kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

রাকিব খেলছেন না অলিম্পিয়াডে জিয়া

১২ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাকিব খেলছেন না অলিম্পিয়াডে জিয়া

ক্রীড়া প্রতিবেদক : করোনার মাঝে ভিন্ন ফরম্যাট শুধু নয় একেবারে ভিন্ন প্ল্যাটফর্ম—অনলাইনে হচ্ছে এবারের অলিম্পিয়াড। তা নিয়ে দাবাড়ুদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া আছে। গ্র্যান্ডমাস্টার নিয়াজ মোরশেদ যেমন আসল অলিম্পিয়াডের আমেজটা মিস করছেন খুব। জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হিসেবে তবু তিনি খেলছেন, কিন্তু রানার-আপ আব্দুল্লাহ আল রাকিব একেবারে ‘না’-ই বলে দিয়েছেন। তাঁর জায়গায় দলে ঢুকেছেন আরেক গ্র্যান্ডমাস্টার জিয়াউর রহমান।

জিয়া সর্বশেষ জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে ভালো করেননি, ষষ্ঠ হয়েছিলেন। তাতেই অলিম্পিয়াড দলে জায়গাটা অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। ১২ (অতিরিক্ত ছয়জনসহ) জনের অলিম্পিয়াড দলে চারজন মহিলা ও চারজন জুনিয়র দাবাড়ু রাখা বাধ্যতামূলক। তাতে ওপেন বিভাগে জায়গা থাকে আর চারজনের। জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপের সর্বশেষ র‌্যাংকিং অনুযায়ী নিয়াজ, রাকিব, ফাহাদ রহমান ও রিফাত বিন সাত্তার সে ক্ষেত্রে সুযোগ পান। ফাহাদ জুনিয়র কোটায় চলে গেলে দলে আসেন পঞ্চম ফিদে মাস্টার তৈয়বুর রহমান। এর মধ্যে রাকিবও না খেলায় সুযোগ হয়ে যায় জিয়ার। করোনার সময়ে জিয়া ও তাঁর ছেলে তাহসিন তাজওয়ার অনলাইন দাবায় বেশ ব্যস্ত সময়ই পার করছেন। অলিম্পিয়াড দলে ডাক পেয়ে জিয়া তাই খুশি, ‘এই মুহূর্তে অনলাইনই তো একমাত্র মাধ্যম। তাতে এখন জাতীয় দলের হয়ে খেলার সুযোগ পাচ্ছি। এটা আমার জন্য বড় অনুপ্রেরণাও।’ তবে কেন খেলছেন না তা নিয়ে অবশ্য মুখ খুলতে চাননি রাকিব, ‘ফেডারেশন আমাকে খেলার আমন্ত্রণ জানিয়েছে। আমি তাদের না বলে দিয়েছি। অনলাইন প্ল্যাটফর্মটাকে আমি ছোট করে দেখছি না মোটেও। তবে আমি খেলছি না। কী কারণে খেলছি না, সেটাও এ মুহূর্তে জানাতে চাচ্ছি না।’ র‌্যাংকিং অনুযায়ী বাকিদের সবাই অবশ্য খেলছেন। মহিলা চার দাবাড়ু হলেন রানী হামিদ, শারমিন সুলতানা, শারমিন সামিহা ও নাজরানা খান। জুনিয়র হিসেবে ছেলেদের মধ্যে ফাহাদ আর তাহসিন তাজওয়ার এবং মেয়েদের মধ্যে খেলবে ওয়ালিজা আহমেদ ও নোশিন আঞ্জুম।

মন্তব্য