই। আমি বুঝতে পারছি না, বার্সেলোনায় খেলার বদলে আমাদের কেন পর্তুগাল বা জার্মানিতে গিয়ে খেলতে বলা হচ্ছে না।’ ইউরোপা লিগে সেভিয়া ঘরের ম্যাচ খেলবে জার্মানিতে, গেতাফের সঙ্গে ইন্টার মিলানের ম্যাচও ইতালিতে হবে না, সেটাও হবে জার্মানিতে। আর পর্তুগালে তো চ্যাম্পিয়নস লিগে পুরো বাকি অংশই হবে। সে ক্ষেত্রে নাপোলির বার্সেলোনায় এসে খেলার কোনো যৌক্তিকতা খুঁজে পাচ্ছেন না ক্লাব সভাপতি, ‘তারা যদি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ পর্তুগাল আর ইউরোপা লিগ জার্মানিতে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে, তবে আমাদের কেন এমন একটা শহরে পড়ে থাকতে হবে যেখানে সত্যিই ঝুঁকি আছে। আমাদেরও উচিত শেষ ষোলোর এই ম্যাচটি জার্মানি অথবা পর্তুগালে গিয়েই খেলা।’ চ্যাম্পিয়নস লিগের আগে নতুন করে আবার করোনা পরীক্ষা করাতে হচ্ছে স্প্যানিশ দলগুলোর। তাতে রিয়ালেরই মারিয়ানো দিয়াজ পজিটিভ হয়েছেন, আক্রান্ত সেভিয়ারও একজন। সেভিয়া তো অনুশীলনই বন্ধ করে দিয়েছে, রিয়াল অবশ্য অনুশীলন চালিয়ে যাচ্ছে। উয়েফা থেকেও বলা হচ্ছে এই সংক্রমণের ঘটনা শেষ পর্যন্ত প্রভাব ফেলবে না ম্যাচে। সংস্থাটির মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমরা ক্লাব দুটির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি। এই দুটি ঘটনা ম্যাচে প্রভাব ফেলবে না বলেই আমরা মনে করছি।’

শেষ ষোলোর মাঠের সমীকরণে রিয়াল, বার্সা দুটি দলই পিছিয়ে আছে। তুরিনে খেলা নিয়ে সমস্যা না হলেও সেই সমীকরণে লিওঁর বিপক্ষে পিছিয়ে আছে জুভেন্টাসও। লিগ শিরোপা নিশ্চিত করার পরের ম্যাচেই পরশু কালিয়ারির কাছে হেরে গেছে তারা ২-০ গোলে। করোনা বিরতির পর ১১ ম্যাচে এটি তাদের তৃতীয় হার, জয় ছয়টিতে। প্রতিপক্ষ দলগুলো সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেনি বলেই দুই ম্যাচ হাতে রেখেই শিরোপা উঠেছে মরিসিও সারির শিষ্যদের হাতে। তবে এই ম্যাচে গোলশূন্য থাকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো একরকম ছিটকেই গেছেন ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শুর লড়াই থেকে। এএফপি

মন্তব্য